১০৫ বছর বয়সে ১০০ মিটারে স্বর্ণজয়
jugantor
১০৫ বছর বয়সে ১০০ মিটারে স্বর্ণজয়

  ক্রীড়া ডেস্ক  

২২ জুন ২০২২, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

বয়স ১০০ পেরিয়েছে। এই বয়সেই দৌড়ে রেকর্ড। ভারতের অ্যাথলেটিক্স সংস্থা এবারই প্রথম আয়োজন করেছে ওপেন মাস্টার্স অ্যাথলেটিক্স। সেখানে ৪৫.৪০ সেকেন্ডে ১০০ মিটার দৌড়ে তাক লাগিয়ে দিয়েছেন রামবাই।

১০০ ও ২০০ মিটারে রেকর্ড টাইমিংয়ে স্বর্ণ জিতেছেন রামবাই। বলেছেন, ‘আবার দৌড়াতে চাই। যত বেশি পারব দৌড়াব। এত দিন তাহলে দৌড়াননি কেন? বলেছেন, ‘আরে, আমি তো তৈরি ছিলাম। কেউ সুযোগই দিচ্ছিল না।’ এবার বিদেশে দৌড়ানোর চেষ্টা করছেন রামবাই। ১০৫ বছর বয়সে পাসপোর্ট বানানোর জন্য উঠেপড়ে লেগেছেন তিনি।

১০০ মিটার দৌড়ে রামবাইয়ের প্রতিপক্ষ ছিলেন তিনি নিজেই! ১০০ বছরের বেশি বয়সি বিভাগে নাম দিয়েছিলেন। এই বিভাগে আর কোনো প্রতিযোগী ছিলেন না। ফলে কত কম সময়ে তিনি দৌড় শেষ করেন, সেটাই দেখার ছিল। রামবাই হতাশ করেননি। দৌড় শেষ হওয়া মাত্র হাজার হাজার দর্শক উচ্ছ্বাসে ফেটে পড়েন। অনেকেই এসে রামবাইকে শুভেচ্ছা জানান। কেউ কেউ সেলফি তোলেন।

নাতনির উৎসাহে গত বছর নভেম্বরে প্রথম দৌড়ে অংশ নেন রামবাই।

এর পর মহারাষ্ট্র, কর্নাটক, কেরলে বিভিন্ন প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়ে ডজনখানেকের বেশি পদক জিতেছেন। দিল্লি থেকে ১৫০ কিমি. দূরে কাড়মা গ্রামের বাসিন্দা রামবাই। চাষের মাঠে খালি পায়ে দৌড়াতে ভালো লাগত। সম্প্রতি জুতা ও ট্র্যাকসুট পরে দৌড় শুরু করেছেন। এই বয়সেও সাফল্যের রহস্য কী? রামবাই জানিয়েছেন, দই ও দুধ খেয়েই তিনি সুস্থ। দিনে অন্তত দুবার আধা লিটার বিশুদ্ধ দুধ খান। এছাড়া প্রতিদিন ২৫০ গ্রাম ঘি এবং ৫০০ গ্রাম দই খান। ভাত প্রায় ছুঁয়েই দেখেন না।

১০৫ বছর বয়সে ১০০ মিটারে স্বর্ণজয়

 ক্রীড়া ডেস্ক 
২২ জুন ২০২২, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

বয়স ১০০ পেরিয়েছে। এই বয়সেই দৌড়ে রেকর্ড। ভারতের অ্যাথলেটিক্স সংস্থা এবারই প্রথম আয়োজন করেছে ওপেন মাস্টার্স অ্যাথলেটিক্স। সেখানে ৪৫.৪০ সেকেন্ডে ১০০ মিটার দৌড়ে তাক লাগিয়ে দিয়েছেন রামবাই।

১০০ ও ২০০ মিটারে রেকর্ড টাইমিংয়ে স্বর্ণ জিতেছেন রামবাই। বলেছেন, ‘আবার দৌড়াতে চাই। যত বেশি পারব দৌড়াব। এত দিন তাহলে দৌড়াননি কেন? বলেছেন, ‘আরে, আমি তো তৈরি ছিলাম। কেউ সুযোগই দিচ্ছিল না।’ এবার বিদেশে দৌড়ানোর চেষ্টা করছেন রামবাই। ১০৫ বছর বয়সে পাসপোর্ট বানানোর জন্য উঠেপড়ে লেগেছেন তিনি।

১০০ মিটার দৌড়ে রামবাইয়ের প্রতিপক্ষ ছিলেন তিনি নিজেই! ১০০ বছরের বেশি বয়সি বিভাগে নাম দিয়েছিলেন। এই বিভাগে আর কোনো প্রতিযোগী ছিলেন না। ফলে কত কম সময়ে তিনি দৌড় শেষ করেন, সেটাই দেখার ছিল। রামবাই হতাশ করেননি। দৌড় শেষ হওয়া মাত্র হাজার হাজার দর্শক উচ্ছ্বাসে ফেটে পড়েন। অনেকেই এসে রামবাইকে শুভেচ্ছা জানান। কেউ কেউ সেলফি তোলেন।

নাতনির উৎসাহে গত বছর নভেম্বরে প্রথম দৌড়ে অংশ নেন রামবাই।

এর পর মহারাষ্ট্র, কর্নাটক, কেরলে বিভিন্ন প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়ে ডজনখানেকের বেশি পদক জিতেছেন। দিল্লি থেকে ১৫০ কিমি. দূরে কাড়মা গ্রামের বাসিন্দা রামবাই। চাষের মাঠে খালি পায়ে দৌড়াতে ভালো লাগত। সম্প্রতি জুতা ও ট্র্যাকসুট পরে দৌড় শুরু করেছেন। এই বয়সেও সাফল্যের রহস্য কী? রামবাই জানিয়েছেন, দই ও দুধ খেয়েই তিনি সুস্থ। দিনে অন্তত দুবার আধা লিটার বিশুদ্ধ দুধ খান। এছাড়া প্রতিদিন ২৫০ গ্রাম ঘি এবং ৫০০ গ্রাম দই খান। ভাত প্রায় ছুঁয়েই দেখেন না।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন