২ হাজার ৭৪১ নারী পুরুষ সংসার নিয়ে বিপাকে
jugantor
ভালুকায় ৪০ দিনের কর্মসূচি বন্ধ
২ হাজার ৭৪১ নারী পুরুষ সংসার নিয়ে বিপাকে

  ভালুকা (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি  

২৩ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

ময়মনসিংহের ভালুকায় অতি দরিদ্রের জন্য ৪০ দিনের কর্মসংস্থান কর্মসূচি প্রকল্পের কাজ বন্ধ থাকায় থমকে পড়েছে গ্রামীণ অবকাঠামোর উন্নয়ন। দেশের অন্যান্য স্থানে কর্মসূচিটি চালু থাকলেও এ উপজেলায় প্রকল্পটি বন্ধ হয়ে যায়। এতে দুই হাজার ৭৪১ জন নারী-পুরুষ কর্মহীন হয়ে আর্থিক সঙ্কটে পড়েছেন।

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিস সূত্রে জানা যায়, বিগত বছরগুলোতে সারাদেশের মতো ভালুকার ১১টি ইউনিয়নে ৪০ দিনের কর্মসূচি প্রকল্প চালু ছিল। এতে ২ হাজার, ৭৪১ জন সুবিধাভোগী নারী-পুরুষ প্রতিদিন ২০০ টাকা মজুরিতে নিজেদের ব্যাংক অ্যাকাউন্ট থেকে ৬ দিনের টাকা সপ্তাহের শেষ দিন উত্তোলন করে নিজেদের সংসার চালাতেন। কিন্তু রহস্যজনক কারণে হঠাৎ প্রকল্পটি বন্ধ হয়ে যাওয়ায় একদিকে যেমন গ্রামীণ কাঁচা রাস্তা সংস্কারের কাজ বন্ধ হয়ে গেছে, তেমনি হতদরিদ্র সুবিধাভোগীরা চরম অর্থ সঙ্কটে পড়ে ঊর্ধ্বমুখী দ্রব্যমূল্যের বাজারে সংসার চালাতে হিমশিম খাচ্ছেন।

একটি সূত্র জানায়, যেসব উপজেলায় দরিদ্র্য সীমার হার ২০ শতাংশের নিচে, সেসব উপজেলায় ৪০ দিনের প্রকল্পটি বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। কিন্তু ভালুকায় এই হার ২০ এর উপরে থাকার পরও কেন প্রকল্পের কাজ বন্ধ রয়েছে। বিভিন্ন এলাকার সুবিধাভোগীরা জানান, প্রতি বছর তারা ২০০ টাকা মজুরিতে আড়াই মাস প্রকল্পের আওতায় রাস্তার কাজ করেন। এ কাজের দ্বারা অর্জিত টাকায় তারা এ সময়টায় সংসার চালাতো। তারা ৪০ দিনের কর্মসূচি পুনরায় চালু করার জোর দাবি জানান।

উপজেলার রাজৈ ইউপি চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম বাদশা জানান, ভালুকায় পরিসংখ্যানে দরিদ্রতার হার ২০ শতাংশের নিচে দেখানো হয়েছে যা সঠিক নয়। এ ব্যাপারে সব ইউপি চেয়ারম্যান এক হয়ে পুনরায় কর্মসূচি চালু করার জন্য রেজুলেশন করে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদফতরে পাঠানো হয়েছে।

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা আবুল কালাম আজাদ জানান, ভালুকায় প্রায় ২৭ হাজার নারী-পুরুষ গ্রামীণ উন্নয়ন কাজে সুবিধাভোগী হিসেবে জড়িত ছিলেন। গত ২০২০-২১ অর্থবছরে দুই ধাপে ৪ কোটি ৩৮ লাখ টাকা বরাদ্দ এলেও দ্বিতীয় ধাপের বরাদ্দকৃত টাকা থেকে ১ কোটি, লাখ ৭৮ লাখ, ৪৭ হাজার টাকা ফেরত দেয়া হয়।

ভালুকায় ৪০ দিনের কর্মসূচি বন্ধ

২ হাজার ৭৪১ নারী পুরুষ সংসার নিয়ে বিপাকে

 ভালুকা (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি 
২৩ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

ময়মনসিংহের ভালুকায় অতি দরিদ্রের জন্য ৪০ দিনের কর্মসংস্থান কর্মসূচি প্রকল্পের কাজ বন্ধ থাকায় থমকে পড়েছে গ্রামীণ অবকাঠামোর উন্নয়ন। দেশের অন্যান্য স্থানে কর্মসূচিটি চালু থাকলেও এ উপজেলায় প্রকল্পটি বন্ধ হয়ে যায়। এতে দুই হাজার ৭৪১ জন নারী-পুরুষ কর্মহীন হয়ে আর্থিক সঙ্কটে পড়েছেন।

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিস সূত্রে জানা যায়, বিগত বছরগুলোতে সারাদেশের মতো ভালুকার ১১টি ইউনিয়নে ৪০ দিনের কর্মসূচি প্রকল্প চালু ছিল। এতে ২ হাজার, ৭৪১ জন সুবিধাভোগী নারী-পুরুষ প্রতিদিন ২০০ টাকা মজুরিতে নিজেদের ব্যাংক অ্যাকাউন্ট থেকে ৬ দিনের টাকা সপ্তাহের শেষ দিন উত্তোলন করে নিজেদের সংসার চালাতেন। কিন্তু রহস্যজনক কারণে হঠাৎ প্রকল্পটি বন্ধ হয়ে যাওয়ায় একদিকে যেমন গ্রামীণ কাঁচা রাস্তা সংস্কারের কাজ বন্ধ হয়ে গেছে, তেমনি হতদরিদ্র সুবিধাভোগীরা চরম অর্থ সঙ্কটে পড়ে ঊর্ধ্বমুখী দ্রব্যমূল্যের বাজারে সংসার চালাতে হিমশিম খাচ্ছেন।

একটি সূত্র জানায়, যেসব উপজেলায় দরিদ্র্য সীমার হার ২০ শতাংশের নিচে, সেসব উপজেলায় ৪০ দিনের প্রকল্পটি বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। কিন্তু ভালুকায় এই হার ২০ এর উপরে থাকার পরও কেন প্রকল্পের কাজ বন্ধ রয়েছে। বিভিন্ন এলাকার সুবিধাভোগীরা জানান, প্রতি বছর তারা ২০০ টাকা মজুরিতে আড়াই মাস প্রকল্পের আওতায় রাস্তার কাজ করেন। এ কাজের দ্বারা অর্জিত টাকায় তারা এ সময়টায় সংসার চালাতো। তারা ৪০ দিনের কর্মসূচি পুনরায় চালু করার জোর দাবি জানান।

উপজেলার রাজৈ ইউপি চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম বাদশা জানান, ভালুকায় পরিসংখ্যানে দরিদ্রতার হার ২০ শতাংশের নিচে দেখানো হয়েছে যা সঠিক নয়। এ ব্যাপারে সব ইউপি চেয়ারম্যান এক হয়ে পুনরায় কর্মসূচি চালু করার জন্য রেজুলেশন করে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদফতরে পাঠানো হয়েছে।

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা আবুল কালাম আজাদ জানান, ভালুকায় প্রায় ২৭ হাজার নারী-পুরুষ গ্রামীণ উন্নয়ন কাজে সুবিধাভোগী হিসেবে জড়িত ছিলেন। গত ২০২০-২১ অর্থবছরে দুই ধাপে ৪ কোটি ৩৮ লাখ টাকা বরাদ্দ এলেও দ্বিতীয় ধাপের বরাদ্দকৃত টাকা থেকে ১ কোটি, লাখ ৭৮ লাখ, ৪৭ হাজার টাকা ফেরত দেয়া হয়।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন