বাড়াবাড়ি করলে খালেদা জিয়াকে জেলে পাঠাব
jugantor
বিএনপির উদ্দেশে শেখ হাসিনা
বাড়াবাড়ি করলে খালেদা জিয়াকে জেলে পাঠাব

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

০৪ নভেম্বর ২০২২, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, খালেদা জিয়া অসুস্থ, বয়োবৃদ্ধ। তার বোন, ভাই, বোনের জামাই আমার কাছে এসেছেন। আবেদন করেছেন। আমরা তার সাজা স্থগিত করে বাড়ি থাকার সুযোগটা দিয়েছি। মানবিক কারণেই দিয়েছি। কিন্তু বিএনপি যদি বেশি বাড়াবাড়ি করে, তাহলে আবার জেলে পাঠিয়ে দেব।

জেলহত্যা দিবস উপলক্ষ্যে বৃহস্পতিবার বিকালে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে আওয়ামী লীগ আয়োজিত আলোচনা সভায় সভাপতির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। তিনি আরও বলেন, তারা (বিএনপি) শান্তিপূর্ণ আন্দোলন করলে কোনো কথা নেই, কিন্তু একটা মানুষের গায়ে হাত দিলে ছাড়ব না। আর বিএনপি যে এত লম্ফঝম্প করে তাদের দলের মাথা কোথায়? সবাই তো দুর্নীতিবাজ, সাজাপ্রাপ্ত পলাতক আসামি। দেশের মানুষ কেন তাদের পাশে থাকবে?

প্রধানমন্ত্রী তার বক্তব্যে আগামী নির্বাচনকে সামনে রেখে গত সাড়ে ১৩ বছরে সরকারের উন্নয়ন কর্মযজ্ঞ ঘরে ঘরে পৌঁছে দিতে নেতাকর্মীদের প্রতি আহ্বান জানান। প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, সামনে নির্বাচন। আমরা মানুষের মন জয় করে এবং দেশের উন্নয়ন করেই নৌকার পক্ষে ভোট আনব। দেশের মানুষ আর সেই অশান্ত পরিবেশ চায় না, শান্তির পরিবেশ চায়, দেশের উন্নতি চায়। তাই দেশের জনগণ আওয়ামী লীগকেই চায়, কেননা আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় থাকা মানে দেশে শান্তি, উন্নয়ন আর অগ্রগতি।

বিএনপির সমালোচনা করে আওয়ামী লীগ সভাপতি বলেন, দেশের জনগণ কি একটু ভেবে দেখেছে এই লুটেরা, দুর্নীতিবাজ, সন্ত্রাসী, জঙ্গিবাদীরা (বিএনপি-জামায়াত) ক্ষমতায় এলে দেশের অবস্থা কি হবে? করোনা মহামারিসহ দুঃসময়ে বিএনপির অস্তিত্ব কোথায় ছিল? তারা তো জনগণের পাশে দাঁড়ায়নি। বিএনপি যে এত লম্ফঝম্প করছে আর স্বপ্ন দেখছে জনগণ ভোট দিয়ে ভরে দেবে-এত সহজ নয়। দেশের জনগণ কী বিএনপির শাসনামলের হাওয়া ভবন, দুঃশাসন, জঙ্গিবাদ সৃষ্টি, দুর্নীতি, লুটপাট, নির্যাতনের কথা ভুলে যাবে? ভুলবে না। দেশের জনগণ আওয়ামী লীগের সঙ্গেই আছে, বাংলাদেশকে আর কেউ দাবায়ে রাখতে পারবে না। দেশ এগিয়ে যাচ্ছে, এগিয়ে যাবে।

প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, যে দলের জন্মই সংবিধান লঙ্ঘন করে অবৈধ ক্ষমতা দখলকারীর হাতে (জিয়াউর রহমান), সেই দল গণতন্ত্র উদ্ধারের কথা বলে কোন মুখে? আবার অনেকে তাদের সঙ্গে তাল মেলায়। কিন্তু আমার প্রশ্ন, বিএনপির নেতৃত্ব কই? বিএনপি নেতাদের বলুন-তাদের নেতা কে? এতিমের টাকা আত্মসাৎ মামলায় খালেদা জিয়া সাজাপ্রাপ্ত। আর মামলা আমরা দেইনি, খালেদা জিয়ার প্রিয় কাছের মানুষ ফখরুদ্দিন-মঈনুদ্দিনরা দিয়েছেন। এই ফখরুদ্দিন আহমদকে খালেদা জিয়া বিশ্বব্যাংক থেকে এনে বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর করেছিলেন। জেনারেল মঈনুদ্দিনকে ৯ জন সিনিয়রকে ডিঙিয়ে সেনাপ্রধান করেছিলেন। তার প্রিয় মানুষরাই মামলা দিয়েছেন, আদালতে প্রমাণের পর সাজা হয়েছে।

বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের আমলের দুঃশাসনের কথা তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, খালেদা জিয়ার সময় দেশে কটা সরকার ছিল? হাওয়া ভবনে একটা, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে আরেকটা। হাওয়া ভবনের পাওনা না মিটিয়ে দেশে কোনো উন্নয়নের কাজ হয়নি। কেউ ব্যবসা করতে পারেনি। এক ভাগ হাওয়া ভবনে আরেক ভাগ পিএমওতে তৈরি ব্যক্তিগত উন্নয়নের উইংয়ে দিতে হতো।

ব্যবসায়ীদের দুভাগ দিয়েই তবে ব্যবসা করতে হতো। তাদের চরম দুর্নীতি, বিদেশে বিপুল অর্থ পাচারের ঘটনা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে এফবিআই তদন্ত করে বের করেছে। তদন্ত করে তারা খুঁজে পেয়েছে খালেদা জিয়া ও তার দুই পুত্র তারেক রহমান ও কোকোর পাচারকৃত অর্থের। এফবিআই’র প্রতিনিধি এসে তারেক রহমানের বিরুদ্ধে আদালতে সাক্ষ্য দিয়েছেন এবং সেই মামলায় তারেক রহমানের ৭ বছরের সাজা হয়েছে। ১০ ট্রাক অস্ত্র চোরাচালান এবং ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলাতেও তারেক রহমান সাজাপ্রাপ্ত।

আওয়ামী লীগ সভাপতি বলেন, তারা (বিএনপি) অগ্নিসন্ত্রাস করে সাড়ে তিন হাজার মানুষকে দগ্ধ করেছে, শত শত মানুষকে পেট্রোলবোমা মেরে পুড়িয়ে হত্যা করেছে। যত কিছু ধ্বংসাত্মক কাজ করতেই তারা (বিএনপি) পারদর্শী। বিএনপি-জামায়াত জোটের সেই ভয়াল দুঃশাসন, অত্যাচার-নির্যাতন, হাওয়া ভবনের কথা কী দেশের জনগণ ভুলে যাবে? কেন দেশের জনগণ তাদের পাশে থাকবে?

প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, মহামারির মধ্যে দেশের এখন মাথাপিছু আয় ৩ হাজার ডলারের কাছাকাছি। গ্রামের একদম তৃণমূল পর্যায়ে উন্নয়ন নিয়ে গেছি। বিএনপির নীতি ছিল খাদ্য ঘাটতি দেখিয়ে বিদেশ থেকে ভিক্ষা নিয়ে চলা। আর আওয়ামী লীগের নীতি হচ্ছে ভিক্ষা নেব না, নিজেরা ফসল ফলিয়ে নিজেরা চলব, বিশ্বের বুকে মাথা উঁচু করে চলব।

শেখ হাসিনা বলেন, অনেক উন্নত দেশও করোনার ভ্যাকসিন জনগণকে বিনামূল্যে দিতে পারেনি। আমরা তা দিয়েছি। বুস্টার ডোজ চলছে। শুধু ভ্যাকসিনই নয়, করোনার টেস্টও বিনামূল্যে করা হচ্ছে। একেকটা ভ্যাকসিন ও করোনা টেস্ট করতে হাজার হাজার টাকা খরচ হয়। সেটি আমরা বিনামূল্যে দিচ্ছি। কারণ আমাদের কাছে দেশের মানুষের জীবন রক্ষা হচ্ছে বড় ব্যাপার। এমন অবস্থায় যদি বিএনপি ক্ষমতায় থাকত তবে ভ্যাকসিনের অভাবে হাজার হাজার লাশ পড়ে থাকত। ভ্যাকসিনের টাকা হাওয়া ভবন লুটে খেয়ে নিত।

বঙ্গবন্ধু হত্যায় জিয়া জড়িত, খালেদা জিয়া জানতেন : প্রধানমন্ত্রী বলেন, জাতির পিতার খুনিদের জিয়াউর রহমান বিদেশে চাকরি দিয়ে পুনর্বাসিত করেন। একুশ বছর পর আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এসে তাদের বের করে দেয়। কিন্তু ২০০১ সালে যখন বিচারের রায়ের তারিখ পড়েছে খুনি বিচারের কাঠগড়ায়, সেই সময় খালেদা জিয়া খুনি খায়রুজ্জামানকে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের চাকরি এবং প্রমোশন দেয়। মালয়েশিয়ায় হাইকমিশনার করেও পাঠায়। খুনি পাশাকে বিদেশে মৃত অবস্থায় প্রমোশন দেয়। তার ভাতা ও সব ধরনের বেনিফিট পরিবারকে দেয়। তাহলে কি করে অস্বীকার করবে এই হতাকাণ্ডের সঙ্গে জিয়াউর রহমান জড়িত নয়। ৩ নভেম্বর বা ১৫ আগস্টের হত্যার সঙ্গে জিয়া যে জড়িত নয় তা কিভাবে অস্বীকার করবে।

অন্যের ঘাড়ে অপরাধ চাপানোর ট্রিকসটা তারা ভালোভাবেই জানে : প্রধানমন্ত্রী বলেন, ৯৬ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারির নির্বাচনে খুনি রশিদকে ভোট চুরি করে খালেদা জিয়া পার্লামেন্টে বাসানোর মাধ্যমে খুনিদের পৃষ্ঠাপোষকতা করেছেন। আর ২১ আগস্টের গ্রেনেড হামলায় তারেক রহমান ও খালেদা জিয়া যে সম্পূর্ণভাবে জড়িত তাতে আর কোনো সন্দেহ নেই। কারণ সংসদে এ নিয়ে আওয়ামী লীগকে আলোচনা করতে দেওয়া হয়নি। উলটো খালেদা জিয়া বললেন, শেখ হাসিনা ভ্যানিটি ব্যাগে গ্রেনেড নিয়ে বিস্ফোরণ ঘটিয়েছেন। অর্থাৎ একে অপরাধ কর পরে সেই অপরাধটা অন্যের ঘাড়ে চাপানোর ট্রিকসটা তারা ভালোভাবেই জানে।

এর আগে অনুষ্ঠানের শুরুতে সব শহিদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে দাঁড়িয়ে ১ মিনিট নীরবতা পালন করা হয়। অনুষ্ঠানে সূচনা বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক সড়ক পরিবহণ ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। আরও বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য শেখ ফজলুল করিম সেলিম, ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন, মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া বীর বিক্রম, কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য পারভীন জামান কবিতা, জাতীয় চার নেতার অন্যতম সৈয়দ নজরুল ইসলামের মেয়ে ডা. সৈয়দা জাকিয়া নূর এমপি, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সভাপতি আবু আহমেদ মন্নাফী, ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ বজলুর রহমান। সঞ্চালনা করেন আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. আবদুস সোবহান গোলাপ এবং উপ-প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আমিনুল ইসলাম আমিন।

বিএনপির উদ্দেশে শেখ হাসিনা

বাড়াবাড়ি করলে খালেদা জিয়াকে জেলে পাঠাব

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
০৪ নভেম্বর ২০২২, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, খালেদা জিয়া অসুস্থ, বয়োবৃদ্ধ। তার বোন, ভাই, বোনের জামাই আমার কাছে এসেছেন। আবেদন করেছেন। আমরা তার সাজা স্থগিত করে বাড়ি থাকার সুযোগটা দিয়েছি। মানবিক কারণেই দিয়েছি। কিন্তু বিএনপি যদি বেশি বাড়াবাড়ি করে, তাহলে আবার জেলে পাঠিয়ে দেব।

জেলহত্যা দিবস উপলক্ষ্যে বৃহস্পতিবার বিকালে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে আওয়ামী লীগ আয়োজিত আলোচনা সভায় সভাপতির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। তিনি আরও বলেন, তারা (বিএনপি) শান্তিপূর্ণ আন্দোলন করলে কোনো কথা নেই, কিন্তু একটা মানুষের গায়ে হাত দিলে ছাড়ব না। আর বিএনপি যে এত লম্ফঝম্প করে তাদের দলের মাথা কোথায়? সবাই তো দুর্নীতিবাজ, সাজাপ্রাপ্ত পলাতক আসামি। দেশের মানুষ কেন তাদের পাশে থাকবে?

প্রধানমন্ত্রী তার বক্তব্যে আগামী নির্বাচনকে সামনে রেখে গত সাড়ে ১৩ বছরে সরকারের উন্নয়ন কর্মযজ্ঞ ঘরে ঘরে পৌঁছে দিতে নেতাকর্মীদের প্রতি আহ্বান জানান। প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, সামনে নির্বাচন। আমরা মানুষের মন জয় করে এবং দেশের উন্নয়ন করেই নৌকার পক্ষে ভোট আনব। দেশের মানুষ আর সেই অশান্ত পরিবেশ চায় না, শান্তির পরিবেশ চায়, দেশের উন্নতি চায়। তাই দেশের জনগণ আওয়ামী লীগকেই চায়, কেননা আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় থাকা মানে দেশে শান্তি, উন্নয়ন আর অগ্রগতি।

বিএনপির সমালোচনা করে আওয়ামী লীগ সভাপতি বলেন, দেশের জনগণ কি একটু ভেবে দেখেছে এই লুটেরা, দুর্নীতিবাজ, সন্ত্রাসী, জঙ্গিবাদীরা (বিএনপি-জামায়াত) ক্ষমতায় এলে দেশের অবস্থা কি হবে? করোনা মহামারিসহ দুঃসময়ে বিএনপির অস্তিত্ব কোথায় ছিল? তারা তো জনগণের পাশে দাঁড়ায়নি। বিএনপি যে এত লম্ফঝম্প করছে আর স্বপ্ন দেখছে জনগণ ভোট দিয়ে ভরে দেবে-এত সহজ নয়। দেশের জনগণ কী বিএনপির শাসনামলের হাওয়া ভবন, দুঃশাসন, জঙ্গিবাদ সৃষ্টি, দুর্নীতি, লুটপাট, নির্যাতনের কথা ভুলে যাবে? ভুলবে না। দেশের জনগণ আওয়ামী লীগের সঙ্গেই আছে, বাংলাদেশকে আর কেউ দাবায়ে রাখতে পারবে না। দেশ এগিয়ে যাচ্ছে, এগিয়ে যাবে।

