প্রত্যন্ত এলাকা থেকে গৃহহীনদের খুঁজে ঘর করে দেয়া হচ্ছে: প্রধানমন্ত্রী
jugantor
প্রত্যন্ত এলাকা থেকে গৃহহীনদের খুঁজে ঘর করে দেয়া হচ্ছে: প্রধানমন্ত্রী

  যুগান্তর রিপোর্ট  

২৩ জুলাই ২০২০, ১২:৫৪:০৪  |  অনলাইন সংস্করণ

প্রত্যন্ত এলাকা থেকে গৃহহীনদের খুঁজে ঘর করে দেয়া হচ্ছে: প্রধানমন্ত্রী

দেশের একটি মানুষও গৃহহীন থাকবে না বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

তিনি বলেছেন, জাতির পিতার স্বপ্ন ছিল– বাংলাদেশ হবে ক্ষুধামুক্ত, দারিদ্র্যমুক্ত। আমরা জাতির পিতার সেই স্বপ্ন পূরণে এগিয়ে যাচ্ছি। জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকীতে আমাদের লক্ষ্য¬– বাংলাদেশের একটি মানুষও গৃহহীন থাকবে না। প্রত্যেকটি মানুষকে যেভাবে পারি ঘর করে দেব। দেশের প্রত্যেকটি এলাকা থেকে গৃহহীন মানুষকে খুঁজে খুঁজে ঘর করে দেয়া হচ্ছে।

বৃহস্পতিবার বেলা ১১টায় কক্সবাজারের খুলশী উপজেলায় দেশের বৃহত্তম আশ্রয়ণ প্রকল্পের আওতায় নির্মিত ৬০০ গৃহহীন পরিবারের মাঝে ফ্ল্যাটের চাবি হস্তান্তর অনুষ্ঠানে গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সে যুক্ত হয়ে প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, কক্সবাজার আমাদের পর্যটক এলাকা। কক্সবাজারের সৈকতে বিশাল ঝাউবন, এটি জাতির পিতার নির্দেশেই করা হয়েছিল; যেন প্রাকৃতিক জলোচ্ছ্বাস থেকে কক্সবাজার শহরটা রক্ষা করা যায়। জাতির পিতার স্বপ্ন কক্সবাজার আরও সুন্দরভাবে গড়ে তুলতে চাই পর্যটন শহর হিসেবে।


তিনি বলেন, আমাদের সমুদ্রসৈকতটা সারাবিশ্বের মধ্যে সব থেকে দীর্ঘ সমুদ্রসৈকত। এত সুন্দর, এত দীর্ঘ এবং যেখানে বালু আছে– বালুময় সমুদ্রসৈকত পৃথিবীর আর কোনো দেশে নেই। এত চমৎকার একটা জিনিস সেটি দেশের মানুষ এবং বিশ্বব্যাপী সবাই যেন উপভোগ করতে পারেন, সে লক্ষ্য নিয়ে এ অঞ্চলের উন্নয়নের জন্য পদক্ষেপ নিই। বিমানবন্দরটাকে এমনভাবে উন্নত করতে চাই, যেখানে হয়তো সারাবিশ্ব থেকে অনেকে আসতে পারবে, যত বড় বিশাল বিমান হোক নামতে পারবে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বিমানবন্দর নির্মাণ করতে গিয়ে দেখলাম জলবায়ু পরিবর্তন, ঘূর্ণিঝড় ও জলোচ্ছ্বাসের কারণে অনেকে ঘরবাড়ি, ভিটামাটি হারিয়ে উদ্বাস্তু হয়ে আছেন। তাই সিদ্ধান্ত নিলাম তাদের পুনর্বাসন করব। সেই চিন্তা থেকেই এই প্রকল্প। এখানে নতুন শহরের মধ্যে মানুষ বসবাস করতে পারবে।

অনুষ্ঠানে শুভেচ্ছা বক্তব্য দেন সেনাবাহিনীপ্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদ। কক্সবাজার প্রান্তে প্রকল্প এলাকায় উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অংশ নেন স্থানীয় প্রশাসনসহ জনপ্রতিনিধিরা। উদ্বোধন শেষে কয়েকজন উপকারভোগীর হাতে ফ্ল্যাটের চাবি হস্তান্তর করা হয়। এর পর আশ্রয়ণ প্রকল্প এলাকায় তিনজন উপকারভোগী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পক্ষে তিনটি বৃক্ষরোপণ করেন।

প্রত্যন্ত এলাকা থেকে গৃহহীনদের খুঁজে ঘর করে দেয়া হচ্ছে: প্রধানমন্ত্রী

 যুগান্তর রিপোর্ট 
২৩ জুলাই ২০২০, ১২:৫৪ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
প্রত্যন্ত এলাকা থেকে গৃহহীনদের খুঁজে ঘর করে দেয়া হচ্ছে: প্রধানমন্ত্রী
ফাইল ছবি

দেশের একটি মানুষও গৃহহীন থাকবে না বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

তিনি বলেছেন, জাতির পিতার স্বপ্ন ছিল– বাংলাদেশ হবে ক্ষুধামুক্ত, দারিদ্র্যমুক্ত। আমরা জাতির পিতার সেই স্বপ্ন পূরণে এগিয়ে যাচ্ছি। জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকীতে আমাদের লক্ষ্য¬– বাংলাদেশের একটি মানুষও গৃহহীন থাকবে না। প্রত্যেকটি মানুষকে যেভাবে পারি ঘর করে দেব। দেশের প্রত্যেকটি এলাকা থেকে গৃহহীন মানুষকে খুঁজে খুঁজে ঘর করে দেয়া হচ্ছে। 

বৃহস্পতিবার বেলা ১১টায় কক্সবাজারের খুলশী উপজেলায় দেশের বৃহত্তম আশ্রয়ণ প্রকল্পের আওতায় নির্মিত ৬০০ গৃহহীন পরিবারের মাঝে ফ্ল্যাটের চাবি হস্তান্তর অনুষ্ঠানে গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সে যুক্ত হয়ে প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, কক্সবাজার আমাদের পর্যটক এলাকা। কক্সবাজারের সৈকতে বিশাল ঝাউবন, এটি জাতির পিতার নির্দেশেই করা হয়েছিল; যেন প্রাকৃতিক জলোচ্ছ্বাস থেকে কক্সবাজার শহরটা রক্ষা করা যায়। জাতির পিতার স্বপ্ন কক্সবাজার আরও সুন্দরভাবে গড়ে তুলতে চাই পর্যটন শহর হিসেবে। 


তিনি বলেন, আমাদের সমুদ্রসৈকতটা সারাবিশ্বের মধ্যে সব থেকে দীর্ঘ সমুদ্রসৈকত। এত সুন্দর, এত দীর্ঘ এবং যেখানে বালু আছে– বালুময় সমুদ্রসৈকত পৃথিবীর আর কোনো দেশে নেই। এত চমৎকার একটা জিনিস সেটি দেশের মানুষ এবং বিশ্বব্যাপী সবাই যেন উপভোগ করতে পারেন, সে লক্ষ্য নিয়ে এ অঞ্চলের উন্নয়নের জন্য পদক্ষেপ নিই। বিমানবন্দরটাকে এমনভাবে উন্নত করতে চাই, যেখানে হয়তো সারাবিশ্ব থেকে অনেকে আসতে পারবে, যত বড় বিশাল বিমান হোক নামতে পারবে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বিমানবন্দর নির্মাণ করতে গিয়ে দেখলাম জলবায়ু পরিবর্তন, ঘূর্ণিঝড় ও জলোচ্ছ্বাসের কারণে অনেকে ঘরবাড়ি, ভিটামাটি হারিয়ে উদ্বাস্তু হয়ে আছেন। তাই সিদ্ধান্ত নিলাম তাদের পুনর্বাসন করব। সেই চিন্তা থেকেই এই প্রকল্প। এখানে নতুন শহরের মধ্যে মানুষ বসবাস করতে পারবে।

অনুষ্ঠানে শুভেচ্ছা বক্তব্য দেন সেনাবাহিনীপ্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদ। কক্সবাজার প্রান্তে প্রকল্প এলাকায় উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অংশ নেন স্থানীয় প্রশাসনসহ জনপ্রতিনিধিরা। উদ্বোধন শেষে কয়েকজন উপকারভোগীর হাতে ফ্ল্যাটের চাবি হস্তান্তর করা হয়। এর পর আশ্রয়ণ প্রকল্প এলাকায় তিনজন উপকারভোগী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পক্ষে তিনটি বৃক্ষরোপণ করেন।