বৃহৎ পরিসরে যুদ্ধ বিমান উৎপাদনে যাচ্ছে তুরস্ক 
jugantor
বৃহৎ পরিসরে যুদ্ধ বিমান উৎপাদনে যাচ্ছে তুরস্ক 

  অনলাইন ডেস্ক  

১৩ জানুয়ারি ২০২২, ২২:৪১:২২  |  অনলাইন সংস্করণ

তুরস্কের প্রতিরক্ষা শিল্প এক্সিকিউটিভ কমিটি বুধবার সিদ্ধান্ত নিয়েছে, নিজেদের তৈরি হালকা যুদ্ধবিমান হুরজেট বৃহৎ পরিসরে উৎপাদন করবে তারা।

হুরজেট সম্পূর্ণ তুরস্কে তৈরি। এটির ডিজাইন,উৎপাদন সবই করছে দেশটি। ২০২৩ সালে এই বিমানটিকে আকাশে উড়তে দেখা যাবে। হুরজেট বিমান তৈরির ব্যপারে ২০১৭ সালে সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

হুজরাত বিমানটি হচ্ছে পঞ্চম প্রজন্মের প্রশিক্ষণ বিমান। এই বিমানের আধুনিক ককপিটে থাকবে অত্যাধুনিক মিশন কম্পিউটার। তাছাড়া এই বিমানে থাকবে রাডার, সূক্ষ্মভাবে আক্রমণ করার সিস্টেম।বিমানটির পাইলট সহজেই আকাশে ও মাটিতে যোগাযোগ করতে পারবে।যার কারণে হুমকি ও ঝুঁকি কমে আসবে।

হুজরাতের এই বিমানগুলো বর্তমানে তুরষ্কের বিমানবাহিনীতে থাকা টি-৩৮ প্রশিক্ষণ বিমানের জায়গায় ব্যবহার করা হবে। নিজেদের চাহিদা মিটিয়ে বাইরের দেশগুলোতেও রপ্তানি করা হবে।

এদিকে এক বিবৃততিতে প্রতিরক্ষা শিল্প এক্সিকিউটিভ কমিটি জানায়,নিজেদের প্রতিরক্ষা ব্যবস্থায় নিজেদের তৈরি সমরাস্ত্রের পরিমাণ বাড়ানোর বিষয়েও আলোচনা করেছে তারা।

বিবৃতিতে আরো জানানো হয়েছে,বাইরে থেকে যেসব অস্ত্র আমদানি করা হয় সে অস্ত্রগুলো নিজ দেশে তৈরির ক্ষেত্রে সহযোগিতা করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

সূত্র: ডেইলি সাবাহ

বৃহৎ পরিসরে যুদ্ধ বিমান উৎপাদনে যাচ্ছে তুরস্ক 

 অনলাইন ডেস্ক 
১৩ জানুয়ারি ২০২২, ১০:৪১ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

তুরস্কের প্রতিরক্ষা শিল্প এক্সিকিউটিভ কমিটি বুধবার সিদ্ধান্ত নিয়েছে, নিজেদের তৈরি হালকা যুদ্ধবিমান হুরজেট বৃহৎ পরিসরে উৎপাদন করবে তারা। 

হুরজেট সম্পূর্ণ তুরস্কে তৈরি। এটির ডিজাইন,উৎপাদন সবই করছে দেশটি। ২০২৩ সালে এই বিমানটিকে আকাশে উড়তে দেখা যাবে। হুরজেট বিমান তৈরির ব্যপারে ২০১৭ সালে সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। 

হুজরাত বিমানটি হচ্ছে পঞ্চম প্রজন্মের প্রশিক্ষণ বিমান। এই বিমানের আধুনিক ককপিটে থাকবে অত্যাধুনিক মিশন কম্পিউটার। তাছাড়া এই বিমানে থাকবে রাডার, সূক্ষ্মভাবে আক্রমণ করার সিস্টেম।বিমানটির পাইলট সহজেই আকাশে ও মাটিতে যোগাযোগ করতে পারবে।যার কারণে হুমকি ও ঝুঁকি কমে আসবে।

হুজরাতের এই বিমানগুলো বর্তমানে তুরষ্কের বিমানবাহিনীতে থাকা টি-৩৮ প্রশিক্ষণ বিমানের জায়গায় ব্যবহার করা হবে। নিজেদের চাহিদা মিটিয়ে বাইরের দেশগুলোতেও রপ্তানি করা হবে।     

এদিকে এক বিবৃততিতে প্রতিরক্ষা শিল্প এক্সিকিউটিভ কমিটি জানায়,নিজেদের প্রতিরক্ষা ব্যবস্থায় নিজেদের তৈরি সমরাস্ত্রের পরিমাণ বাড়ানোর বিষয়েও আলোচনা করেছে তারা।

বিবৃতিতে আরো জানানো হয়েছে,বাইরে থেকে যেসব অস্ত্র আমদানি করা হয় সে অস্ত্রগুলো নিজ দেশে তৈরির ক্ষেত্রে সহযোগিতা করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

সূত্র: ডেইলি সাবাহ

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
আরও খবর