কুমিল্লায় যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে প্রবাসীর মামলা
jugantor
পিস্তল ঠেকিয়ে চাঁদা দাবি
কুমিল্লায় যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে প্রবাসীর মামলা

  কুমিল্লা ব্যুরো  

২৭ নভেম্বর ২০২০, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

কুমিল্লার নাঙ্গলকোটে প্রবাসীর মাথায় পিস্তল ঠেকিয়ে ১০ লাখ টাকা চাঁদা দাবির অভিযোগে যুবলীগ নেতা সাইফুল ইসলামের বিরুদ্ধে করা মামলা আদালত আমলে নিয়েছেন। বাহারাইন প্রবাসী ইলিয়াছ মজুমদার বাবুল মঙ্গলবার কুমিল্লা আদালতে চাঁদাবাজির মামলা করেন। বাদীপক্ষের আইনজীবী এএইচএম তাইফুর আলম জানান, মামলাটি আমলে নিয়ে আদালত ঘটনা তদন্তের জন্য পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনকে (পিবিআই) নির্দেশ দিয়েছেন। আদালত থেকে মামলার কপি বৃহস্পতিবার পিবিআই কার্যালয়ে পৌঁছেছে। বাঙ্গড্ডা ইউনিয়নের গান্ধাচির আবদুল গফুরের ছেলে সাইফুল উপজেলা যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক। তিনি বাঙ্গড্ডা ইউনিয়ন যুবলীগের আহ্বায়ক হিসেবেও দায়িত্ব পালন করছেন। আর বাঙ্গড্ডা গ্রামের আবদুল মতিন মজুমদারের ছেলে ইলিয়াছ বাহারাইন শাখা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সহ-সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

মামলার বাদী ইলিয়াছ বলেন, ২০ নভেম্বর রাতে বাঙ্গড্ডা বাজারে সাইফুল ও তার ক্যাডাররা আমার কাছে ১০ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করে। সাইফুল জানান, এলাকায় থাকতে হলে তাকে চাঁদা দিতে হবে। চাঁদা দিতে রাজি না হওয়ায় সাইফুল ও তার ক্যাডাররা অস্ত্র নিয়ে আমার ওপর হামলা করে। পরে লোকজন আমাকে উদ্ধার করে। প্রথমে স্থানীয়ভাবে ও পরে কুমিল্লা জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়েছি। ইলিয়াছ আরও জানান, এর আগেও সাইফুল এমন অনেক ঘটনা ঘটিয়েছে। কিন্তু ভয়ে কেউ তার বিরুদ্ধে মুখ খুলতে চান না।

এসব অভিযোগ অস্বীকার করে যুবলীগ নেতা সাইফুল ইসলাম বলেন, তার বিরুদ্ধে ফেসবুকে ইলিয়াছ মিথ্যা পোস্ট দিয়েছেন। এ নিয়ে যুবলীগ ও ছাত্রলীগের নেতাকর্র্মীরা প্রতিবাদ করেছেন। ইলিয়াছের বিরুদ্ধে কয়েক দিন আগে থানায় জিডি করেছি। তাকে মারধর করা, চাঁদা দাবি ও মাথায় পিস্তল ঠেকানো এসব অভিযোগ সম্পূর্ণ মিথ্যা ও বানোয়াট। তার বিরুদ্ধে এসব ষড়যন্ত্র। চেয়ারম্যান পদে তিনি নির্বাচন করবেন। তাই তার বিরুদ্ধে এসব অপপ্রচার ও মিথ্যা ঘটনা ছড়ানো হচ্ছে।

পিস্তল ঠেকিয়ে চাঁদা দাবি

কুমিল্লায় যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে প্রবাসীর মামলা

 কুমিল্লা ব্যুরো 
২৭ নভেম্বর ২০২০, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

কুমিল্লার নাঙ্গলকোটে প্রবাসীর মাথায় পিস্তল ঠেকিয়ে ১০ লাখ টাকা চাঁদা দাবির অভিযোগে যুবলীগ নেতা সাইফুল ইসলামের বিরুদ্ধে করা মামলা আদালত আমলে নিয়েছেন। বাহারাইন প্রবাসী ইলিয়াছ মজুমদার বাবুল মঙ্গলবার কুমিল্লা আদালতে চাঁদাবাজির মামলা করেন। বাদীপক্ষের আইনজীবী এএইচএম তাইফুর আলম জানান, মামলাটি আমলে নিয়ে আদালত ঘটনা তদন্তের জন্য পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনকে (পিবিআই) নির্দেশ দিয়েছেন। আদালত থেকে মামলার কপি বৃহস্পতিবার পিবিআই কার্যালয়ে পৌঁছেছে। বাঙ্গড্ডা ইউনিয়নের গান্ধাচির আবদুল গফুরের ছেলে সাইফুল উপজেলা যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক। তিনি বাঙ্গড্ডা ইউনিয়ন যুবলীগের আহ্বায়ক হিসেবেও দায়িত্ব পালন করছেন। আর বাঙ্গড্ডা গ্রামের আবদুল মতিন মজুমদারের ছেলে ইলিয়াছ বাহারাইন শাখা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সহ-সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

মামলার বাদী ইলিয়াছ বলেন, ২০ নভেম্বর রাতে বাঙ্গড্ডা বাজারে সাইফুল ও তার ক্যাডাররা আমার কাছে ১০ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করে। সাইফুল জানান, এলাকায় থাকতে হলে তাকে চাঁদা দিতে হবে। চাঁদা দিতে রাজি না হওয়ায় সাইফুল ও তার ক্যাডাররা অস্ত্র নিয়ে আমার ওপর হামলা করে। পরে লোকজন আমাকে উদ্ধার করে। প্রথমে স্থানীয়ভাবে ও পরে কুমিল্লা জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়েছি। ইলিয়াছ আরও জানান, এর আগেও সাইফুল এমন অনেক ঘটনা ঘটিয়েছে। কিন্তু ভয়ে কেউ তার বিরুদ্ধে মুখ খুলতে চান না।

এসব অভিযোগ অস্বীকার করে যুবলীগ নেতা সাইফুল ইসলাম বলেন, তার বিরুদ্ধে ফেসবুকে ইলিয়াছ মিথ্যা পোস্ট দিয়েছেন। এ নিয়ে যুবলীগ ও ছাত্রলীগের নেতাকর্র্মীরা প্রতিবাদ করেছেন। ইলিয়াছের বিরুদ্ধে কয়েক দিন আগে থানায় জিডি করেছি। তাকে মারধর করা, চাঁদা দাবি ও মাথায় পিস্তল ঠেকানো এসব অভিযোগ সম্পূর্ণ মিথ্যা ও বানোয়াট। তার বিরুদ্ধে এসব ষড়যন্ত্র। চেয়ারম্যান পদে তিনি নির্বাচন করবেন। তাই তার বিরুদ্ধে এসব অপপ্রচার ও মিথ্যা ঘটনা ছড়ানো হচ্ছে।