কৃষক দম্পতিকে বেদম পেটাল পুলিশ, ক্ষোভের আগুন মধ্যপ্রদেশে (ভিডিও)
jugantor
কৃষক দম্পতিকে বেদম পেটাল পুলিশ, ক্ষোভের আগুন মধ্যপ্রদেশে (ভিডিও)

  অনলাইন ডেস্ক  

১৬ জুলাই ২০২০, ১৮:৫৭:০৫  |  অনলাইন সংস্করণ

মধ্যপ্রদেশে কৃষক দম্পত্তিকে নির্মমভাবে পেটাচ্ছে পুলিশ।

কৃষি জমির ওপর মডেল কলেজ নির্মাণ হবে। তাই তাদের জমি ছাড়তে নোটিশ করা হয়েছিল। দাবি করা হয় ওই জমি সরকারি। কিন্তু নোটিশ পাওয়ার পরেও জমি ছাড়তে রাজি হননি কৃষক দম্পতি। তাতেই ক্ষিপ্ত হয়ে প্রশাসনের পক্ষ থেকে জমির ফসলে বুলডোজার চালানো হয়। এতে বাধা দিলে কৃষক দম্পতিকে নির্মম প্রহার করে পুলিশ। এতেই ক্ষোভে ওই দম্পতি সন্তান ও পুলিশের সামনে কীটনাশক খেয়ে আত্মহত্যা করার চেষ্টা করেন। ঘটনাটি ঘটেছে মধ্যপ্রদেশের গুনা এলাকায়।

আর সেই ঘটনার ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়। আর চারদিকে ক্ষোভের আগুন ছড়িয়ে পড়ে।

এমন নেক্কারজনক ঘটনায় মুখ্যমন্ত্রী শিবরাজ সিং প্রশাসনের বিরুদ্ধে সরব হয়েছেন বিরোধীরা। এ নিয়ে রাহুল গান্ধী হিন্দিতে একটি টুইট বার্তা দেন। এতে তিনি লেখেন, আমাদের লড়াই এই মানসিকতা এবং অবিচারের বিরুদ্ধেই।

ভারতীয় সংবাদ মাধ্যম এনডিটিভি জানিয়েছে, গুণার কৃষক রামকুমার আহিরওয়ারকে জমি খালি করার নোটিশ দেওয়ার পরেও কোনো কাজ না হওয়ায় সেই জমিতে হওয়া ফসলের ওপর দিয়েই বুলডোজার চালিয়ে দেন মধ্যপ্রদেশের রাজস্ব বিভাগের কর্মকর্তারা। আর জোর করে চোখের সামনে ওই কৃষক ও তার পরিবারকে সেই ঘটনা দেখতে বাধ্য করে পুলিশ, চলে নির্মম অত্যাচারও। বারবার কাকুতি মিনতি করা সত্ত্বেও বুলডোজার থামানো হয়নি।

অবশেষে সন্তান ও পুলিশের সামনেই কীটনাশক খেয়ে আত্মহত্যা করার চেষ্টা করেন ওই দলিত কৃষক‌ দম্পতি। তবে বর্তমানে একটি সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রাম কুমার আহিরওয়ার (৩৮) ও তার স্ত্রী সাবিত্রী দেবী (৩৫) শারীরিক অবস্থা অনেকটাই স্থিতিশীল।

ভারতীয় অন্য গণমাধ্যমগুলো বলছে, এই ঘটনার পর পুলিশের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেয়নি প্রশাসন। উল্টো ওই দম্পতি ও সেখানে উপস্থিত স্থানীয়দের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছে পুলিশ।

এদিকে গুনার জেলাশাসক এস বিশ্বনাথ দাবি করেছেন, আমরা ভিডিও ফুটেছে দেখেছি। বিষ খাওয়ার পর পুলিশই দ্রুত দম্পতিকে হাসপাতালে নিয়ে যায়। আমাদের দল কাজ না করলে তাদের মৃত্যু হতে পারত।
ভিডিওতে পুলিশ নির্বিচারে লাঠি চার্জ করতে দেখা গেলেও সেই দাবি অস্বীকার করেছেন গ্বালিয়ারের আইজি। তিনি সংবাদ মাধ্যমকে বলেছেন, ভিডিওতে পুলিশ মারছে তা কেটে দেখানো হচ্ছে।

তার দাবি, কীটনাশক খেয়ে অচৈতন্য দম্পতিকে হাসপাতালে নিয়ে যাচ্ছিল পুলিশ। সে সময় স্থানীয়রা বাধা দিলে লাঠি চালায় পুলিশ।

দলিত দম্পতির প্রতি এই আচরণে নেটাগরিকরাও ক্ষুব্ধ। পাশাপাশি মধ্যপ্রদেশের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী কমল নাথ ও সে রাজ্যের কংগ্রেস নেতা দিগ্বিজয় সিং তোপ দেগেছেন রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে।

দম্পতির ওপর লাঠি চালানোর ঘটনার ভিডিও শেয়ার করেছেন দিগ্বিজয় সিং। কমল নাথ টুইটে লিখেছেন, এক দলিত দম্পতিকে নিষ্ঠুরভাবে মারছে পুলিশ। এটা কোন ধরনের জঙ্গল রাজ? সরকারি জমির সমস্যা আইনি উপায়ে মেটানো যেতে পারে। কিন্তু বাচ্চাদের সামনে এ ভাবে পেটানো হল কোন যুক্তিতে? এ ঘটনায় জন্য দায়ী কর্মীদের বিরদ্ধে কড়া ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি তুলেছেন তিনি।

ঘটনার পর পরিস্থিতি উত্তপ্ত হতেই মধ্যপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী শিবরাজ সিং চৌহান জেলাশাসক ও পুলিশ সুপারকে সরানোর নির্দেশ দিয়েছেন। ঘটনার উচ্চ পর্যায়ের তদন্তেরও নির্দেশ দিয়েছেন তিনি।

কৃষক দম্পতিকে বেদম পেটাল পুলিশ, ক্ষোভের আগুন মধ্যপ্রদেশে (ভিডিও)

 অনলাইন ডেস্ক 
১৬ জুলাই ২০২০, ০৬:৫৭ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
মধ্যপ্রদেশে কৃষক দম্পত্তিকে নির্মমভাবে পেটাচ্ছে পুলিশ।
ছবি: সংগৃহীত

কৃষি জমির ওপর মডেল কলেজ নির্মাণ হবে। তাই তাদের জমি ছাড়তে নোটিশ করা হয়েছিল। দাবি করা হয় ওই জমি সরকারি। কিন্তু নোটিশ পাওয়ার পরেও জমি ছাড়তে রাজি হননি কৃষক দম্পতি। তাতেই ক্ষিপ্ত হয়ে প্রশাসনের পক্ষ থেকে জমির ফসলে বুলডোজার চালানো হয়। এতে বাধা দিলে কৃষক দম্পতিকে নির্মম প্রহার করে পুলিশ। এতেই ক্ষোভে ওই দম্পতি সন্তান ও পুলিশের সামনে কীটনাশক খেয়ে আত্মহত্যা করার চেষ্টা করেন। ঘটনাটি ঘটেছে মধ্যপ্রদেশের গুনা এলাকায়। 

আর সেই ঘটনার ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়। আর চারদিকে ক্ষোভের আগুন ছড়িয়ে পড়ে।

এমন নেক্কারজনক ঘটনায় মুখ্যমন্ত্রী শিবরাজ সিং প্রশাসনের বিরুদ্ধে সরব হয়েছেন বিরোধীরা। এ নিয়ে রাহুল গান্ধী হিন্দিতে একটি টুইট বার্তা দেন। এতে তিনি লেখেন, আমাদের লড়াই এই মানসিকতা এবং অবিচারের বিরুদ্ধেই।   

ভারতীয় সংবাদ মাধ্যম এনডিটিভি জানিয়েছে, গুণার কৃষক রামকুমার আহিরওয়ারকে জমি খালি করার নোটিশ দেওয়ার পরেও কোনো কাজ না হওয়ায় সেই জমিতে হওয়া ফসলের ওপর দিয়েই বুলডোজার চালিয়ে দেন মধ্যপ্রদেশের রাজস্ব বিভাগের কর্মকর্তারা। আর জোর করে চোখের সামনে ওই কৃষক ও তার পরিবারকে সেই ঘটনা দেখতে বাধ্য করে পুলিশ, চলে নির্মম অত্যাচারও। বারবার কাকুতি মিনতি করা সত্ত্বেও বুলডোজার থামানো হয়নি। 

অবশেষে সন্তান ও পুলিশের সামনেই কীটনাশক খেয়ে আত্মহত্যা করার চেষ্টা করেন ওই দলিত কৃষক‌ দম্পতি। তবে বর্তমানে একটি সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রাম কুমার আহিরওয়ার (৩৮) ও তার স্ত্রী সাবিত্রী দেবী (৩৫) শারীরিক অবস্থা অনেকটাই স্থিতিশীল।

ভারতীয় অন্য গণমাধ্যমগুলো বলছে, এই ঘটনার পর পুলিশের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেয়নি প্রশাসন। উল্টো ওই দম্পতি ও সেখানে উপস্থিত স্থানীয়দের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছে পুলিশ। 

এদিকে গুনার জেলাশাসক এস বিশ্বনাথ দাবি করেছেন, আমরা ভিডিও ফুটেছে দেখেছি। বিষ খাওয়ার পর পুলিশই দ্রুত দম্পতিকে হাসপাতালে নিয়ে যায়। আমাদের দল কাজ না করলে তাদের মৃত্যু হতে পারত। 
ভিডিওতে পুলিশ নির্বিচারে লাঠি চার্জ করতে দেখা গেলেও সেই দাবি অস্বীকার করেছেন গ্বালিয়ারের আইজি। তিনি সংবাদ মাধ্যমকে বলেছেন, ভিডিওতে পুলিশ মারছে তা কেটে দেখানো হচ্ছে।

তার দাবি, কীটনাশক খেয়ে অচৈতন্য দম্পতিকে হাসপাতালে নিয়ে যাচ্ছিল পুলিশ। সে সময় স্থানীয়রা বাধা দিলে লাঠি চালায় পুলিশ।

দলিত দম্পতির প্রতি এই আচরণে নেটাগরিকরাও ক্ষুব্ধ। পাশাপাশি মধ্যপ্রদেশের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী কমল নাথ ও সে রাজ্যের কংগ্রেস নেতা দিগ্বিজয় সিং তোপ দেগেছেন রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে। 

দম্পতির ওপর লাঠি চালানোর ঘটনার ভিডিও শেয়ার করেছেন দিগ্বিজয় সিং। কমল নাথ টুইটে লিখেছেন, এক দলিত দম্পতিকে নিষ্ঠুরভাবে মারছে পুলিশ। এটা কোন ধরনের জঙ্গল রাজ? সরকারি জমির সমস্যা আইনি উপায়ে মেটানো যেতে পারে। কিন্তু বাচ্চাদের সামনে এ ভাবে পেটানো হল কোন যুক্তিতে?  এ ঘটনায় জন্য দায়ী কর্মীদের বিরদ্ধে কড়া ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি তুলেছেন তিনি।

ঘটনার পর পরিস্থিতি উত্তপ্ত হতেই মধ্যপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী শিবরাজ সিং চৌহান জেলাশাসক ও পুলিশ সুপারকে সরানোর নির্দেশ দিয়েছেন। ঘটনার উচ্চ পর্যায়ের তদন্তেরও নির্দেশ দিয়েছেন তিনি।