প্যান্টের পকেটে ধুয়ে গেল ২২ কোটি ৯৮ লাখ পুরস্কারের লটারি!
jugantor
প্যান্টের পকেটে ধুয়ে গেল ২২ কোটি ৯৮ লাখ পুরস্কারের লটারি!

  আন্তর্জাতিক ডেস্ক  

১৭ মে ২০২১, ১৩:০৫:২১  |  অনলাইন সংস্করণ

টাকা বা জরুরি কাগজ প্যান্টের পকেটে রেখে তা ধুয়ে ফেলেন অনেকে।

এতে ক্ষতির সম্মুখীন হন এসব বেখেয়ালিরা। তাই বলে ২২ কোটি ৯৮ লাখ টাকা!

এমন ক্ষতির মুখে পড়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়ার এক নারী।

ক্যালিফোর্নিয়ার হুইটিয়ার ডেইলি নিউজ জানিয়েছে, গত বছরের নভেম্বরে লস এঞ্জেলেসের নরওয়াকের একটি দোকানে সুপারলটো প্লাস লটারি টিকিট বিক্রি হয়। সেসময় দোকানটি থেকে লটারির একটি টিকেট কিনেছিলেন ওই নারী। এর ছয় মাস পর গত ১৪ নভেম্বর ওই লটারির ড্র হয়। তাতে ২ কোটি ৬০ লাখ ডলারের (বাংলাদেশি ২২ কোটি ৯৮ লাখ টাকা) প্রথম পুরস্কার ওই নারীর ভাগ্যে জুটে। লটারির টিকিটটি তার ট্রাউজারের পকেটেই ছিল। কিন্তু বেখেয়ালি হয়ে ট্রাউজারটি ধুয়ে ফেলেন তিনি।

গত বৃহস্পতিবার ছিল লটারির পুরস্কার দাবি করার শেষ দিন।

বুধবার ওইনারী নরওয়াকের দোকানে গিয়ে দাবি করেন, তিনিই সেই জ্যাকপট জয়ী। কিন্তু তার লটারির টিকিট ট্রাউজারের সঙ্গে ধুয়ে গেছে।

এ বিষয়ে এসপেরানজা হার্নান্দেজ নামে দোকানের এক কর্মী বলেন, ওই নারীর আশঙ্কা, তিনি ভুলক্রমে টিকিটটি ধুতে দেওয়া কাপড়ের মধ্যে রেখেছিলেন।

এমন ঘটনায় বিপাকে পড়েছেন সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ ও জ্যাকপট জয়ী দাবি করা দুই পক্ষই।

সত্যি সত্যি ওই নারী লটারিজয়ী কি না তা নিশ্চিত নন আয়োজকরা। যদিওওই নারী যে নরওয়াকের দোকান থেকে লটারি কিনেছিলেন তার প্রমাণ পাওয়া গেছে সিসিটিভি ফুটেজে।

এ বিষয়ে ক্যালফোর্নিয়া লটারির মুখপাত্র ক্যাথি জনস্টন গণমাধ্যমকে বলেছেন, দোকানের সিসিটিভি ফুটেজ ওই নারীর দাবির পক্ষে যথেষ্ট নয়। পুরস্কারের টিকিটটি যে তার, সেটার বাস্তব প্রমাণ লাগবে। নারীটির দাবির সত্যতা নিশ্চিতে আয়োজকরা সিসিটিভি ফুটেজ খতিয়ে দেখছে।

প্রশ্ন উঠেছে, শেষ পর্যন্ত নারীর দাবির সত্যতা না মিললে বা পুরস্কারের অর্থ কেউ না পেলে কী হবে ২ কোটি ৬০ লাখ ডলারের?

আয়োজকরা জানিয়েছেন, সেই অর্থ ক্যালিফোর্নিয়ার সরকারি স্কুলগুলোকে ভাগ করে দেওয়া হবে।

তথ্যসূত্র: সিএনএন

প্যান্টের পকেটে ধুয়ে গেল ২২ কোটি ৯৮ লাখ পুরস্কারের লটারি!

 আন্তর্জাতিক ডেস্ক 
১৭ মে ২০২১, ০১:০৫ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

টাকা বা জরুরি কাগজ প্যান্টের পকেটে রেখে তা ধুয়ে ফেলেন অনেকে।

এতে ক্ষতির সম্মুখীন হন এসব বেখেয়ালিরা। তাই বলে ২২ কোটি ৯৮ লাখ টাকা!

এমন ক্ষতির মুখে পড়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়ার এক নারী।

ক্যালিফোর্নিয়ার হুইটিয়ার ডেইলি নিউজ জানিয়েছে, গত বছরের নভেম্বরে লস এঞ্জেলেসের নরওয়াকের একটি দোকানে সুপারলটো প্লাস লটারি টিকিট বিক্রি হয়। সেসময় দোকানটি থেকে লটারির একটি টিকেট কিনেছিলেন ওই নারী। এর ছয় মাস পর গত ১৪ নভেম্বর ওই লটারির ড্র হয়। তাতে ২ কোটি ৬০ লাখ ডলারের (বাংলাদেশি ২২ কোটি ৯৮ লাখ টাকা) প্রথম পুরস্কার ওই নারীর ভাগ্যে জুটে। লটারির টিকিটটি তার ট্রাউজারের পকেটেই ছিল। কিন্তু বেখেয়ালি হয়ে ট্রাউজারটি ধুয়ে ফেলেন তিনি।

গত বৃহস্পতিবার ছিল লটারির পুরস্কার দাবি করার শেষ দিন।  

বুধবার ওই নারী নরওয়াকের দোকানে গিয়ে দাবি করেন, তিনিই সেই জ্যাকপট জয়ী। কিন্তু তার লটারির টিকিট ট্রাউজারের সঙ্গে ধুয়ে গেছে। 

এ বিষয়ে এসপেরানজা হার্নান্দেজ নামে দোকানের এক কর্মী বলেন, ওই নারীর আশঙ্কা, তিনি ভুলক্রমে টিকিটটি ধুতে দেওয়া কাপড়ের মধ্যে রেখেছিলেন। 

এমন ঘটনায় বিপাকে পড়েছেন সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ ও জ্যাকপট জয়ী দাবি করা দুই পক্ষই।

সত্যি সত্যি ওই নারী লটারিজয়ী কি না তা নিশ্চিত নন আয়োজকরা। যদিও ওই নারী যে নরওয়াকের দোকান থেকে লটারি কিনেছিলেন তার প্রমাণ পাওয়া গেছে সিসিটিভি ফুটেজে।

এ বিষয়ে ক্যালফোর্নিয়া লটারির মুখপাত্র ক্যাথি জনস্টন গণমাধ্যমকে বলেছেন, দোকানের সিসিটিভি ফুটেজ ওই নারীর দাবির পক্ষে যথেষ্ট নয়। পুরস্কারের টিকিটটি যে তার, সেটার বাস্তব প্রমাণ লাগবে। নারীটির দাবির সত্যতা নিশ্চিতে আয়োজকরা সিসিটিভি ফুটেজ খতিয়ে দেখছে। 

প্রশ্ন উঠেছে, শেষ পর্যন্ত নারীর দাবির সত্যতা না মিললে বা পুরস্কারের অর্থ কেউ না পেলে কী হবে ২ কোটি ৬০ লাখ ডলারের? 

আয়োজকরা জানিয়েছেন, সেই অর্থ ক্যালিফোর্নিয়ার সরকারি স্কুলগুলোকে ভাগ করে দেওয়া হবে।

তথ্যসূত্র: সিএনএন

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন