বরগুনা-১: আ’লীগের মনোনয়নপ্রত্যাশী দেলোয়ারের গণসংযোগ
jugantor
বরগুনা-১: আ’লীগের মনোনয়নপ্রত্যাশী দেলোয়ারের গণসংযোগ

  আমতলী প্রতিনিধি  

১২ অক্টোবর ২০১৮, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

বরগুনা-১ (সদর-আমতলী-তালতলী) আসনে মনোনয়ন প্রত্যাশী সাবেক এমপি জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মো. দেলোয়ার হোসেন এলাকায় গণসংযোগ, সভা-সমাবেশ চালিয়ে যাচ্ছেন।

ছাত্রাবস্থায় ১৯৬৯ সালে বঙ্গবন্ধুর ডাকে সাড়া দিয়ে গণঅভ্যুত্থানে অংশগ্রহণ করেন। ১৯৭৭-১৯৮১ সাল পর্যন্ত বরগুনা জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ছিলেন। ২৭ বছর বয়সে ১৯৮৩ সালে জনগণের রায়ে নির্বাচিত হন ইউনিয়ন চেয়ারম্যান।

১৯৮৭ সালে চেয়ারম্যান থাকাবস্থায় সন্ত্রাস দমনে সফল চেয়ারম্যান হিসেবে সরকার তাকে রাষ্ট্রীয় পুরস্কার প্রদান করেন। ১৯৯০ সালে ইউপি চেয়ারম্যানের পদ থেকে পদত্যাগ করে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে অংশগ্রহণ করে বিপুল ভোটে দক্ষিণাঞ্চলের একমাত্র আওয়ামী লীগ দলীয় উপজেলা চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। ২০০১ সালে স্বতন্ত্রপ্রার্থী হিসেবে এমপি নির্বাচিত হন। পরে দলে ফিরে সে সময়ে দেশের ৪৬ জন আওয়ামী এমপির একজন হন তিনি।

দেলোয়ার হোসেন জানিয়েছেন, ‘জনগণ আমাকে অনেক আসনে বসার সুযোগ করে দিয়েছে। অর্পিত দায়িত্বে অবহেলা করিনি কখনও। চাপ সয়েছি। মানবেতর জীবন পার করেছি। ২০১৯ সালে মনোনয়ন পেলে বরগুনার মানুষের জন্যই শুধু কাজ করব। নিজের চাওয়া-পাওয়ার কিছুই নেই। আমি চাই

বরগুনার মানুষকে তাদের অধিকার ফিরিয়ে দিতে। আমি বিশ্বাস করি শেখ হাসিনা আমাদের যোগ্য অভিভাবক, তার নির্দেশ মেনে নিলেই দেশ ও দশের সবারই মঙ্গল। তাতেই বাস্তবায়ন হবে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন।’

বরগুনা-১: আ’লীগের মনোনয়নপ্রত্যাশী দেলোয়ারের গণসংযোগ

 আমতলী প্রতিনিধি 
১২ অক্টোবর ২০১৮, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

বরগুনা-১ (সদর-আমতলী-তালতলী) আসনে মনোনয়ন প্রত্যাশী সাবেক এমপি জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মো. দেলোয়ার হোসেন এলাকায় গণসংযোগ, সভা-সমাবেশ চালিয়ে যাচ্ছেন।

ছাত্রাবস্থায় ১৯৬৯ সালে বঙ্গবন্ধুর ডাকে সাড়া দিয়ে গণঅভ্যুত্থানে অংশগ্রহণ করেন। ১৯৭৭-১৯৮১ সাল পর্যন্ত বরগুনা জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ছিলেন। ২৭ বছর বয়সে ১৯৮৩ সালে জনগণের রায়ে নির্বাচিত হন ইউনিয়ন চেয়ারম্যান।

১৯৮৭ সালে চেয়ারম্যান থাকাবস্থায় সন্ত্রাস দমনে সফল চেয়ারম্যান হিসেবে সরকার তাকে রাষ্ট্রীয় পুরস্কার প্রদান করেন। ১৯৯০ সালে ইউপি চেয়ারম্যানের পদ থেকে পদত্যাগ করে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে অংশগ্রহণ করে বিপুল ভোটে দক্ষিণাঞ্চলের একমাত্র আওয়ামী লীগ দলীয় উপজেলা চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। ২০০১ সালে স্বতন্ত্রপ্রার্থী হিসেবে এমপি নির্বাচিত হন। পরে দলে ফিরে সে সময়ে দেশের ৪৬ জন আওয়ামী এমপির একজন হন তিনি।

দেলোয়ার হোসেন জানিয়েছেন, ‘জনগণ আমাকে অনেক আসনে বসার সুযোগ করে দিয়েছে। অর্পিত দায়িত্বে অবহেলা করিনি কখনও। চাপ সয়েছি। মানবেতর জীবন পার করেছি। ২০১৯ সালে মনোনয়ন পেলে বরগুনার মানুষের জন্যই শুধু কাজ করব। নিজের চাওয়া-পাওয়ার কিছুই নেই। আমি চাই

বরগুনার মানুষকে তাদের অধিকার ফিরিয়ে দিতে। আমি বিশ্বাস করি শেখ হাসিনা আমাদের যোগ্য অভিভাবক, তার নির্দেশ মেনে নিলেই দেশ ও দশের সবারই মঙ্গল। তাতেই বাস্তবায়ন হবে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন।’