স্টল-প্যাভিলিয়ন ভাড়া বাড়ছে
jugantor
ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলা-২০২২
স্টল-প্যাভিলিয়ন ভাড়া বাড়ছে

  সাদ্দাম হোসেন ইমরান  

০৪ অক্টোবর ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

পহেলা জানুয়ারি থেকে পূর্বাচলে শুরু হওয়া ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলায় সব ধরনের স্টল-প্যাভিলিয়নের ভাড়া বাড়ানো হয়েছে। একই সঙ্গে কমানো হয়েছে মেলার সময়। দর্শনার্থীদের প্রবেশ ও গাড়ি পার্কিং ফি অপরিবর্তিত রাখা হয়েছে। বাণিজ্য মেলার স্টিয়ারিং কমিটির ২য় সভার কার্যবিবরণী সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

গত ২১ সেপ্টেম্বর বাণিজ্য সচিব তপন কান্তি ঘোষের সভাপতিত্বে ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলার স্টিয়ারিং কমিটির সভা হয়। সভায় মেলার স্থান, স্টল-প্যাভিলিয়ন ভাড়া, আবেদন প্রসেসিং ফি, জামানত, দর্শনার্থীদের প্রবেশ ফি, মেলার সময়, গাড়িপার্কিং ফির বিষয়ে সিদ্ধান্ত হয়।

কার্যবিবরণী সূত্রে জানা গেছে, গত বছর আগারগাঁওয়ের শেরেবাংলা নগরে অনুষ্ঠিত বাণিজ্য মেলায় প্যাভিলিয়ন, মিনি প্যাভিলিয়ন, প্রিমিয়ার স্টল, সাধারণ স্টল, ফুড স্টল ও রেস্টুরেন্ট ছিল ৪৮৩টি। পূর্বাচলের বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশ-চায়না ফ্রেন্ডশিপ এক্সিবিশন সেন্টারে (বিবিসিএফইসি) ২৮৪টি স্টল, প্যাভিলিয়ন, ফুডস্টল ও রেস্তোরাঁ থাকবে। এছাড়া প্যাভিলিয়ন, মিনি প্যাভিলিয়নের আয়তনে পরিবর্তন ও ভাড়া বাড়ানো হয়েছে। যেমন গত বছর প্রিমিয়ার প্যাভিলিয়নের আয়তন ছিল আড়াই হাজার বর্গফুট। ভাড়া ছিল ১১ লাখ ৫০ হাজার টাকা। আগামী মেলায় ২ হাজার ৩৪০ বর্গফুটের প্রিমিয়ার প্যাভিলিয়নের নিলাম মূল্য ধরা হয়েছে সাড়ে ১৭ লাখ টাকা। একইভাবে ৪০০ বর্গফুটের সাধারণ স্টলের ভাড়া ২ লাখ ২০ হাজার থেকে বাড়িয়ে ৩ লাখ ১০ হাজার টাকা করা হয়েছে। আর ৬২৫ বর্গফুটের ফুডস্টলের ভাড়া ২ লাখ ৬০ হাজার থেকে বাড়িয়ে ৪ লাখ ৮৪ হাজার ৩৭৫ টাকা করা হয়েছে। অবশ্য স্টল-প্যাভিলিয়নের জামানত কমানো হয়েছে। আগে বরাদ্দ মূল্যের ৪০ শতাংশ অর্থ নিরাপত্তা জামানত দিতে হতো। এটি কমিয়ে ২৫ শতাংশ করা হয়েছে।

কার্যবিবরণী সূত্রে জানা গেছে, দর্শনার্থীদের প্রবেশ ফি গত বছরের মতোই রাখা হয়েছে। প্রাপ্তবয়স্কদের মেলায় প্রবেশের টিকিট মূল্য ৪০ টাকা এবং অপ্রাপ্ত বয়স্কদের ২০ টাকা করা হয়েছে। গাড়ির পার্কিং ফিও আগের মতো রাখা হয়েছে। প্রাইভেট কারের পার্কিং ফি ৩০ টাকা এবং মোটরসাইকেলের ২০ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। অন্যদিকে মেলার সময় এক ঘণ্টা কমানো হয়েছে। রাত ১০টার পরিবর্তে মেলা রাত ৯টায় বন্ধ হবে। অবশ্য সাপ্তাহিক ছুটির দিনে রাত ১০টা পর্যন্ত মেলা চলবে।

মেলা আয়োজক রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরো (ইপিবি) সূত্রে জানা গেছে, বঙ্গবন্ধু জন্মশতবার্ষিকী, স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী এবং সরকারের উন্নয়ন কার্যক্রমকে প্রাধান্য দিয়ে মেলার মূল ফটক ও স্টল-প্যাভিলিয়ন নির্মাণ করা হবে। মহিলা, প্রতিবন্ধী, সুবিধাবঞ্চিত ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী, তাঁতশিল্প, বস্ত্রশিল্প ও হস্তশিল্পের জন্য ১৫টি সাধারণ স্টল বরাদ্দ থাকবে। এছাড়া মেলায় বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ, পর্যটন করপোরেশন, টিসিবির পৃথক বুথ রাখা হবে।

জানতে চাইলে ইপিবির সচিব ইফতেখার আহমেদ চৌধুরী বলেন, স্থানের অভাবে মেলায় স্টল-প্যাভিলিয়নের সংখ্যা কমানো হচ্ছে। শেরেবাংলা নগরে ৩০ একর জায়গাজুড়ে মেলা হতো। পূর্বাচলের বিবিসিএফইসিতে ২০ একর জায়গা রয়েছে। এর মধ্যে দুটি হলের আয়তন সাড়ে ৫ একরের মতো। খোলা জায়গায় স্টল-প্যাভিলিয়ন বানালে ১২-১৩ একর জায়গা ব্যবহার করা সম্ভব। তিনি বলেন, এবার বাণিজ্য মেলাকে প্রকৃত অর্থে আন্তর্জাতিক রূপ দেওয়ার পরিকল্পনা আছে। কেবল প্রকৃত ব্যবসায়ীদের স্টল-প্যাভিলিয়ন বরাদ্দ দেওয়া হবে।

ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলা-২০২২

স্টল-প্যাভিলিয়ন ভাড়া বাড়ছে

 সাদ্দাম হোসেন ইমরান 
০৪ অক্টোবর ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

পহেলা জানুয়ারি থেকে পূর্বাচলে শুরু হওয়া ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলায় সব ধরনের স্টল-প্যাভিলিয়নের ভাড়া বাড়ানো হয়েছে। একই সঙ্গে কমানো হয়েছে মেলার সময়। দর্শনার্থীদের প্রবেশ ও গাড়ি পার্কিং ফি অপরিবর্তিত রাখা হয়েছে। বাণিজ্য মেলার স্টিয়ারিং কমিটির ২য় সভার কার্যবিবরণী সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

গত ২১ সেপ্টেম্বর বাণিজ্য সচিব তপন কান্তি ঘোষের সভাপতিত্বে ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলার স্টিয়ারিং কমিটির সভা হয়। সভায় মেলার স্থান, স্টল-প্যাভিলিয়ন ভাড়া, আবেদন প্রসেসিং ফি, জামানত, দর্শনার্থীদের প্রবেশ ফি, মেলার সময়, গাড়িপার্কিং ফির বিষয়ে সিদ্ধান্ত হয়।

কার্যবিবরণী সূত্রে জানা গেছে, গত বছর আগারগাঁওয়ের শেরেবাংলা নগরে অনুষ্ঠিত বাণিজ্য মেলায় প্যাভিলিয়ন, মিনি প্যাভিলিয়ন, প্রিমিয়ার স্টল, সাধারণ স্টল, ফুড স্টল ও রেস্টুরেন্ট ছিল ৪৮৩টি। পূর্বাচলের বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশ-চায়না ফ্রেন্ডশিপ এক্সিবিশন সেন্টারে (বিবিসিএফইসি) ২৮৪টি স্টল, প্যাভিলিয়ন, ফুডস্টল ও রেস্তোরাঁ থাকবে। এছাড়া প্যাভিলিয়ন, মিনি প্যাভিলিয়নের আয়তনে পরিবর্তন ও ভাড়া বাড়ানো হয়েছে। যেমন গত বছর প্রিমিয়ার প্যাভিলিয়নের আয়তন ছিল আড়াই হাজার বর্গফুট। ভাড়া ছিল ১১ লাখ ৫০ হাজার টাকা। আগামী মেলায় ২ হাজার ৩৪০ বর্গফুটের প্রিমিয়ার প্যাভিলিয়নের নিলাম মূল্য ধরা হয়েছে সাড়ে ১৭ লাখ টাকা। একইভাবে ৪০০ বর্গফুটের সাধারণ স্টলের ভাড়া ২ লাখ ২০ হাজার থেকে বাড়িয়ে ৩ লাখ ১০ হাজার টাকা করা হয়েছে। আর ৬২৫ বর্গফুটের ফুডস্টলের ভাড়া ২ লাখ ৬০ হাজার থেকে বাড়িয়ে ৪ লাখ ৮৪ হাজার ৩৭৫ টাকা করা হয়েছে। অবশ্য স্টল-প্যাভিলিয়নের জামানত কমানো হয়েছে। আগে বরাদ্দ মূল্যের ৪০ শতাংশ অর্থ নিরাপত্তা জামানত দিতে হতো। এটি কমিয়ে ২৫ শতাংশ করা হয়েছে।

কার্যবিবরণী সূত্রে জানা গেছে, দর্শনার্থীদের প্রবেশ ফি গত বছরের মতোই রাখা হয়েছে। প্রাপ্তবয়স্কদের মেলায় প্রবেশের টিকিট মূল্য ৪০ টাকা এবং অপ্রাপ্ত বয়স্কদের ২০ টাকা করা হয়েছে। গাড়ির পার্কিং ফিও আগের মতো রাখা হয়েছে। প্রাইভেট কারের পার্কিং ফি ৩০ টাকা এবং মোটরসাইকেলের ২০ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। অন্যদিকে মেলার সময় এক ঘণ্টা কমানো হয়েছে। রাত ১০টার পরিবর্তে মেলা রাত ৯টায় বন্ধ হবে। অবশ্য সাপ্তাহিক ছুটির দিনে রাত ১০টা পর্যন্ত মেলা চলবে।

মেলা আয়োজক রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরো (ইপিবি) সূত্রে জানা গেছে, বঙ্গবন্ধু জন্মশতবার্ষিকী, স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী এবং সরকারের উন্নয়ন কার্যক্রমকে প্রাধান্য দিয়ে মেলার মূল ফটক ও স্টল-প্যাভিলিয়ন নির্মাণ করা হবে। মহিলা, প্রতিবন্ধী, সুবিধাবঞ্চিত ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী, তাঁতশিল্প, বস্ত্রশিল্প ও হস্তশিল্পের জন্য ১৫টি সাধারণ স্টল বরাদ্দ থাকবে। এছাড়া মেলায় বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ, পর্যটন করপোরেশন, টিসিবির পৃথক বুথ রাখা হবে।

জানতে চাইলে ইপিবির সচিব ইফতেখার আহমেদ চৌধুরী বলেন, স্থানের অভাবে মেলায় স্টল-প্যাভিলিয়নের সংখ্যা কমানো হচ্ছে। শেরেবাংলা নগরে ৩০ একর জায়গাজুড়ে মেলা হতো। পূর্বাচলের বিবিসিএফইসিতে ২০ একর জায়গা রয়েছে। এর মধ্যে দুটি হলের আয়তন সাড়ে ৫ একরের মতো। খোলা জায়গায় স্টল-প্যাভিলিয়ন বানালে ১২-১৩ একর জায়গা ব্যবহার করা সম্ভব। তিনি বলেন, এবার বাণিজ্য মেলাকে প্রকৃত অর্থে আন্তর্জাতিক রূপ দেওয়ার পরিকল্পনা আছে। কেবল প্রকৃত ব্যবসায়ীদের স্টল-প্যাভিলিয়ন বরাদ্দ দেওয়া হবে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন