টেক্সাসে ড. আফিয়ার মৃত্যুর খবর উড়িয়ে দিলেন পাকিস্তানি কূটনীতিক
jugantor
টেক্সাসে ড. আফিয়ার মৃত্যুর খবর উড়িয়ে দিলেন পাকিস্তানি কূটনীতিক

  যুগান্তর ডেস্ক  

২৫ মে ২০১৮, ১৩:৫৩:৪৩  |  অনলাইন সংস্করণ

আফিয়া

ড. আফিয়া সিদ্দিকীর মৃত্যুর খবর ভিত্তিহীন ও মিথ্যা বলে উড়িয়ে দিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের হাউসটনে পাকিস্তানের কনসাল জেনারেল আয়েশা ফারুকী। তিনি বলেন, বুধবার আমি আফিয়া সিদ্দিকীর সঙ্গে দেখা করেছি।

দেশটির কেন্দ্রীয় চিকিৎসাকেন্দ্র কারসওয়েলে আফিয়ার সঙ্গে তার দুই ঘণ্টা আলোচনা হয়েছে। টেক্সাসের ফোর্ট ওর্থের এই মেডিকেল সেন্টারে নিরাপত্তাসংক্রান্ত কয়েদিদের চিকিৎসা দেয়া হয়।-খবর ডন অনলাইনের।

আফগানিস্তানে যুক্তরাষ্ট্রের সেনাদের ওপর হামলার অভিযোগে ২০১০ সালের ২৩ সেপ্টেম্বর নিউইয়র্কের একটি আদালত স্নায়ুবিজ্ঞানী ড. সিদ্দিকীকে ৮৬ বছর কারাদণ্ড দেন।

বুধবার সন্ধ্যায় দেয়া এক বিবৃতিতে জানানো হয়, কনসাল জেনারেল আয়েশা ফারুকী কারসওয়েলে গিয়ে ড. আফিয়া সিদ্দিকীর সঙ্গে বৈঠক করেছেন। প্রায় দুই ঘণ্টাব্যাপী তাদের মধ্যে আলোচনা হয়েছে।

গত ১৪ মাসে ড. আফিয়া সিদ্দিকীর কারাকক্ষে মোট চারবার গিয়েছিলেন কনসাল জেনারেল।

এর আগে খবর ছড়িয়ে পড়ে যে ড. আফিয়া সিদ্দিকী মারা গেছেন।

ড. সিদ্দিকীর প্রতি সহানুভূতি সম্পন্ন লোকজন বলেন, তিনি পাকিস্তানে গ্রেফতার হয়েছিলেন। এরপর তাকে গোয়েন্দা বাহিনীর কাছে সমর্পণ করা হয়। গোয়েন্দারা তাকে যুক্তরাষ্ট্রের কারাগারে স্থানান্তর করে।

আফগানিস্তানে খোঁজ পাওয়ার আগে ম্যাসাচুসেটস ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজি (এমআইটি) থেকে স্নাতক করা ড. আফিয়া সিদ্দিকী পাঁচ বছর নিখোঁজ ছিলেন।

বলা হয়, গজনীতে জিজ্ঞাসাবাদের সময় তিনি অস্ত্র হাতিয়ে নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের সেনাদের গুলি করার চেষ্টা করেন। আল কায়েদার হয়ে কাজ করারও অভিযোগ আনা হয় তার বিরুদ্ধে।

চলতি মাসের শুরুর দিকে খবর বের হয়, অ্যাবোটাবাদে সিআইয়ের কাছে ওসামা বিন লাদেনের খোঁজ দেয়া ডা. শাকিল আফ্রিদির সঙ্গে ড. সিদ্দিকীকে অদলবদল করছে পাকিস্তান।

পরে ইসলামাবাদ সে অভিযোগ অস্বীকার করে। বুধবার কংগ্রেসের বৈঠকের আগে যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও ডা. আফ্রিদিকে কারাগারের বাইরে নিয়ে আসার প্রতিশ্রুতি দেন।

টেক্সাসে ড. আফিয়ার মৃত্যুর খবর উড়িয়ে দিলেন পাকিস্তানি কূটনীতিক

 যুগান্তর ডেস্ক 
২৫ মে ২০১৮, ০১:৫৩ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
আফিয়া
ছবি: এনডিটিভি

ড. আফিয়া সিদ্দিকীর মৃত্যুর খবর ভিত্তিহীন ও মিথ্যা বলে উড়িয়ে দিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের হাউসটনে পাকিস্তানের কনসাল জেনারেল আয়েশা ফারুকী। তিনি বলেন, বুধবার আমি আফিয়া সিদ্দিকীর সঙ্গে দেখা করেছি।

দেশটির কেন্দ্রীয় চিকিৎসাকেন্দ্র কারসওয়েলে আফিয়ার সঙ্গে তার দুই ঘণ্টা আলোচনা হয়েছে। টেক্সাসের ফোর্ট ওর্থের এই মেডিকেল সেন্টারে নিরাপত্তাসংক্রান্ত কয়েদিদের চিকিৎসা দেয়া হয়।-খবর ডন অনলাইনের।

আফগানিস্তানে যুক্তরাষ্ট্রের সেনাদের ওপর হামলার অভিযোগে ২০১০ সালের ২৩ সেপ্টেম্বর নিউইয়র্কের একটি আদালত স্নায়ুবিজ্ঞানী ড. সিদ্দিকীকে ৮৬ বছর কারাদণ্ড দেন।

বুধবার সন্ধ্যায় দেয়া এক বিবৃতিতে জানানো হয়, কনসাল জেনারেল আয়েশা ফারুকী কারসওয়েলে গিয়ে ড. আফিয়া সিদ্দিকীর সঙ্গে বৈঠক করেছেন। প্রায় দুই ঘণ্টাব্যাপী তাদের মধ্যে আলোচনা হয়েছে।

গত ১৪ মাসে ড. আফিয়া সিদ্দিকীর কারাকক্ষে মোট চারবার গিয়েছিলেন কনসাল জেনারেল।

এর আগে খবর ছড়িয়ে পড়ে যে ড. আফিয়া সিদ্দিকী মারা গেছেন।

ড. সিদ্দিকীর প্রতি সহানুভূতি সম্পন্ন লোকজন বলেন, তিনি পাকিস্তানে গ্রেফতার হয়েছিলেন। এরপর তাকে গোয়েন্দা বাহিনীর কাছে সমর্পণ করা হয়। গোয়েন্দারা তাকে যুক্তরাষ্ট্রের কারাগারে স্থানান্তর করে।

আফগানিস্তানে খোঁজ পাওয়ার আগে ম্যাসাচুসেটস ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজি (এমআইটি) থেকে স্নাতক করা ড. আফিয়া সিদ্দিকী পাঁচ বছর নিখোঁজ ছিলেন।

বলা হয়, গজনীতে জিজ্ঞাসাবাদের সময় তিনি অস্ত্র হাতিয়ে নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের সেনাদের গুলি করার চেষ্টা করেন। আল কায়েদার হয়ে কাজ করারও অভিযোগ আনা হয় তার বিরুদ্ধে।

চলতি মাসের শুরুর দিকে খবর বের হয়, অ্যাবোটাবাদে সিআইয়ের কাছে ওসামা বিন লাদেনের খোঁজ দেয়া ডা. শাকিল আফ্রিদির সঙ্গে ড. সিদ্দিকীকে অদলবদল করছে পাকিস্তান।

পরে ইসলামাবাদ সে অভিযোগ অস্বীকার করে। বুধবার কংগ্রেসের বৈঠকের আগে যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও ডা. আফ্রিদিকে কারাগারের বাইরে নিয়ে আসার প্রতিশ্রুতি দেন।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন