টিভির পাঠদানে জোড়াতালি: করোনা আতঙ্কে অনেকে রাজি নন পাঠদানে

মাধ্যমিকে সর্বোচ্চ ৬ বিষয়ে পাঠদান চলছে * প্রাথমিকের পাঠদানের সম্প্রচারও শুরু হচ্ছে

  মুসতাক আহমদ ০৫ এপ্রিল ২০২০, ০০:০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

করোনাভাইরাসের কারণে সরকারের টেলিভিশনে বিকল্প পাঠদানের ব্যবস্থা গতি পাচ্ছে না। লেকচার দিতে পাওয়া যাচ্ছে না প্রয়োজনীয় সংখ্যক শিক্ষক। ভাইরাসের আতঙ্কে অনেকেই ঘর থেকে বের হতে চাচ্ছেন না। এছাড়া সংসদ টেলিভিশনের কারিগরি সীমাবদ্ধতা ও দক্ষ শিক্ষকের ঘাটতিও এ ক্ষেত্রে প্রতিবন্ধকতা নিয়ে হাজির হয়েছে।

মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদফতরের (মাউশি) মহাপরিচালক অধ্যাপক ড. সৈয়দ মোহাম্মদ গোলাম ফারুক এ তথ্য নিশ্চিত করে বলেছেন, আমাদের প্রাথমিক লক্ষ্য ছিল প্রতিটি শ্রেণির জন্য দৈনিক পাঁচটি করে পাঠদান রাখব। কিন্তু তা সম্ভব হয়নি। তবে আমরা চেষ্টা করছি। আশা করছি, পরিস্থিতির উন্নতি হবে।

করোনাভাইরাস প্রাদুর্ভাবের কারণে ঘরবন্দি হয়ে পড়া শিক্ষার্থীদের পড়ালেখা অব্যাহত রাখতে সংসদ বাংলাদেশ টেলিভিশনের মাধ্যমে পাঠদানের এ উদ্যোগ নিয়েছিল সরকার। এর অংশ হিসেবে ২৯ মার্চ ষষ্ঠ থেকে নবম শ্রেণির পাঠদানের লেকচার সম্প্রচার শুরু হয়েছে। প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতরের (ডিপিই) উদ্যোগে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের তৃতীয় থেকে পঞ্চম শ্রেণির শিক্ষার্থীদেরও পাঠদানের ব্যবস্থা করা হয়েছে। সোম বা মঙ্গলবার একই টিভিতে সম্প্রচার কার্যক্রম শুরু হবে।

অভিভাবকরা জানিয়েছেন, টিভিতে যে বিকল্প পাঠদান শুরু করা হয়েছে প্রয়োজনের তুলনায় তার পরিধি পর্যাপ্ত নয়। ২ এপ্রিল পর্যন্ত সব বিষয় পাঠদানের আওতায় আনা যায়নি। বিশেষ করে ওইদিন পর্যন্ত বাংলা বিষয়ের পাঠদান শুরু করা যায়নি। ষষ্ঠ শ্রেণিতে কেবল ইংরেজি, বিজ্ঞান, বাংলাদেশ ও বিশ্ব পরিচয় এবং আইসিটি বিষয়ের ক্লাস হচ্ছে। সপ্তম শ্রেণিতে গণিত, বাংলা ও ইংরেজির মতো বিষয়ের পাঠদান এখনও শুরু করা যায়নি। অষ্টম শ্রেণিতে কেবল গণিত, ইংরেজি ও বিজ্ঞানের পাঠদান চলছে। আর নবম শ্রেণিতে পাঠদান হচ্ছে আইসিটি, গণিত, বাংলাদেশ ও বিশ্ব পরিচয়, ইংরেজি এবং রসায়নের। বিভাগভিত্তিক এই শ্রেণির অন্য বিভাগের পাঠদানের কোনো খবর নেই। শুরুতে দশম শ্রেণি পর্যন্ত পাঠদানের ব্যবস্থা করার কথা ছিল। এখন পর্যন্ত দশম শ্রেণির পাঠদান শুরুই হয়নি। বাকি চারটি শ্রেণির প্রতিটির দৈনিক দুটি করে বিষয়ের ২০ মিনিট করে ৪০ মিনিট পাঠদান করা হচ্ছে।

এ পরিস্থিতির মধ্যে বৃহস্পতিবার প্রকাশ করা হয়েছে ৫ থেকে ৯ এপ্রিলের রুটিন। এতে দেখা যায়, আগের বিষয়গুলোর পাশাপাশি নবম শ্রেণিতে বাংলা ও পদার্থবিজ্ঞান, সপ্তম শ্রেণিতে বাংলা, গণিত, ষষ্ঠ-অষ্টম শ্রেণিতে বাংলা যুক্ত হয়েছে।

এ ব্যাপারে মাউশি দায়িত্বপ্রাপ্ত পরিচালক প্রবীর কুমার ভট্টাচার্য্য ১ এপ্রিল যুগান্তরকে বলেন, আমরা প্রাথমিক পর্যায়ে সব বিষয়ে পাঠদানের মতো শিক্ষক পাইনি। তবে পরে কিছুটা পাওয়া গেছে। দুই শতাধিক লেকচার ইতোমধ্যে আমরা রেকর্ডিং করিয়েছি।

প্রাথমিকের পাঠদান : সোম বা মঙ্গলবার শুরু হবে প্রাথমিক স্তরের তৃতীয়, চতুর্থ ও পঞ্চম শ্রেণির পাঠদান। সংসদ বাংলাদেশ টিভির মাধ্যমেও এ পাঠদান কার্যক্রম সম্প্রচার করা হবে। তবে পরে বিটিভিতে সম্প্রচারের চিন্তাও আছে বলে জানান প্রাথমিক ও গণশিক্ষা সচিব আকরাম-আল-হোসেন।

তিনি যুগান্তরকে বলেন, আমরা প্রাক-প্রাথমিক থেকে দ্বিতীয় শ্রেণির শিশুদের জন্যও কনটেন্ট প্রস্তুত করছি। টিভিতে এই পাঠদান কার্যক্রম স্থায়ী করার চিন্তা করছেন তারা। এ লক্ষ্যে এটুআই প্রকল্প কাজ করছে। প্রাথমিকভাবে গণিত, ইংরেজি ও বিজ্ঞানের ওপর পাঠদানের প্রস্তুতি নেয়া হচ্ছে।

পাঠদানের লেকচার রাজধানীতে তিনটি স্টুডিওতে রেকর্ডিং করা হচ্ছে। ২ এপ্রিল এ রেকর্ডিং কার্যক্রম শুরু হয়। এর মধ্যে দুটি হচ্ছে, রেসিডেনসিয়াল মডেল স্কুল ও কলেজ এবং বাংলাদেশ শিক্ষা তথ্য ও পরিসংখ্যান ব্যুরো। আরেকটি দেশের এক সমালোচিত শিক্ষাব্যবসায়ীর স্টুডিও। প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় এবং প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতরকেন্দ্রিক কয়েকজন শিক্ষার দালাল ওই স্টুডিতে নেয়ার ক্ষেত্রে মধ্যস্থতা করেছে বলে জানা গেছে।

রাজধানীতে শত শত স্টুডিও থাকতে শিক্ষাব্যবসায়ীর স্টুডিওতে রেকর্ডিং করার উদ্যোগে সমালোচনা সৃষ্টি হয়েছে। এ ব্যাপারে সচিব বলেন, আর কোনো স্টুডিও পাওয়া যায়নি বলে আমরা ওই স্টুডিও বাছাই করেছি।

ডিপিই মহাপরিচালক মোহাম্মদ ফসিউল্লাহ জানিয়েছেন, স্টুডিওর বাইরে বাড়িতে বসে রেকর্ডিং করা কিছু ভিডিও তাদের শিক্ষকরা পাঠিয়েছেন। সেগুলো সম্পাদনা করে সম্প্রচারের উপযোগী করার চেষ্টা চলছে।

ঘটনাপ্রবাহ : ছড়িয়ে পড়ছে করোনাভাইরাস

আরও
 

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত