'ইলিয়াস আলী গুম হওয়ার আগের রাতে এক নেতার সঙ্গে চরম বাকবিতন্ডা হয়'
jugantor
'ইলিয়াস আলী গুম হওয়ার আগের রাতে এক নেতার সঙ্গে চরম বাকবিতন্ডা হয়'

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

১৮ এপ্রিল ২০২১, ১০:৪৫:৫৬  |  অনলাইন সংস্করণ

বিএনপির সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক ইলিয়াস আলী গুম হওয়ার আগের রাতে এক নেতার সঙ্গে তার চরম বাকবিতন্ডা হয়। ইলিয়াস গুম হওয়ার ৯ বছর পর এক আলোচনা সভায় এমন বিস্ফোরক তথ্য দিয়েছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির প্রভাবশালী সদস্য মির্জা আব্বাস।

তিনি বলেন, ইলিয়াস গুম হওয়ার আগের রাতে দলীয় অফিসে কোনো এক ব্যক্তির সঙ্গে তার বাকবিতন্ডা হয় মারাত্মক রকমের।

শনিবার এক আলোচনা সভায় মির্জা আব্বাস এর সঙ্গে আওয়ামী লীগ বা সরকার জড়িত নয় বলে মন্তব্য করেন। ‘গুমের’ পেছনে নিজ দলের কারো সংশ্লিষ্টতার ইঙ্গিত দেন।

সিলেট বিভাগ জাতীয়তাবাদী সংহতি সম্মিলনীর উদ্যোগে এক ভার্চুয়াল আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

কারো নাম উল্লেখ না করে মির্জা আব্বাস বলেন, ইলিয়াস গুম হওয়ার আগের রাতে দলীয় অফিসে কোনো এক ব্যক্তির সঙ্গে তার বাকবিতন্ডা হয় মারাত্মক রকমের। ইলিয়াস তাদের খুব গালিগালাজ করেছিল। সেই যে পেছন থেকে দংশন করা সাপগুলো আমাদের দলে এখনও রয়ে গেছে।

ভার্চুয়াল সভায় উপস্থিত দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুলকে উদ্দেশ্যে করে তিনি আরও বলেন, যদি এদেরকে দল থেকে বিতাড়িত না করেন, তাহলে কোনো পরিস্থিতিতেই দল সামনে এগুতে পারবেন না।

মির্জা আব্বাস বলেন, বাংলাদেশের স্বাধীন-সার্বভৌমত্ব যে ভুলন্ঠিত হতে যাচ্ছে এটার জ্বলন্ত প্রমাণ হলো ইলিয়াস আলীর গুম। আমি জানি, বাংলাদেশ সরকার বা আওয়ামী লীগ সরকার ইলিয়াসকে গুম করে নাই। কিন্তু গুমটা করলো কে? এই সরকারের কাছে আমি এটা জানতে চাই।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির এই সদস্য আরও বলেন, একজন জলজ্যান্ত তরতাজা রাজনৈতিক নেতা গুম হয়ে গেলেন দেশের অভ্যন্তর থেকে, আমাদের একজন নেতা সালাহউদ্দিন আহমেদকে দেশ থেকে পাচার করে নিয়ে গেল, আমাদের চৌধুরী আলমকে গুম করে দেওয়া হলো, আমাদের কত ছেলেকে গুম করে দেয়া হলো-আমি বুঝলাম এই সরকার করে না। করলো কারা? আমি বলতে চাই, যারা করেছে তারা এদেশের স্বাধীনতা চায় না, তারা এদেশটাকে স্বাধীনতা সার্বভৌমত্ব থাকতে দেবে না।“

প্রসঙ্গত, ২০১২ সালের ১৭ এপ্রিল রাজধানীর বনানী থেকে গাড়িচালক আনসার আলীসহ নিখোঁজ হন ইলিয়াস আলী। বিএনপির অভিযোগ তাকে সরকারই ‘গুম’করেছে। তবে সরকার বরাবরই এই অভিযোগ অস্বীকার করে আসছে।

'ইলিয়াস আলী গুম হওয়ার আগের রাতে এক নেতার সঙ্গে চরম বাকবিতন্ডা হয়'

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
১৮ এপ্রিল ২০২১, ১০:৪৫ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

বিএনপির সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক ইলিয়াস আলী গুম হওয়ার আগের রাতে এক নেতার সঙ্গে তার চরম বাকবিতন্ডা হয়। ইলিয়াস গুম হওয়ার ৯ বছর পর এক আলোচনা সভায় এমন বিস্ফোরক তথ্য দিয়েছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির প্রভাবশালী সদস্য মির্জা আব্বাস। 

তিনি বলেন, ইলিয়াস গুম হওয়ার আগের রাতে দলীয় অফিসে কোনো এক ব্যক্তির সঙ্গে তার বাকবিতন্ডা হয় মারাত্মক রকমের।

শনিবার এক আলোচনা সভায় মির্জা আব্বাস এর সঙ্গে আওয়ামী লীগ বা সরকার জড়িত নয় বলে মন্তব্য করেন। ‘গুমের’ পেছনে নিজ দলের কারো সংশ্লিষ্টতার ইঙ্গিত দেন।

সিলেট বিভাগ জাতীয়তাবাদী সংহতি সম্মিলনীর উদ্যোগে এক ভার্চুয়াল আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

কারো নাম উল্লেখ না করে মির্জা আব্বাস বলেন, ইলিয়াস গুম হওয়ার আগের রাতে দলীয় অফিসে কোনো এক ব্যক্তির সঙ্গে তার বাকবিতন্ডা হয় মারাত্মক রকমের। ইলিয়াস তাদের খুব গালিগালাজ করেছিল। সেই যে পেছন থেকে দংশন করা সাপগুলো আমাদের দলে এখনও রয়ে গেছে।

ভার্চুয়াল সভায় উপস্থিত দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুলকে উদ্দেশ্যে করে তিনি আরও বলেন, যদি এদেরকে দল থেকে বিতাড়িত না করেন, তাহলে কোনো পরিস্থিতিতেই দল সামনে এগুতে পারবেন না।

মির্জা আব্বাস বলেন, বাংলাদেশের স্বাধীন-সার্বভৌমত্ব যে ভুলন্ঠিত হতে যাচ্ছে এটার জ্বলন্ত প্রমাণ হলো ইলিয়াস আলীর গুম। আমি জানি, বাংলাদেশ সরকার বা আওয়ামী লীগ সরকার ইলিয়াসকে গুম করে নাই। কিন্তু গুমটা করলো কে? এই সরকারের কাছে আমি এটা জানতে চাই।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির এই সদস্য আরও বলেন, একজন জলজ্যান্ত তরতাজা রাজনৈতিক নেতা গুম হয়ে গেলেন দেশের অভ্যন্তর থেকে, আমাদের একজন নেতা সালাহউদ্দিন আহমেদকে দেশ থেকে পাচার করে নিয়ে গেল, আমাদের চৌধুরী আলমকে গুম করে দেওয়া হলো, আমাদের কত ছেলেকে গুম করে দেয়া হলো-আমি বুঝলাম এই সরকার করে না। করলো কারা? আমি বলতে চাই, যারা করেছে তারা এদেশের স্বাধীনতা চায় না, তারা এদেশটাকে স্বাধীনতা সার্বভৌমত্ব থাকতে দেবে না।“

প্রসঙ্গত, ২০১২ সালের ১৭ এপ্রিল রাজধানীর বনানী থেকে গাড়িচালক আনসার আলীসহ নিখোঁজ হন ইলিয়াস আলী। বিএনপির অভিযোগ তাকে সরকারই ‘গুম’করেছে। তবে সরকার বরাবরই এই অভিযোগ অস্বীকার করে আসছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন