‘ভারত সীমান্তে চীনের ৬০ হাজার সেনা, উদ্বিগ্ন যুক্তরাষ্ট্র’
jugantor
‘ভারত সীমান্তে চীনের ৬০ হাজার সেনা, উদ্বিগ্ন যুক্তরাষ্ট্র’

  যুগান্তর ডেস্ক  

১০ অক্টোবর ২০২০, ১৬:৫৯:২৮  |  অনলাইন সংস্করণ

‘ভারত সীমান্তে চীনের ৬০ হাজার সেনা, উদ্বিগ্ন যুক্তরাষ্ট্র’

ভারতীয় সীমান্তে চীনা সেনাবাহিনীর অন্তত ৬০ হাজার সেনা মোতায়েন রয়েছে। এমন পরিস্থিতিতে সীমান্তে উত্তেজনা সৃষ্টি করে দিল্লির ওপর চাপ প্রয়োগের চেষ্টায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছে মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও।

শুক্রবার একটি টিভি চ্যানেলকে দেয়া সাক্ষাৎকারে মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী এমনটা দাবি করেছেন বলে ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি ও আনন্দবাজার পত্রিকার খবরে বলা হয়েছে।

খবরে বলা হয়, গত মঙ্গলবার যুক্তরাষ্ট্র, জাপান, অস্ট্রেলিয়া ও ভারতকে গঠিত জোট ‘কোয়াড’র পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের বৈঠকে অংশ নিতে টোকিও সফর করেন মাইক পম্পেও।

টোকিও থেকে ফিরে একটি টিভি চ্যানেলকে দেয়া সাক্ষাৎকারে পম্পেও বলেন, বিশ্বের চারটি বৃহৎ গণতান্ত্রিক এবং অর্থনৈতিক শক্তির দেশকে নিয়ে ‘কোয়াড’ গঠিত হয়েছে। আর আমাদের সবার কাছেই চীনা কমিউনিস্ট পার্টির আচরণ ক্রমশ বিপদ হিসেবে দেখা দিচ্ছে।

সরকারি সূত্রে এনডিটিভি জানিয়েছে, টোকিওতে ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এস জয়শঙ্করের সঙ্গে লাদাখ পরিস্থিতি নিয়ে বৈঠক করেন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী। পাশাপাশি, প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চল এবং দক্ষিণ চীন সাগরে পিপলস লিবারেশন আর্মির (পিএলএ) সাম্প্রতিক আগ্রাসী আচরণ নিয়েও বৈঠকে আলোচনা হয়।

সাক্ষাৎকারে মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, এখন সবাই জেনে গেছে, কীভাবে ভারতের উত্তরে হিমালয় ঘেরা সীমান্তে চীন সঙ্ঘাতে লিপ্ত হয়েছে। সেখানে ৬০ হাজার সেনা মোতায়েন করা হয়েছে। করোনাভাইরাসের উৎপত্তি ও ছড়িয়ে পড়ার ঘটনা নিয়ে নিরপেক্ষ তদন্ত চেয়েছিল অস্ট্রেলিয়া। পরিণামে তাদেরও চীনা কমিউনিস্ট পার্টির হুমকি ও নিগ্রহের মুখে পড়তে হয়েছে।

‘ভারত সীমান্তে চীনের ৬০ হাজার সেনা, উদ্বিগ্ন যুক্তরাষ্ট্র’

 যুগান্তর ডেস্ক 
১০ অক্টোবর ২০২০, ০৪:৫৯ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
‘ভারত সীমান্তে চীনের ৬০ হাজার সেনা, উদ্বিগ্ন যুক্তরাষ্ট্র’
ভারত সীমান্তে চীনা সেনাদের তৎপরতা। ছবি: এনডিটিভি

ভারতীয় সীমান্তে চীনা সেনাবাহিনীর অন্তত ৬০ হাজার সেনা মোতায়েন রয়েছে। এমন পরিস্থিতিতে সীমান্তে উত্তেজনা সৃষ্টি করে দিল্লির ওপর চাপ প্রয়োগের চেষ্টায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছে মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও।

শুক্রবার একটি টিভি চ্যানেলকে দেয়া সাক্ষাৎকারে মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী এমনটা দাবি করেছেন বলে ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি ও আনন্দবাজার পত্রিকার খবরে বলা হয়েছে। 

খবরে বলা হয়, গত মঙ্গলবার যুক্তরাষ্ট্র, জাপান, অস্ট্রেলিয়া ও ভারতকে গঠিত জোট ‘কোয়াড’র পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের বৈঠকে অংশ নিতে টোকিও সফর করেন মাইক পম্পেও। 

টোকিও থেকে ফিরে একটি টিভি চ্যানেলকে দেয়া সাক্ষাৎকারে পম্পেও বলেন, বিশ্বের চারটি বৃহৎ গণতান্ত্রিক এবং অর্থনৈতিক শক্তির দেশকে নিয়ে ‘কোয়াড’ গঠিত হয়েছে। আর আমাদের সবার কাছেই চীনা কমিউনিস্ট পার্টির আচরণ ক্রমশ বিপদ হিসেবে দেখা দিচ্ছে।

সরকারি সূত্রে এনডিটিভি জানিয়েছে, টোকিওতে ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এস জয়শঙ্করের সঙ্গে লাদাখ পরিস্থিতি নিয়ে বৈঠক করেন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী। পাশাপাশি, প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চল এবং দক্ষিণ চীন সাগরে পিপলস লিবারেশন আর্মির (পিএলএ) সাম্প্রতিক আগ্রাসী আচরণ নিয়েও বৈঠকে আলোচনা হয়।

সাক্ষাৎকারে মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, এখন সবাই জেনে গেছে, কীভাবে ভারতের উত্তরে হিমালয় ঘেরা সীমান্তে চীন সঙ্ঘাতে লিপ্ত হয়েছে। সেখানে ৬০ হাজার সেনা মোতায়েন করা হয়েছে। করোনাভাইরাসের উৎপত্তি ও ছড়িয়ে পড়ার ঘটনা নিয়ে নিরপেক্ষ তদন্ত চেয়েছিল অস্ট্রেলিয়া। পরিণামে তাদেরও চীনা কমিউনিস্ট পার্টির হুমকি ও নিগ্রহের মুখে পড়তে হয়েছে।
 

 

ঘটনাপ্রবাহ : সীমান্তে চীন-ভারত উত্তেজনা

আরও খবর