প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, যে দলের জন্মই সংবিধান লঙ্ঘন করে অবৈধ ক্ষমতা দখলকারীর হাতে (জিয়াউর রহমান), সেই দল গণতন্ত্র উদ্ধারের কথা বলে কোন মুখে? আবার অনেকে তাদের সঙ্গে তাল মেলায়। কিন্তু আমার প্রশ্ন, বিএনপির নেতৃত্ব কই? বিএনপি নেতাদের বলুন-তাদের নেতা কে? এতিমের টাকা আত্মসাৎ মামলায় খালেদা জিয়া সাজাপ্রাপ্ত। আর মামলা আমরা দেইনি, খালেদা জিয়ার প্রিয় কাছের মানুষ ফখরুদ্দিন-মঈনুদ্দিনরা দিয়েছেন। এই ফখরুদ্দিন আহমদকে খালেদা জিয়া বিশ্বব্যাংক থেকে এনে বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর করেছিলেন। জেনারেল মঈনুদ্দিনকে ৯ জন সিনিয়রকে ডিঙিয়ে সেনাপ্রধান করেছিলেন। তার প্রিয় মানুষরাই মামলা দিয়েছেন, আদালতে প্রমাণের পর সাজা হয়েছে।

বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের আমলের দুঃশাসনের কথা তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, খালেদা জিয়ার সময় দেশে কটা সরকার ছিল? হাওয়া ভবনে একটা, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে আরেকটা। হাওয়া ভবনের পাওনা না মিটিয়ে দেশে কোনো উন্নয়নের কাজ হয়নি। কেউ ব্যবসা করতে পারেনি। এক ভাগ হাওয়া ভবনে আরেক ভাগ পিএমওতে তৈরি ব্যক্তিগত উন্নয়নের উইংয়ে দিতে হতো।

ব্যবসায়ীদের দুভাগ দিয়েই তবে ব্যবসা করতে হতো। তাদের চরম দুর্নীতি, বিদেশে বিপুল অর্থ পাচারের ঘটনা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে এফবিআই তদন্ত করে বের করেছে। তদন্ত করে তারা খুঁজে পেয়েছে খালেদা জিয়া ও তার দুই পুত্র তারেক রহমান ও কোকোর পাচারকৃত অর্থের। এফবিআই’র প্রতিনিধি এসে তারেক রহমানের বিরুদ্ধে আদালতে সাক্ষ্য দিয়েছেন এবং সেই মামলায় তারেক রহমানের ৭ বছরের সাজা হয়েছে। ১০ ট্রাক অস্ত্র চোরাচালান এবং ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলাতেও তারেক রহমান সাজাপ্রাপ্ত।

আওয়ামী লীগ সভাপতি বলেন, তারা (বিএনপি) অগ্নিসন্ত্রাস করে সাড়ে তিন হাজার মানুষকে দগ্ধ করেছে, শত শত মানুষকে পেট্রোলবোমা মেরে পুড়িয়ে হত্যা করেছে। যত কিছু ধ্বংসাত্মক কাজ করতেই তারা (বিএনপি) পারদর্শী। বিএনপি-জামায়াত জোটের সেই ভয়াল দুঃশাসন, অত্যাচার-নির্যাতন, হাওয়া ভবনের কথা কী দেশের জনগণ ভুলে যাবে? কেন দেশের জনগণ তাদের পাশে থাকবে?

প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, মহামারির মধ্যে দেশের এখন মাথাপিছু আয় ৩ হাজার ডলারের কাছাকাছি। গ্রামের একদম তৃণমূল পর্যায়ে উন্নয়ন নিয়ে গেছি। বিএনপির নীতি ছিল খাদ্য ঘাটতি দেখিয়ে বিদেশ থেকে ভিক্ষা নিয়ে চলা। আর আওয়ামী লীগের নীতি হচ্ছে ভিক্ষা নেব না, নিজেরা ফসল ফলিয়ে নিজেরা চলব, বিশ্বের বুকে মাথা উঁচু করে চলব।

শেখ হাসিনা বলেন, অনেক উন্নত দেশও করোনার ভ্যাকসিন জনগণকে বিনামূল্যে দিতে পারেনি। আমরা তা দিয়েছি। বুস্টার ডোজ চলছে। শুধু ভ্যাকসিনই নয়, করোনার টেস্টও বিনামূল্যে করা হচ্ছে। একেকটা ভ্যাকসিন ও করোনা টেস্ট করতে হাজার হাজার টাকা খরচ হয়। সেটি আমরা বিনামূল্যে দিচ্ছি। কারণ আমাদের কাছে দেশের মানুষের জীবন রক্ষা হচ্ছে বড় ব্যাপার। এমন অবস্থায় যদি বিএনপি ক্ষমতায় থাকত তবে ভ্যাকসিনের অভাবে হাজার হাজার লাশ পড়ে থাকত। ভ্যাকসিনের টাকা হাওয়া ভবন লুটে খেয়ে নিত।

বঙ্গবন্ধু হত্যায় জিয়া জড়িত, খালেদা জিয়া জানতেন : প্রধানমন্ত্রী বলেন, জাতির পিতার খুনিদের জিয়াউর রহমান বিদেশে চাকরি দিয়ে পুনর্বাসিত করেন। একুশ বছর পর আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এসে তাদের বের করে দেয়। কিন্তু ২০০১ সালে যখন বিচারের রায়ের তারিখ পড়েছে খুনি বিচারের কাঠগড়ায়, সেই সময় খালেদা জিয়া খুনি খায়রুজ্জামানকে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের চাকরি এবং প্রমোশন দেয়। মালয়েশিয়ায় হাইকমিশনার করেও পাঠায়। খুনি পাশাকে বিদেশে মৃত অবস্থায় প্রমোশন দেয়। তার ভাতা ও সব ধরনের বেনিফিট পরিবারকে দেয়। তাহলে কি করে অস্বীকার করবে এই হতাকাণ্ডের সঙ্গে জিয়াউর রহমান জড়িত নয়। ৩ নভেম্বর বা ১৫ আগস্টের হত্যার সঙ্গে জিয়া যে জড়িত নয় তা কিভাবে অস্বীকার করবে।

অন্যের ঘাড়ে অপরাধ চাপানোর ট্রিকসটা তারা ভালোভাবেই জানে : প্রধানমন্ত্রী বলেন, ৯৬ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারির নির্বাচনে খুনি রশিদকে ভোট চুরি করে খালেদা জিয়া পার্লামেন্টে বাসানোর মাধ্যমে খুনিদের পৃষ্ঠাপোষকতা করেছেন। আর ২১ আগস্টের গ্রেনেড হামলায় তারেক রহমান ও খালেদা জিয়া যে সম্পূর্ণভাবে জড়িত তাতে আর কোনো সন্দেহ নেই। কারণ সংসদে এ নিয়ে আওয়ামী লীগকে আলোচনা করতে দেওয়া হয়নি। উলটো খালেদা জিয়া বললেন, শেখ হাসিনা ভ্যানিটি ব্যাগে গ্রেনেড নিয়ে বিস্ফোরণ ঘটিয়েছেন। অর্থাৎ একে অপরাধ কর পরে সেই অপরাধটা অন্যের ঘাড়ে চাপানোর ট্রিকসটা তারা ভালোভাবেই জানে।

এর আগে অনুষ্ঠানের শুরুতে সব শহিদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে দাঁড়িয়ে ১ মিনিট নীরবতা পালন করা হয়। অনুষ্ঠানে সূচনা বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক সড়ক পরিবহণ ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। আরও বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য শেখ ফজলুল করিম সেলিম, ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন, মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া বীর বিক্রম, কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য পারভীন জামান কবিতা, জাতীয় চার নেতার অন্যতম সৈয়দ নজরুল ইসলামের মেয়ে ডা. সৈয়দা জাকিয়া নূর এমপি, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সভাপতি আবু আহমেদ মন্নাফী, ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ বজলুর রহমান। সঞ্চালনা করেন আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. আবদুস সোবহান গোলাপ এবং উপ-প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আমিনুল ইসলাম আমিন।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন