রোমে মহান শহীদ দিবস উদযাপন
jugantor
রোমে মহান শহীদ দিবস উদযাপন

  জমির হোসেন, ইতালি থেকে  

২২ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ২২:১৯:৩৮  |  অনলাইন সংস্করণ

রোমে বাংলাদেশ দূতাবাসের উদ্যোগে শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উদযাপন করা হয়েছে। যথাযথ মর্যাদা ও ভাবগাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন করা হয়।

দুই দিনব্যাপী অনুষ্ঠানের প্রথম দিন ২০ ফেব্রুয়ারি সন্ধ্যা ৭টা ১ মিনিটে ইতালিতে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মো. শামীম আহসান দূতাবাসে অবস্থিত শহিদ মিনারে পুষ্পমাল্য অর্পণ করেন। এ সময় দূতাবাসের সব কর্মকর্তা উপস্থিত ছিলেন।

পুষ্পার্পণের পরে দিবসটি উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, পররাষ্ট্রমন্ত্রী এবং পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর বাণী পাঠ করা হয়। পরে ভাষা শহীদদের রুহের মাগফিরাত ও দেশের শান্তি ও সমৃদ্ধি কামনা করে বিশেষ দোয়া ও মোনাজাত করা হয়।

দুই দিনব্যাপী অনুষ্ঠানের দ্বিতীয় দিনে সকাল সাড়ে ৯টায় জাতীয় পতাকা অর্ধনমিতকরণের মাধ্যমে দ্বিতীয় দিনের কর্মসূচি শুরু হয়। এ সময় একটি আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। সভায় বাংলাদেশি ছাড়াও ইতালিয়ান অতিথিরা অংশগ্রহণ করেন।

অনুষ্ঠানে বহুভাষাভিত্তিক বর্ণিল সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে বেশ কয়েকটি দেশের শিল্পীরা অংশগ্রহণ করেন। উল্লেখ্য, ইতালি সরকারের কোভিড-১৯ সংক্রান্ত বিধিনিষেধের কারণে এ বছর শহিদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের কর্মসূচি ডিজিটাল মাধ্যম জুমে করা হয়েছে।

রোমে মহান শহীদ দিবস উদযাপন

 জমির হোসেন, ইতালি থেকে 
২২ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ১০:১৯ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

রোমে বাংলাদেশ দূতাবাসের উদ্যোগে শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উদযাপন করা হয়েছে। যথাযথ মর্যাদা ও ভাবগাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন করা হয়।

দুই দিনব্যাপী অনুষ্ঠানের প্রথম দিন ২০ ফেব্রুয়ারি সন্ধ্যা ৭টা ১ মিনিটে  ইতালিতে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মো. শামীম আহসান দূতাবাসে অবস্থিত শহিদ মিনারে পুষ্পমাল্য অর্পণ করেন। এ সময় দূতাবাসের সব কর্মকর্তা উপস্থিত ছিলেন। 

পুষ্পার্পণের পরে দিবসটি উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, পররাষ্ট্রমন্ত্রী এবং পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর বাণী পাঠ করা হয়। পরে ভাষা শহীদদের রুহের মাগফিরাত ও দেশের শান্তি ও সমৃদ্ধি কামনা করে বিশেষ দোয়া ও মোনাজাত করা হয়।

দুই দিনব্যাপী অনুষ্ঠানের দ্বিতীয় দিনে সকাল সাড়ে ৯টায় জাতীয় পতাকা অর্ধনমিতকরণের মাধ্যমে দ্বিতীয় দিনের কর্মসূচি শুরু হয়। এ সময় একটি আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। সভায় বাংলাদেশি ছাড়াও ইতালিয়ান অতিথিরা অংশগ্রহণ করেন।

অনুষ্ঠানে বহুভাষাভিত্তিক বর্ণিল সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে বেশ কয়েকটি দেশের শিল্পীরা অংশগ্রহণ করেন। উল্লেখ্য, ইতালি সরকারের কোভিড-১৯ সংক্রান্ত  বিধিনিষেধের কারণে এ বছর শহিদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের কর্মসূচি ডিজিটাল মাধ্যম জুমে করা হয়েছে।
 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন