দ্বিতীয় বেল্ট ফোরামে যোগ দিতে চীন গেলেন শিল্পমন্ত্রী
jugantor
দ্বিতীয় বেল্ট ফোরামে যোগ দিতে চীন গেলেন শিল্পমন্ত্রী

  যুগান্তর রিপোর্ট  

২৫ এপ্রিল ২০১৯, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

চীনের বেইজিংয়ে আজ শুরু হচ্ছে তিন দিনব্যাপী উচ্চপর্যায়ের ‘দ্বিতীয় বেল্ট অ্যান্ড রোড ফোরাম’। বেইজিংয়ের চায়না ন্যাশনাল কনভেনশন সেন্টারে (সিএনসিসি) শনিবার পর্যন্ত তিন দিনব্যাপী এ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে। এতে অংশ নিতে শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ুন বুধবার দুপুরে চীনের উদ্দেশে ঢাকা ত্যাগ করেছেন। শিল্প মন্ত্রণালয়ের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ কথা জানানো হয়েছে। বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, সম্মেলনে শতাধিক দেশ ও আন্তর্জাতিক সংস্থা থেকে রাষ্ট্রপ্রধান, মন্ত্রী এবং উচ্চপর্যায়ের প্রতিনিধিরা অংশ নেবেন। তারা ১২টি থিমেটিক সেশনে দুর্বল ও অস্থিতিশীল বিশ্ব অর্থনীতি থেকে উত্তরণের নীতি নির্ধারণ, অবকাঠামোগত উন্নয়ন, বাণিজ্য পরিসর বৃদ্ধি, অর্থনৈতিক সহযোগিতার দ্বিপাক্ষিক ও বহুপাক্ষিক ক্ষেত্র চিহ্নিতকরণ এবং জনগণের মধ্যে যোগাযোগ বৃদ্ধির উপায় নিয়ে আলোচনা করবেন। এক্ষেত্রে শক্তিশালী আন্তঃযোগাযোগ ও গভীর সহযোগিতার বিষয়টি প্রাধান্য পাবে। ফোরামে শিল্পমন্ত্রী বিভিন্ন থিমেটিক সেশনে বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব করবেন। ‘ব্যাপক পরামর্শ, যৌথ উদ্যোগ এবং অংশীদারিত্বের মাধ্যমে সুফল ভোগের জন্য নীতি সহায়তা ও সম্মিলিত প্রয়াস জোরদারকরণ’ শীর্ষক থিমেটিক সেশনে তিনি বক্তব্য দেবেন।

দ্বিতীয় বেল্ট ফোরামে যোগ দিতে চীন গেলেন শিল্পমন্ত্রী

 যুগান্তর রিপোর্ট  
২৫ এপ্রিল ২০১৯, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

চীনের বেইজিংয়ে আজ শুরু হচ্ছে তিন দিনব্যাপী উচ্চপর্যায়ের ‘দ্বিতীয় বেল্ট অ্যান্ড রোড ফোরাম’। বেইজিংয়ের চায়না ন্যাশনাল কনভেনশন সেন্টারে (সিএনসিসি) শনিবার পর্যন্ত তিন দিনব্যাপী এ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে। এতে অংশ নিতে শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ুন বুধবার দুপুরে চীনের উদ্দেশে ঢাকা ত্যাগ করেছেন। শিল্প মন্ত্রণালয়ের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ কথা জানানো হয়েছে। বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, সম্মেলনে শতাধিক দেশ ও আন্তর্জাতিক সংস্থা থেকে রাষ্ট্রপ্রধান, মন্ত্রী এবং উচ্চপর্যায়ের প্রতিনিধিরা অংশ নেবেন। তারা ১২টি থিমেটিক সেশনে দুর্বল ও অস্থিতিশীল বিশ্ব অর্থনীতি থেকে উত্তরণের নীতি নির্ধারণ, অবকাঠামোগত উন্নয়ন, বাণিজ্য পরিসর বৃদ্ধি, অর্থনৈতিক সহযোগিতার দ্বিপাক্ষিক ও বহুপাক্ষিক ক্ষেত্র চিহ্নিতকরণ এবং জনগণের মধ্যে যোগাযোগ বৃদ্ধির উপায় নিয়ে আলোচনা করবেন। এক্ষেত্রে শক্তিশালী আন্তঃযোগাযোগ ও গভীর সহযোগিতার বিষয়টি প্রাধান্য পাবে। ফোরামে শিল্পমন্ত্রী বিভিন্ন থিমেটিক সেশনে বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব করবেন। ‘ব্যাপক পরামর্শ, যৌথ উদ্যোগ এবং অংশীদারিত্বের মাধ্যমে সুফল ভোগের জন্য নীতি সহায়তা ও সম্মিলিত প্রয়াস জোরদারকরণ’ শীর্ষক থিমেটিক সেশনে তিনি বক্তব্য দেবেন।