নতুন ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল
jugantor
নতুন ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল

  স্পোর্টস রিপোর্টার  

০৭ জানুয়ারি ২০১৯, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

বাংলাদেশের ২৯তম যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী হচ্ছেন জাহিদ আহসান রাসেল এমপি। রোববার মন্ত্রী পরিষদ সচিব সংবাদ সম্মেলনে নতুন মন্ত্রিসভার তালিকা পড়ে শোনান। আজ মন্ত্রিসভার অন্যান্য সদস্যের সঙ্গে শপথ নেবেন তিনি। গাজীপুর-২ আসন থেকে তিনবারের নির্বাচিত জাহিদ আহসান রাসেল টানা দু’বার যুব ও ক্রীড়াবিষয়ক সংসদীয় কমিটির চেয়ারম্যান ছিলেন। জাহিদ আহসান রাসেলের জন্ম ১৯৭৮ সালে গাজীপুর জেলার গাজীপুর সদর উপজেলার হায়দ্রারাবাদ গ্রামে। তৃতীয়বার নির্বাচিত এ সংসদ সদস্যের বাবা সাবেক সংসদ সদস্য ও বীর মুক্তিযোদ্ধা আহসানউল্লাহ মাস্টার। গাজীপুর-২ আসনে আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য ছিলেন তিনি। ২০০৪ সালের ৭ মে জাতীয় শ্রমিক লীগের কার্যকরী সভাপতি থাকাকালীন সন্ত্রাসীদের ব্রাশফায়ারে নিহত হন আহসানউল্লাহ মাস্টার।

গত কয়েকদিন ধরে নিজেদের পছন্দের ব্যক্তিকে যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী করার জন্য দৌড়ঝাঁপ শুরু হয়েছিল ক্রীড়াঙ্গনে। বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের (বাফুফে) কয়েকজন কর্মকর্তা ফুটবল সংশ্লিষ্ট এক সংসদ সদস্যকে ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী করার জন্য বিভিন্ন মহলে ধরনা দিয়েছিলেন। তাদের সেই প্রচেষ্টা সফল হয়নি। সব জল্পনা-কল্পনার অবসান ঘটিয়ে যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী হলেন জাহিদ আহসান রাসেল এমপি। ১৯৮৪ সালে যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয় প্রতিষ্ঠিত হওয়ার আগে ক্রীড়া মন্ত্রণালয় শিক্ষা ও সংস্কৃতির সঙ্গে যুক্ত ছিল। ১৯৭২ সালে প্রথম ক্রীড়ামন্ত্রী হয়েছিলেন অধ্যাপক ইউসুফ আলী। ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী হিসেবে ১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগের ওবায়দুল কাদের, ২০০১ সালে বিএনপির প্রয়াত ফজলুর রহমান পটল, ২০০৯ সালে মহাজোট সরকারের আহাদ আলী সরকার এবং ২০১৪ সালে বীরেন শিকদার মেয়াদ (পাঁচ বছর) পূর্ণ করেছেন।

ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী ও উপদেষ্টা

১. অধ্যাপক ইউসুফ আলী (মন্ত্রী), ২. তাহের উদ্দীন ঠাকুর (প্রতিমন্ত্রী), ৩. অধ্যাপক আবুল ফজল (উপদেষ্টা), ৪. শামসুল হুদা চৌধুরী (মন্ত্রী) ৫. অ্যাডভোকেট আমিরুল ইসলাম কালাম (প্রতিমন্ত্রী), ৬. নুর মোহাম্মদ (প্রতিমন্ত্রী), ৭. জাকির খান চৌধুরী (মন্ত্রী), ৮. সুনীল গুপ্ত (মন্ত্রী), ৯. শেখ শহিদুল ইসলাম (প্রতিমন্ত্রী), ১০. লে. কর্নেল (অব.) এএইচএম গাফফার (প্রতিমন্ত্রী), ১১. মোস্তফা জামান হায়দার (প্রতিমন্ত্রী), ১২. তাজুল ইসলাম চৌধুরী (প্রতিমন্ত্রী), ১৩. রুহুল আমিন হাওলাদার (প্রতিমন্ত্রী), ১৪. নিতাই রায় চৌধুরী (প্রতিমন্ত্রী), ১৫. আলমগীর এমএ কবির (উপদেষ্টা), ১৬. মির্জা আব্বাস (প্রতিমন্ত্রী), ১৭. সাদেক হোসেন খোকা (যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী), ১৮. অধ্যাপক শামসুল হক (উপদেষ্টা), ১৯. ওবায়দুল কাদের (যুব, ক্রীড়া ও সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী), ২০. এএসএম শাহজাহান (উপদেষ্টা), ২১. ফজলুর রহমান পটল (যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী), ২২. সফি শামি (উপদেষ্টা), ২৩. শফিকুল হক চৌধুরী (উপদেষ্টা), ২৪. তপন চৌধুরী (উপদেষ্টা), ২৫. মাহবুব জামিল (উপদেষ্টা), ২৬. আহাদ আলী সরকার (যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী), ২৭. মুজিবুল হক চুন্নু (যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী), ২৮. বীরেন শিকদার ২৯. জাহিদ আহসান রাসেল।

নতুন ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল

 স্পোর্টস রিপোর্টার 
০৭ জানুয়ারি ২০১৯, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

বাংলাদেশের ২৯তম যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী হচ্ছেন জাহিদ আহসান রাসেল এমপি। রোববার মন্ত্রী পরিষদ সচিব সংবাদ সম্মেলনে নতুন মন্ত্রিসভার তালিকা পড়ে শোনান। আজ মন্ত্রিসভার অন্যান্য সদস্যের সঙ্গে শপথ নেবেন তিনি। গাজীপুর-২ আসন থেকে তিনবারের নির্বাচিত জাহিদ আহসান রাসেল টানা দু’বার যুব ও ক্রীড়াবিষয়ক সংসদীয় কমিটির চেয়ারম্যান ছিলেন। জাহিদ আহসান রাসেলের জন্ম ১৯৭৮ সালে গাজীপুর জেলার গাজীপুর সদর উপজেলার হায়দ্রারাবাদ গ্রামে। তৃতীয়বার নির্বাচিত এ সংসদ সদস্যের বাবা সাবেক সংসদ সদস্য ও বীর মুক্তিযোদ্ধা আহসানউল্লাহ মাস্টার। গাজীপুর-২ আসনে আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য ছিলেন তিনি। ২০০৪ সালের ৭ মে জাতীয় শ্রমিক লীগের কার্যকরী সভাপতি থাকাকালীন সন্ত্রাসীদের ব্রাশফায়ারে নিহত হন আহসানউল্লাহ মাস্টার।

গত কয়েকদিন ধরে নিজেদের পছন্দের ব্যক্তিকে যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী করার জন্য দৌড়ঝাঁপ শুরু হয়েছিল ক্রীড়াঙ্গনে। বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের (বাফুফে) কয়েকজন কর্মকর্তা ফুটবল সংশ্লিষ্ট এক সংসদ সদস্যকে ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী করার জন্য বিভিন্ন মহলে ধরনা দিয়েছিলেন। তাদের সেই প্রচেষ্টা সফল হয়নি। সব জল্পনা-কল্পনার অবসান ঘটিয়ে যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী হলেন জাহিদ আহসান রাসেল এমপি। ১৯৮৪ সালে যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয় প্রতিষ্ঠিত হওয়ার আগে ক্রীড়া মন্ত্রণালয় শিক্ষা ও সংস্কৃতির সঙ্গে যুক্ত ছিল। ১৯৭২ সালে প্রথম ক্রীড়ামন্ত্রী হয়েছিলেন অধ্যাপক ইউসুফ আলী। ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী হিসেবে ১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগের ওবায়দুল কাদের, ২০০১ সালে বিএনপির প্রয়াত ফজলুর রহমান পটল, ২০০৯ সালে মহাজোট সরকারের আহাদ আলী সরকার এবং ২০১৪ সালে বীরেন শিকদার মেয়াদ (পাঁচ বছর) পূর্ণ করেছেন।

ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী ও উপদেষ্টা

১. অধ্যাপক ইউসুফ আলী (মন্ত্রী), ২. তাহের উদ্দীন ঠাকুর (প্রতিমন্ত্রী), ৩. অধ্যাপক আবুল ফজল (উপদেষ্টা), ৪. শামসুল হুদা চৌধুরী (মন্ত্রী) ৫. অ্যাডভোকেট আমিরুল ইসলাম কালাম (প্রতিমন্ত্রী), ৬. নুর মোহাম্মদ (প্রতিমন্ত্রী), ৭. জাকির খান চৌধুরী (মন্ত্রী), ৮. সুনীল গুপ্ত (মন্ত্রী), ৯. শেখ শহিদুল ইসলাম (প্রতিমন্ত্রী), ১০. লে. কর্নেল (অব.) এএইচএম গাফফার (প্রতিমন্ত্রী), ১১. মোস্তফা জামান হায়দার (প্রতিমন্ত্রী), ১২. তাজুল ইসলাম চৌধুরী (প্রতিমন্ত্রী), ১৩. রুহুল আমিন হাওলাদার (প্রতিমন্ত্রী), ১৪. নিতাই রায় চৌধুরী (প্রতিমন্ত্রী), ১৫. আলমগীর এমএ কবির (উপদেষ্টা), ১৬. মির্জা আব্বাস (প্রতিমন্ত্রী), ১৭. সাদেক হোসেন খোকা (যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী), ১৮. অধ্যাপক শামসুল হক (উপদেষ্টা), ১৯. ওবায়দুল কাদের (যুব, ক্রীড়া ও সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী), ২০. এএসএম শাহজাহান (উপদেষ্টা), ২১. ফজলুর রহমান পটল (যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী), ২২. সফি শামি (উপদেষ্টা), ২৩. শফিকুল হক চৌধুরী (উপদেষ্টা), ২৪. তপন চৌধুরী (উপদেষ্টা), ২৫. মাহবুব জামিল (উপদেষ্টা), ২৬. আহাদ আলী সরকার (যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী), ২৭. মুজিবুল হক চুন্নু (যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী), ২৮. বীরেন শিকদার ২৯. জাহিদ আহসান রাসেল।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন