সৌদি ভ্রমণে নাগরিকদের সতর্ক হতে বলেছে যুক্তরাষ্ট্র
jugantor
সৌদি ভ্রমণে নাগরিকদের সতর্ক হতে বলেছে যুক্তরাষ্ট্র

  যুগান্তর ডেস্ক  

১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১৫:০১:২৩  |  অনলাইন সংস্করণ

সৌদি ভ্রমণে নাগরিকদের সতর্ক হতে বলেছে যুক্তরাষ্ট্র

সৌদি আরবে সফরের বিষয়ে নাগরিকদের অতিরিক্ত সতর্ক হওয়ার আহ্বান জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। বুধবার নিজেদের ওয়েবসাইটে এই ভ্রমণ সতর্কতা জারি করেছে মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

মিশন প্রধানের অনুমতি ছাড়া মার্কিন মিশনের কর্মকর্তারা ও তাদের পরিবারের সদস্যরা আবহা বিমান বন্দর ব্যবহার করতে পারবেন না বলেও এতে জানানো হয়েছে।

ইয়েমেন থেকে প্রায়ই ক্ষেপণাস্ত্র ড্রোন হামলার শিকার হয়েছে সৌদি আরবের এই বিমানবন্দরটি।

এদিকে ইরানি প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানি বলেছেন, যুদ্ধবিধ্বস্ত ইয়েমেনে মার্কিন সমর্থিত সৌদি জোটের ধ্বংসযজ্ঞের জবাবে রিয়াদের তেল স্থাপনায় হুতি বিদ্রোহীদের হামলা সম্ভাব্য বড় যুদ্ধের জন্য সতর্কতামূলক।


বুধবার মন্ত্রিসভার বৈঠকের পর তিনি বলেন, ইয়েমেনিরা কোনো হাসপাতালে হামলা করেনি, স্কুলে হামলা চালায়নি, সানার কোনো বাজারে হামলা করেনি। তারা কেবল একটি শিল্পকারখানার কেন্দ্রে আঘাত হেনেছে-আপনাকে সতর্ক করতে।

কোটি কোটি ডলারের মার্কিন অস্ত্র কেনা সৌদি শাসকদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, ওই সতর্কতামূলক হামলা থেকে শিক্ষা নিন। ভেবে দেখুন, এ অঞ্চলে একটি যুদ্ধ হতে পারে।

শনিবারে সৌদি আরবের দুটি তেল স্থাপনার হামলার দায় স্বীকার করে প্রতিবেশী দেশ ইয়েমেনের হুতি বিদ্রোহীরা। কিন্তু মঙ্গলবার মার্কিন কর্মকর্তারা দাবি করছেন, ইরান থেকে ক্রুজ মিসাইল উৎক্ষেপণ করে এই হামলা চালানো হয়েছে।

গত পাঁচ বছর ধরে ইয়েমেনে যুদ্ধে ডুবে আছে সৌদি আরব। এবার দেশটি বলছে, তেল স্থাপনায় যে অস্ত্র ব্যবহার করা হয়েছে, তা ইরানের নির্মিত। কিন্তু সরকারি আঞ্চলিক শত্রুকে দায়ী করছে না।

হামলার দায় বারবার অস্বীকার করছে তেহরান। কিন্তু মার্কিন কর্মকর্তারা বলছেন, এই হামলা সরাসরি ইরান থেকে করা হয়েছে।

সৌদি ভ্রমণে নাগরিকদের সতর্ক হতে বলেছে যুক্তরাষ্ট্র

 যুগান্তর ডেস্ক 
১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৩:০১ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
সৌদি ভ্রমণে নাগরিকদের সতর্ক হতে বলেছে যুক্তরাষ্ট্র
ফাইল ছবি

সৌদি আরবে সফরের বিষয়ে নাগরিকদের অতিরিক্ত সতর্ক হওয়ার আহ্বান জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। বুধবার নিজেদের ওয়েবসাইটে এই ভ্রমণ সতর্কতা জারি করেছে মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

মিশন প্রধানের অনুমতি ছাড়া মার্কিন মিশনের কর্মকর্তারা ও তাদের পরিবারের সদস্যরা আবহা বিমান বন্দর ব্যবহার করতে পারবেন না বলেও এতে জানানো হয়েছে।

ইয়েমেন থেকে প্রায়ই ক্ষেপণাস্ত্র ড্রোন হামলার শিকার হয়েছে সৌদি আরবের এই বিমানবন্দরটি।

এদিকে ইরানি প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানি বলেছেন, যুদ্ধবিধ্বস্ত ইয়েমেনে মার্কিন সমর্থিত সৌদি জোটের ধ্বংসযজ্ঞের জবাবে রিয়াদের তেল স্থাপনায় হুতি বিদ্রোহীদের হামলা সম্ভাব্য বড় যুদ্ধের জন্য সতর্কতামূলক।


বুধবার মন্ত্রিসভার বৈঠকের পর তিনি বলেন, ইয়েমেনিরা কোনো হাসপাতালে হামলা করেনি, স্কুলে হামলা চালায়নি, সানার কোনো বাজারে হামলা করেনি। তারা কেবল একটি শিল্পকারখানার কেন্দ্রে আঘাত হেনেছে-আপনাকে সতর্ক করতে।

কোটি কোটি ডলারের মার্কিন অস্ত্র কেনা সৌদি শাসকদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, ওই সতর্কতামূলক হামলা থেকে শিক্ষা নিন। ভেবে দেখুন, এ অঞ্চলে একটি যুদ্ধ হতে পারে।

শনিবারে সৌদি আরবের দুটি তেল স্থাপনার হামলার দায় স্বীকার করে প্রতিবেশী দেশ ইয়েমেনের হুতি বিদ্রোহীরা। কিন্তু মঙ্গলবার মার্কিন কর্মকর্তারা দাবি করছেন, ইরান থেকে ক্রুজ মিসাইল উৎক্ষেপণ করে এই হামলা চালানো হয়েছে।

গত পাঁচ বছর ধরে ইয়েমেনে যুদ্ধে ডুবে আছে সৌদি আরব। এবার দেশটি বলছে, তেল স্থাপনায় যে অস্ত্র ব্যবহার করা হয়েছে, তা ইরানের নির্মিত। কিন্তু সরকারি আঞ্চলিক শত্রুকে দায়ী করছে না।

হামলার দায় বারবার অস্বীকার করছে তেহরান। কিন্তু মার্কিন কর্মকর্তারা বলছেন, এই হামলা সরাসরি ইরান থেকে করা হয়েছে।

 

ঘটনাপ্রবাহ : মার্কিন-ইরান সংকট