সিনিয়র সচিব হলেন আনিছুর রহমান
jugantor
সিনিয়র সচিব হলেন আনিছুর রহমান

  যুগান্তর রিপোর্ট  

২৮ জানুয়ারি ২০২০, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

সিনিয়র সচিব হলেন জ্বালানি ও খনিজসম্পদ বিভাগের সচিব মো. আনিছুর রহমান। সোমবার জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের এক প্রজ্ঞাপনে তাকে এ বিশেষ মর্যাদায় ভূষিত করা হয়।

প্রশাসন ক্যাডারের ১৯৮৫ ব্যাচের এই কর্মকর্তা প্রশাসনে একজন পেশাদার ও সদালাপী কর্মকর্তা হিসেবে সুপরিচিত। কর্মজীবনে নানা চড়াই-উতরাই মোকাবেলা করেও তিনি নিজের মৌলিক অবস্থান থেকে কখনও বিচ্যুত হননি। বিগত বিএনপি সরকারের সময় তৎকালীন মৎস্য ও পশুসম্পদ মন্ত্রণালয়ে নিয়োগ দুর্নীতির বিরুদ্ধে তিনি অনেকটা প্রকাশ্যে সোচ্চার ছিলেন। সে সময় একটি বড় ধরনের নিয়োগের ক্ষেত্রে মুক্তিযোদ্ধা কোটা যথাযথভাবে অনুসরণ না করায় তিনি মন্ত্রণালয়ের উচ্চপর্যায়ে প্রতিবাদও করেন। এ জন্য তাকে নানাভাবে হেনস্তা হতে হয়। কিন্তু কোথাও আপস করেননি। তিনি এখন পর্যন্ত যেসব স্থানে দায়িত্ব পালন করেছেন সেখানে এ ধরনের নীতি-নৈতিকতা অনুসরণ করেছেন। দ্রুত ফাইল নিষ্পত্তি করা ছাড়াও তিনি সেবাপ্রার্থী সাধারণ মানুষকে সব সময় হয়রানিমুক্তভাবে সেবা দেয়ার চেষ্টা করেন। এ ছাড়া যে ফাইল যে পর্যায়ে নিষ্পত্তি হওয়ার কথা সেই ধাপে নিষ্পত্তি করার ব্যাপারে অটল থাকেন। এ রকম নানা কারণে তিনি প্রশাসনে একজন সৎ ও দক্ষ কর্মকর্তা হিসেবে সুনাম অর্জন করেছেন। তার মতো প্রশাসনে এ রকম আরও বেশ কয়েকজন কর্মকর্তা বর্তমানে কর্মরত।

সরকারি দায়িত্ব পালনের উদ্দেশ্যে সিনিয়র সচিব আনিছুর রহমান যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, জাপান, জার্মানি, চীন, কোরিয়া, ফ্রান্স, মালয়েশিয়া, সিঙ্গাপুর, ভারত ও নেপালসহ বহু দেশ সফর করেন। তার সহধর্মিণী সালমা সুলতানা রূপালী এবং তাদের রয়েছে এক কন্যা ও এক পুত্রসন্তান।

প্রশাসনে রদবদল : নৌ মন্ত্রণালয়, স্থানীয় সরকার বিভাগ এবং জ্বালানি ও খনিজসম্পদ বিভাগের সচিবদের সিনিয়র সচিব পদে নিয়োগ দিয়েছে সরকার। স্থানীয় সরকার বিভাগের সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ, নৌ সচিব মো. আবদুস সামাদ এবং জ্বালানি ও খনিজসম্পদ বিভাগের সচিব মো. আনিছুর রহমানকে সিনিয়র সচিব করে আগের দফতরেই পদায়ন করে সোমবার আদেশ জারি করেছে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়। এই তিন কর্মকর্তাকে নিয়ে জনপ্রশাসনে বর্তমানে সিনিয়র সচিবের সংখ্যা দাঁড়াল ১৩ জন। সিনিয়র সচিবদের পদমর্যাদা মন্ত্রিপরিষদ সচিব ও সচিবদের মাঝামাঝি। ২০১২ সালের ৯ জানুয়ারি আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন মহাজোট সরকার প্রশাসনে প্রথমবারের মতো সিনিয়র সচিব নামে পদ চালু করে।

জনপ্রশাসনের আরেক আদেশে ভূমি সংস্কার বোর্ডের চেয়ারম্যান উম্মুল হাসনাকে ভূমি আপিল বোর্ডের চেয়ারম্যান নিয়োগ দেয়া হয়েছে। অপর আদেশে পার্বত্য চট্টগ্রামবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব সুদত্ত চাকমাকে পদোন্নতি দিয়ে সচিব করেছে সরকার। একইভাবে চট্টগ্রামের বিভাগীয় কমিশনার মো. আবদুল মান্নানকে সচিব পদে পদোন্নতি দিয়ে ভূমি সংস্কার বোর্ডের চেয়ারম্যান নিয়োগ দিয়েছে সরকার। তাদের জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের বিশেষ ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওএসডি) করা হয়েছে। অপর এক আদেশে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের অতিরিক্ত সচিব এবিএম আজাদকে চট্টগ্রামের বিভাগীয় কমিশনার নিয়োগ দেয়া হয়েছে।

সিনিয়র সচিব হলেন আনিছুর রহমান

 যুগান্তর রিপোর্ট 
২৮ জানুয়ারি ২০২০, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

সিনিয়র সচিব হলেন জ্বালানি ও খনিজসম্পদ বিভাগের সচিব মো. আনিছুর রহমান। সোমবার জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের এক প্রজ্ঞাপনে তাকে এ বিশেষ মর্যাদায় ভূষিত করা হয়।

প্রশাসন ক্যাডারের ১৯৮৫ ব্যাচের এই কর্মকর্তা প্রশাসনে একজন পেশাদার ও সদালাপী কর্মকর্তা হিসেবে সুপরিচিত। কর্মজীবনে নানা চড়াই-উতরাই মোকাবেলা করেও তিনি নিজের মৌলিক অবস্থান থেকে কখনও বিচ্যুত হননি। বিগত বিএনপি সরকারের সময় তৎকালীন মৎস্য ও পশুসম্পদ মন্ত্রণালয়ে নিয়োগ দুর্নীতির বিরুদ্ধে তিনি অনেকটা প্রকাশ্যে সোচ্চার ছিলেন। সে সময় একটি বড় ধরনের নিয়োগের ক্ষেত্রে মুক্তিযোদ্ধা কোটা যথাযথভাবে অনুসরণ না করায় তিনি মন্ত্রণালয়ের উচ্চপর্যায়ে প্রতিবাদও করেন। এ জন্য তাকে নানাভাবে হেনস্তা হতে হয়। কিন্তু কোথাও আপস করেননি। তিনি এখন পর্যন্ত যেসব স্থানে দায়িত্ব পালন করেছেন সেখানে এ ধরনের নীতি-নৈতিকতা অনুসরণ করেছেন। দ্রুত ফাইল নিষ্পত্তি করা ছাড়াও তিনি সেবাপ্রার্থী সাধারণ মানুষকে সব সময় হয়রানিমুক্তভাবে সেবা দেয়ার চেষ্টা করেন। এ ছাড়া যে ফাইল যে পর্যায়ে নিষ্পত্তি হওয়ার কথা সেই ধাপে নিষ্পত্তি করার ব্যাপারে অটল থাকেন। এ রকম নানা কারণে তিনি প্রশাসনে একজন সৎ ও দক্ষ কর্মকর্তা হিসেবে সুনাম অর্জন করেছেন। তার মতো প্রশাসনে এ রকম আরও বেশ কয়েকজন কর্মকর্তা বর্তমানে কর্মরত।

সরকারি দায়িত্ব পালনের উদ্দেশ্যে সিনিয়র সচিব আনিছুর রহমান যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, জাপান, জার্মানি, চীন, কোরিয়া, ফ্রান্স, মালয়েশিয়া, সিঙ্গাপুর, ভারত ও নেপালসহ বহু দেশ সফর করেন। তার সহধর্মিণী সালমা সুলতানা রূপালী এবং তাদের রয়েছে এক কন্যা ও এক পুত্রসন্তান।

প্রশাসনে রদবদল : নৌ মন্ত্রণালয়, স্থানীয় সরকার বিভাগ এবং জ্বালানি ও খনিজসম্পদ বিভাগের সচিবদের সিনিয়র সচিব পদে নিয়োগ দিয়েছে সরকার। স্থানীয় সরকার বিভাগের সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ, নৌ সচিব মো. আবদুস সামাদ এবং জ্বালানি ও খনিজসম্পদ বিভাগের সচিব মো. আনিছুর রহমানকে সিনিয়র সচিব করে আগের দফতরেই পদায়ন করে সোমবার আদেশ জারি করেছে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়। এই তিন কর্মকর্তাকে নিয়ে জনপ্রশাসনে বর্তমানে সিনিয়র সচিবের সংখ্যা দাঁড়াল ১৩ জন। সিনিয়র সচিবদের পদমর্যাদা মন্ত্রিপরিষদ সচিব ও সচিবদের মাঝামাঝি। ২০১২ সালের ৯ জানুয়ারি আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন মহাজোট সরকার প্রশাসনে প্রথমবারের মতো সিনিয়র সচিব নামে পদ চালু করে।

জনপ্রশাসনের আরেক আদেশে ভূমি সংস্কার বোর্ডের চেয়ারম্যান উম্মুল হাসনাকে ভূমি আপিল বোর্ডের চেয়ারম্যান নিয়োগ দেয়া হয়েছে। অপর আদেশে পার্বত্য চট্টগ্রামবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব সুদত্ত চাকমাকে পদোন্নতি দিয়ে সচিব করেছে সরকার। একইভাবে চট্টগ্রামের বিভাগীয় কমিশনার মো. আবদুল মান্নানকে সচিব পদে পদোন্নতি দিয়ে ভূমি সংস্কার বোর্ডের চেয়ারম্যান নিয়োগ দিয়েছে সরকার। তাদের জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের বিশেষ ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওএসডি) করা হয়েছে। অপর এক আদেশে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের অতিরিক্ত সচিব এবিএম আজাদকে চট্টগ্রামের বিভাগীয় কমিশনার নিয়োগ দেয়া হয়েছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন