ঝিনাইগাতীতে একযুগ শিকলবন্দি আল্পনা
jugantor
ঝিনাইগাতীতে একযুগ শিকলবন্দি আল্পনা

  শেরপুর প্রতিনিধি  

২৩ এপ্রিল ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

পরিবারের চিকিৎসার সামর্থ্য না থাকায় ঝিনাইগাতীর গুরুচরণ দুধনই গ্রামের মানসিক প্রতিবন্ধী আল্পনা আক্তার (২০) প্রায় একযুগ ধরে শিকলবন্দি অবস্থায় রয়েছেন। তিনি ওই গ্রামের হতদরিদ্র ছিদ্দিক আলীর মেয়ে। জানা যায়, ছয় ভাই-বোনের মধ্যে আল্পনা তৃতীয়। ২০০১ সালে আল্পনার জন্ম হয়। ২০০৮ সালে তৃতীয় শ্রেণিতে পড়া অবস্থায় ঢাকায় বোনের বাসায় বেড়াতে গিয়ে জ্বর হয় তার। এরপর থেকেই মানসিক সমস্যা দেখা দেয়। এরপর দরিদ্র বাবা-মা তাকে নানা স্থানে চিকিৎসা করালেও কোনো ফল মেলেনি। বরং বাড়তেই থাকে অসুখ। কোনো কূলকিনারা না পেয়ে ২০০৯ সাল থেকে আল্পনাকে শিকলে বন্দি করে রাখে তার পরিবার। আল্পনার বাবা ছিদ্দিক আলীও শারীরিকভাবে অসুস্থ। তাদের থাকার একটি ঘর পর্যন্ত ছিল না। সম্প্রতি প্রধানমন্ত্রীর উপহার দুর্যোগসহনীয় একটি ঘর পেয়েছেন ছিদ্দিক আলী। ওই ঘরের একটি কক্ষেই শিকলে বন্দি হয়ে রয়েছে আল্পনা। বাবা ছিদ্দিক আলী অসুস্থ থাকায় মা আছিয়া অন্যের বাড়িতে চেয়েচিন্তে অনেক কষ্টে সংসার চালাচ্ছেন। আল্পনার বাবা সিদ্দিক আলী বলেন, ‘আমি আমার মেয়েডারে চিকিৎসা করাইতে অনেক টেহা খরচ করছি। এখন আর হাতে টেহা নাই। আমার ইচ্ছা থাকার পরও টেহার অভাবে মেয়েকে ভালো কোনো ডাক্তার দেহাইতে পারতেছি না।’

ঝিনাইগাতীতে একযুগ শিকলবন্দি আল্পনা

 শেরপুর প্রতিনিধি 
২৩ এপ্রিল ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

পরিবারের চিকিৎসার সামর্থ্য না থাকায় ঝিনাইগাতীর গুরুচরণ দুধনই গ্রামের মানসিক প্রতিবন্ধী আল্পনা আক্তার (২০) প্রায় একযুগ ধরে শিকলবন্দি অবস্থায় রয়েছেন। তিনি ওই গ্রামের হতদরিদ্র ছিদ্দিক আলীর মেয়ে। জানা যায়, ছয় ভাই-বোনের মধ্যে আল্পনা তৃতীয়। ২০০১ সালে আল্পনার জন্ম হয়। ২০০৮ সালে তৃতীয় শ্রেণিতে পড়া অবস্থায় ঢাকায় বোনের বাসায় বেড়াতে গিয়ে জ্বর হয় তার। এরপর থেকেই মানসিক সমস্যা দেখা দেয়। এরপর দরিদ্র বাবা-মা তাকে নানা স্থানে চিকিৎসা করালেও কোনো ফল মেলেনি। বরং বাড়তেই থাকে অসুখ। কোনো কূলকিনারা না পেয়ে ২০০৯ সাল থেকে আল্পনাকে শিকলে বন্দি করে রাখে তার পরিবার। আল্পনার বাবা ছিদ্দিক আলীও শারীরিকভাবে অসুস্থ। তাদের থাকার একটি ঘর পর্যন্ত ছিল না। সম্প্রতি প্রধানমন্ত্রীর উপহার দুর্যোগসহনীয় একটি ঘর পেয়েছেন ছিদ্দিক আলী। ওই ঘরের একটি কক্ষেই শিকলে বন্দি হয়ে রয়েছে আল্পনা। বাবা ছিদ্দিক আলী অসুস্থ থাকায় মা আছিয়া অন্যের বাড়িতে চেয়েচিন্তে অনেক কষ্টে সংসার চালাচ্ছেন। আল্পনার বাবা সিদ্দিক আলী বলেন, ‘আমি আমার মেয়েডারে চিকিৎসা করাইতে অনেক টেহা খরচ করছি। এখন আর হাতে টেহা নাই। আমার ইচ্ছা থাকার পরও টেহার অভাবে মেয়েকে ভালো কোনো ডাক্তার দেহাইতে পারতেছি না।’

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন