আমজাদ হোসেনের মরদেহ ঢাকায়
jugantor
আমজাদ হোসেনের মরদেহ ঢাকায়

  যুগান্তর রিপোর্ট  

২১ ডিসেম্বর ২০১৮, ১৯:২৫:৩২  |  অনলাইন সংস্করণ

চলচ্চিত্র নির্মাতা আমজাদ হোসেন।

ব্যাংককে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করা প্রখ্যাত সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব আমজাদ হোসেনের মরদেহ ঢাকায় এসে পৌঁছেছে।

শুক্রবার সন্ধ্যা ৭টার পর বাংলাদেশ বিমানের একটি ফ্লাইটে তার মরদেহ ঢাকায় এসে পৌঁছায়।

বিমানবন্দর থেকে তার মরদেহ নিয়ে আসা হচ্ছে রাজধানীর আদাবরের বাসায়। সেখানে কিছু সময় অবস্থানের পর রাতেই একটি হাসপাতালের হিমঘরে রাখা হবে আমজাদ হোসেনের মরদেহ।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন তার বড় ছেলে অভিনেতা ও নির্মাতা সাজ্জাদ হোসেন দোদুল।

তিনি আরও জানান, শনিবার সকালে সর্বসাধারণের শ্রদ্ধা নিবেদনের জন্য আমজাদ হোসেনের মরদেহ কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে নিয়ে যাওয়া হবে।

সেখান থেকে দুপুরে তার প্রিয় কর্মস্থল এফডিসিতে নিয়ে যাওয়া হবে। তারপর জানাজা শেষে তার মরদেহ দাফন করা হবে।

এ প্রসঙ্গে দোদুল বলেন, ‘আমাদের সরাসরি কিছু না বললেও আব্বা তার কবরের বিষয়ে কয়েকটি সাক্ষাৎকারে নিজের ইচ্ছার কথা জানিয়েছেন। সেই সাক্ষাৎকারগুলো আমাদের হাতে এসেছে। তিনি নিজের জন্মস্থান জামালপুরে সমাহিত হতে চেয়েছেন। তবে পারিবারিকভাবে এ বিষয়ে এখনও সিদ্ধান্ত নেয়া হয়নি।’

১৪ ডিসেম্বর বাংলাদেশ সময় বেলা ২টা ৪৭ মিনিটে থাইল্যান্ডের রাজধানী ব্যাংককের বামরুনগ্রাদ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন আমজাদ হোসেন। তার বয়স হয়েছিল ৭৬ বছর।

১৯৪২ সালের ১৪ আগস্ট জামালপুরে জন্মগ্রহণ করেন আমজাদ হোসেন। তিনি একাধারে চলচ্চিত্র পরিচালক, প্রযোজক, গল্পকার, অভিনেতা, গীতিকার ও সাহিত্যিক হিসেবে সফলতা পেয়েছেন।

বাংলাদেশ সরকার তাকে দেশের সর্বোচ্চ বেসামরিক সম্মান একুশে পদক ও স্বাধীনতা পুরস্কারে ভূষিত করেছেন।

আমজাদ হোসেনের মরদেহ ঢাকায়

 যুগান্তর রিপোর্ট 
২১ ডিসেম্বর ২০১৮, ০৭:২৫ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
চলচ্চিত্র নির্মাতা আমজাদ হোসেন।
চলচ্চিত্র নির্মাতা আমজাদ হোসেন।ফাইল ছবি

ব্যাংককে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করা প্রখ্যাত সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব আমজাদ হোসেনের মরদেহ ঢাকায় এসে পৌঁছেছে। 

শুক্রবার সন্ধ্যা ৭টার পর বাংলাদেশ বিমানের একটি ফ্লাইটে তার মরদেহ ঢাকায় এসে পৌঁছায়।

বিমানবন্দর থেকে তার মরদেহ নিয়ে আসা হচ্ছে রাজধানীর আদাবরের বাসায়। সেখানে কিছু সময় অবস্থানের পর রাতেই একটি হাসপাতালের হিমঘরে রাখা হবে আমজাদ হোসেনের মরদেহ।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন তার বড় ছেলে অভিনেতা ও নির্মাতা সাজ্জাদ হোসেন দোদুল। 

তিনি আরও জানান, শনিবার সকালে সর্বসাধারণের শ্রদ্ধা নিবেদনের জন্য আমজাদ হোসেনের মরদেহ কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে নিয়ে যাওয়া হবে।

সেখান থেকে দুপুরে তার প্রিয় কর্মস্থল এফডিসিতে নিয়ে যাওয়া হবে। তারপর জানাজা শেষে তার মরদেহ দাফন করা হবে। 

এ প্রসঙ্গে দোদুল বলেন, ‘আমাদের সরাসরি কিছু না বললেও আব্বা তার কবরের বিষয়ে কয়েকটি সাক্ষাৎকারে নিজের ইচ্ছার কথা জানিয়েছেন। সেই সাক্ষাৎকারগুলো আমাদের হাতে এসেছে। তিনি নিজের জন্মস্থান জামালপুরে সমাহিত হতে চেয়েছেন। তবে পারিবারিকভাবে এ বিষয়ে এখনও সিদ্ধান্ত নেয়া হয়নি।’

১৪ ডিসেম্বর বাংলাদেশ সময় বেলা ২টা ৪৭ মিনিটে থাইল্যান্ডের রাজধানী ব্যাংককের বামরুনগ্রাদ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন আমজাদ হোসেন। তার বয়স হয়েছিল ৭৬ বছর।

১৯৪২ সালের ১৪ আগস্ট জামালপুরে জন্মগ্রহণ করেন আমজাদ হোসেন। তিনি একাধারে চলচ্চিত্র পরিচালক, প্রযোজক, গল্পকার, অভিনেতা, গীতিকার ও সাহিত্যিক হিসেবে সফলতা পেয়েছেন।

বাংলাদেশ সরকার তাকে দেশের সর্বোচ্চ বেসামরিক সম্মান একুশে পদক ও স্বাধীনতা পুরস্কারে ভূষিত করেছেন।