রিজার্ভ চুরি: ফিলিপাইনের আদালতে রিজাল ব্যাংককে তলব
jugantor
রিজার্ভ চুরি: ফিলিপাইনের আদালতে রিজাল ব্যাংককে তলব

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

১৩ জানুয়ারি ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ চুরির ঘটনায় ফিলিপাইনের মাকাতির বিচার আদালতে হাজির হওয়ার নোটিশ পেয়েছে রিজাল কমার্শিয়াল ব্যাংকিং করপোরেশন।

ব্যাংকটি এ নোটিশ পাওয়ার কথা স্বীকার করেছে। ব্যাংকটির বিরুদ্ধে বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় ব্যাংক যে অভিযোগ করেছিল তার ভিত্তিতেই ডাকা হয়েছে। খবর রয়টার্স।

বাংলাদেশ ব্যাংক বলছে, ২০১৯ সালের ফেব্রুয়ারিতে যুক্তরাষ্ট্রের ফেডারেল রিজার্ভ ব্যাংকে রাখা রিজার্ভ থেকে চুরি হওয়া ৮১ মিলিয়ন ডলার ফেরত পেতে নিউইয়র্কের ম্যানহাটান ডিসট্রিক্ট আদালতে যে মামলা করেছিল বাংলাদেশ সেটিই চলমান আছে।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকে মুখপাত্র সিরাজুল ইসলাম সংবাদমাধ্যমকে বলেছেন, আমরা মনে করি এটি আগের মামলারই ধারাবাহিকতা। আর রিজাল ব্যাংকের কর্মকর্তাদের রিজার্ভ চুরির সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগ সেখানকার আদালতে আগেই প্রমাণ হয়েছিল।

নতুন করে আমরা কিছু করিনি। ফলে এটি এখনো পরিষ্কার নয় যে, মাকাতির আদালত থেকে ঠিক কোন মামলায় রিজাল ব্যাংককে তলব করা হয়েছে। কারণ ফিলিপাইনেই এ সংক্রান্ত অন্তত বারোটি মামলা হয়েছিল এবং কিছু কর্মকর্তার বিরুদ্ধে কারাদণ্ডসহ শাস্তিমূলক ব্যবস্থাও নেওয়া হয়।

প্রসঙ্গত ২০১৬ সালে বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ থেকে আট কোটি দশ লাখ ডলার চুরি হয়। এই অর্থ ফিলিপাইনের মাকাতি শহরে রিজাল ব্যাংকের শাখায় চারটি ভুয়া হিসাবে যায় এবং সেখান থেকে দ্রুত অর্থ উত্তোলন করা হয়। পরে চুরি হওয়া অর্থের মধ্যে মাত্র ১৫ মিলিয়ন ডলার পুনরুদ্ধার সম্ভব হয়।

রিজার্ভ চুরি: ফিলিপাইনের আদালতে রিজাল ব্যাংককে তলব

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
১৩ জানুয়ারি ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ চুরির ঘটনায় ফিলিপাইনের মাকাতির বিচার আদালতে হাজির হওয়ার নোটিশ পেয়েছে রিজাল কমার্শিয়াল ব্যাংকিং করপোরেশন।

ব্যাংকটি এ নোটিশ পাওয়ার কথা স্বীকার করেছে। ব্যাংকটির বিরুদ্ধে বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় ব্যাংক যে অভিযোগ করেছিল তার ভিত্তিতেই ডাকা হয়েছে। খবর রয়টার্স।

বাংলাদেশ ব্যাংক বলছে, ২০১৯ সালের ফেব্রুয়ারিতে যুক্তরাষ্ট্রের ফেডারেল রিজার্ভ ব্যাংকে রাখা রিজার্ভ থেকে চুরি হওয়া ৮১ মিলিয়ন ডলার ফেরত পেতে নিউইয়র্কের ম্যানহাটান ডিসট্রিক্ট আদালতে যে মামলা করেছিল বাংলাদেশ সেটিই চলমান আছে।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকে মুখপাত্র সিরাজুল ইসলাম সংবাদমাধ্যমকে বলেছেন, আমরা মনে করি এটি আগের মামলারই ধারাবাহিকতা। আর রিজাল ব্যাংকের কর্মকর্তাদের রিজার্ভ চুরির সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগ সেখানকার আদালতে আগেই প্রমাণ হয়েছিল।

নতুন করে আমরা কিছু করিনি। ফলে এটি এখনো পরিষ্কার নয় যে, মাকাতির আদালত থেকে ঠিক কোন মামলায় রিজাল ব্যাংককে তলব করা হয়েছে। কারণ ফিলিপাইনেই এ সংক্রান্ত অন্তত বারোটি মামলা হয়েছিল এবং কিছু কর্মকর্তার বিরুদ্ধে কারাদণ্ডসহ শাস্তিমূলক ব্যবস্থাও নেওয়া হয়।

প্রসঙ্গত ২০১৬ সালে বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ থেকে আট কোটি দশ লাখ ডলার চুরি হয়। এই অর্থ ফিলিপাইনের মাকাতি শহরে রিজাল ব্যাংকের শাখায় চারটি ভুয়া হিসাবে যায় এবং সেখান থেকে দ্রুত অর্থ উত্তোলন করা হয়। পরে চুরি হওয়া অর্থের মধ্যে মাত্র ১৫ মিলিয়ন ডলার পুনরুদ্ধার সম্ভব হয়।