বসল ষষ্ঠ স্প্যান, দৃশ্যমান হলো পদ্মা সেতুর ৯০০ মিটার

  শরীয়তপুর প্রতিনিধি ২৩ জানুয়ারি ২০১৯, ১০:১৮ | অনলাইন সংস্করণ

হল পদ্মা সেতুর ৯০০ মিটার
পদ্মা সেতু। ছবি: যুগান্তর

দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের মানুষের স্বপনের পদ্মা সেতুর ষষ্ঠ স্প্যানটি ৩৬ ও ৩৭ নম্বর পিলারের ওপর বসানো হয়েছে। এতে জাজিরা প্রান্তে দৃশ্যমান হয় সেতুর ৯০০ মিটার। সংযুক্ত হয়েছে সেতুর দক্ষিণাংশ জাজিরা পাড়ের সঙ্গে।

বুধবার সকাল ৯টা ৫৫ মিনিটে ওই স্প্যানটি বসানোর মধ্য দিয়ে পদ্মা সেতুর কাজ আরও একধাপ এগিয়ে গেল।

শক্তিশালী ভাসমান ক্রেন তিয়ানি হাউ মাওয়ার মুন্সীগঞ্জের কুমারভোগের বিষেশায়িত জেটি থেকে মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ৮টায় স্পেনটি নিয়ে জাজিরার উদ্দেশ্যে রওনা দিয়ে সন্ধ্যায় জাজিরা পয়েন্টে পৌঁছে।

সেতু কর্তৃপক্ষের দাবি, ইতিমধ্যে সেতুর প্রায় ৭২ শতাংশ কাজ শেষ হয়েছে। চলতি বছরের মধ্যে পুরো স্পেন বসানোর কাজ শেষ করে পদ্মা সেতু দৃশ্যমান করে তোলা হবে।

২০১৭ সালের ২৯ সেপ্টেম্বর সেতুর ১ম স্পেন, ২০১৮ সালের ২৮ জানুয়ারি দ্বিতীয় স্পেন, ১০ মার্চ তৃতীয় স্পেন, ১৩ এপ্রিল ৪র্থ স্পেন ও ২৯ জুন ৫ম স্পেন বসানো হয়।

ষষ্ঠ নম্বর স্প্যানটি বসানোর সংবাদে পদ্মা পাড়ের মানুষের মধ্যে ব্যাপক আনন্দ-উৎসাহ ও উদ্দীপনা লক্ষ্য করা গেছে। জাজিরা প্রান্তে ৬টি স্প্যান বসানো হয়।

এ ছাড়া মাওয়া পয়েন্টের দিকে আরও একটি স্পেন ৪ ও ৫ নম্বর পিলারের ওপর বসানো হয়েছে গত বছর।

ওই স্প্যানটি তৈরি করা হয়েছে ৬ ও ৭ নম্বর পিলারে বসানোর জন্য। কিন্তু নকশা জটিলতা ও পিলার তৈরি না হওয়ায় এবং ওয়ার্কশপে জায়গা না থাকায় অস্থায়ীভাবে ৪ ও ৫ নম্বর পিলারে তুলে রাখা হয়। এখন নকশা জটিলতা কেটে যাওয়ায় ৬ ও ৭ নম্বর পিলার তৈরি হলে স্প্যানটি সেখানে সরিয়ে নেয়া হবে বলে জানিয়েছেন সেতু বিভাগের কর্মকর্তারা।

আগামী ২-৩ মাসের মধ্যে আরও তিনটি স্পেন বসানো হবে বলে জানিয়েছেন সেতু বিভাগের উপসহকারী প্রকৌশলী মো. হুমায়ুন কবীর। পদ্মা সেতুর কাজ শেষ হলে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের সঙ্গে দেশের যোগাযোগব্যবস্থার ব্যাপক উন্নতি হবে। দেশের অর্থনৈতিতে নতুন মাত্রা যোগ হবে। পদ্মা সেতুর দুই পাড়ে গড়ে উঠবে বিশ্বমানের শহর। কলকারখানায় ভরে উঠবে এ এলাকা। শ্রমজীবী মানুষের ব্যাপক কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হবে। সর্বক্ষেত্রে ব্যবসা-বাণিজ্যের ব্যাপক প্রসার ঘটবে বলে আশা করছেন পদ্মা পাড়ের মানুষ। পদ্মা পাড়ের মানুষ তাদের বাপ-দাদার ভিটেমাটি দিয়ে আজ শান্তি পাচ্ছে। দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ২১ জেলা প্রায় সাত কোটি মানুষের দীর্ঘদিনের স্বপ্ন পূরণ হতে যাচ্ছে এ সেতু নির্মাণের মধ্য দিয়ে। তাদের মনে এখন আর দুঃখ নেই। আনন্দে বুক ভরে গেছে পদ্মা পাড়ের মানুষের।

জাজিরা পূর্বনাওডোবা এলাকার চুন্ন মাদবর বলেন, স্বপ্নের পদ্মা সেতু নির্মাণ করতে আমাদের বাপ-দাদার জমি দিয়েছি। মনে করেছিলাম সেতু করার নামে আমাদের জমি নিয়ে গেল। পর পর ৬টি স্প্যান বসানো হয়েছে। এ সেতু এখন আর স্বপ্ন নয়; এটি বাস্তবে রূপ নিচ্ছে। এতে আমরা খুশি ও আনন্দিত। আমরা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ জানাই।

নাওডোবার মো. মোসলেম মাদবর বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশি-বিদেশি সব ষড়যন্ত্র উপেক্ষা করে নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতুর কাজ শুরু করেন। আজ পদ্মা সেতু স্বপ্ন নয়, বাস্তবে রূপ নিচ্ছে। আমরা তার দীর্ঘায়ু কামনা করছি।

সেতু বিভাগের উপসহকারী প্রকৌশলী মো. হুমায়ুন কবীর বলেন, বুধবার সকাল ৯টা ৫৫ মিনিটে পদ্মা সেতুর ষষ্ঠ স্প্যানটি বসানো হয়েছে। আগামী ২-৩ মাসের মধ্যে আরও তিনটি স্প্যান বসানো হবে বলে আশা করছি। ইতিমধ্যে সেতুর প্রায় ৭২ শতাংশ কাজ শেষ হয়েছে। চলতি বছরের মধ্যে সব কটি স্প্যান বসিয়ে সেতুটি দৃশ্যমান করে তুলব।

ঘটনাপ্রবাহ : পদ্মা সেতু নির্মাণ

আরও
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×