আবারও ঢাকার বাইরে খেলা
jugantor
আবারও ঢাকার বাইরে খেলা

  স্পোর্টস রিপোর্টার  

২৭ জুলাই ২০১৮, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

প্রিমিয়ার ফুটবল লিগের গত আসরে খেলা হয়েছে একটি ভেন্যুতে। ১২ দলই খেলেছে সবেধন নীলমণি বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে। এবার বিকেন্দ্রীকরণ করা হচ্ছে। আটটি মূল ভেন্যু নির্ধারণ করা হয়েছে। থাকছে একটি বিকল্প ভেন্যুও। কোনো কারণে আট ভেন্যুর একটিতে সমস্যা হলে খেলা হবে বিকল্প ভেন্যুতে। তবে সবগুলোতে খেলা গড়াতে সমস্যা হলেও নিদেনপক্ষে পাঁচটি ভেন্যুতে খেলা হবে বলে বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন (বাফুফে) সূত্রে জানা গেছে। আগের আসরগুলোতেও ঢাকার বাইরে খেলা হয়েছে। বুধবার শুরু হয়েছে প্রিমিয়ার লিগের দলবদল। ২৩ নভেম্বর মাঠে গড়াবে লিগের খেলা। তার আগে ২ অক্টোবর ফেডারেশন কাপ দিয়ে শুরু হবে ফুটবলের নতুন মৌসুম। দলবদলের প্রথম দিনই তা পেছানোর দাবি জানায় চার ক্লাব। বাকি নয়টি ক্লাবের পক্ষ থেকে এই দাবির সঙ্গে সম্পৃক্ততার খবর পাওয়া যায়নি। প্রিমিয়ার লিগে এর আগে সর্বোচ্চ পাঁচটি ভেন্যুতে খেলা হয়েছিল। এবারই সর্বাধিক আটটি ভেন্যু নির্ধারণ করা হয়েছে। ১৩ ক্লাব ভেন্যুগুলো ভাগ করে নিয়েছে। ময়মনসিংহ স্টেডিয়ামকে আরামবাগ ক্রীড়া সংঘ ও সাইফ স্পোর্টিং ক্লাব এবং বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামকে ঢাকা আবাহনী লিমিটেড, মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাব ও শেখ জামাল ধানমণ্ডি ক্লাব হোম ভেন্যু হিসেবে নিয়েছে। এছাড়া কমলাপুর বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ সিপাহী মোস্তফা কামাল স্টেডিয়াম রহমতগঞ্জ ও ব্রাদার্স ইউনিয়ন, গোপালগঞ্জের শেখ মনি স্টেডিয়াম শেখ রাসেল ও মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, নীলফামারী স্টেডিয়াম বসুন্ধরা কিংস, নোয়াখালী স্টেডিয়াম নোফেল স্পোর্টিং ক্লাব, চট্টগ্রামের এমএ আজিজ স্টেডিয়াম চট্টগ্রাম আবাহনী এবং রাজশাহী স্টেডিয়ামকে বিজেএমসি নিজেদের হোম ভেন্যু দেখিয়েছে। বিকল্প ভেন্যু হিসেবে রাখা হয়েছে সিলেট জেলা স্টেডিয়ামকে। বিকল্প ভেন্যু বাদে আটটি স্টেডিয়ামের মধ্যে অন্তত পাঁচটিতে সবসময় খেলা থাকবে বলে জানা গেছে। ম্যাচের

দিনক্ষণেও পরিবর্তন আনা হয়েছে। আগে সপ্তাহের প্রায় প্রতিদিনই খেলা হতো। আবার অনেক সময় সরকারি ছুটির দিনে খেলা থাকত না মাঠে। এবার নিয়মের হেরফের করা হয়েছে। বাফুফে সূত্রে জানা গেছে, শুক্র, শনি ও রোববার এই তিনদিন খেলা হবে। বাকি চারদিন খেলোয়াড়দের

যাতায়াত ও অনুশীলনের জন্য

থাকবে। সোমবার সভায় বসতে পারেন লিগ কমিটির কর্মকর্তারা। সেখানে বিষয়টি চূড়ান্ত হবে।

এদিকে জাতীয় সংসদ নির্বাচন নিয়ে দুর্ভাবনায় পড়েছেন ক্লাব কর্মকর্তারা। এ বিষয়ে বাফুফের সাধারণ সম্পাদক আবু নাইম সোহাগ বলেন, ‘লিগে নির্বাচনের প্রভাব পড়বে না। ঢাকার বাইরে খেলা হলে স্থানীয় ডিএফএর সহযোগিতা চাওয়া হবে। তাই খুব একটা সমস্যা হবে না বলে আমরা মনে করছি। তাছাড়া চারজন বিদেশির বিষয়েও কথা উঠেছে। এরমধ্যে একজন এশিয়ান কোটা ও বাকিগুলো অন্য দেশের। চারজন বিদেশি রেজিস্ট্রেশন করলেও খেলতে পারবেন তিনজন। তবে যদি ক্লাবগুলো চায় চারজন বিদেশি খেলাতে, সেক্ষেত্রে সবাইকে এক হয়ে দাবি জানাতে হবে। কারণ লিগের সবকিছ–ই নির্ভর করছে ক্লাবগুলোর চাহিদার ওপর।’

আবারও ঢাকার বাইরে খেলা

 স্পোর্টস রিপোর্টার 
২৭ জুলাই ২০১৮, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

প্রিমিয়ার ফুটবল লিগের গত আসরে খেলা হয়েছে একটি ভেন্যুতে। ১২ দলই খেলেছে সবেধন নীলমণি বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে। এবার বিকেন্দ্রীকরণ করা হচ্ছে। আটটি মূল ভেন্যু নির্ধারণ করা হয়েছে। থাকছে একটি বিকল্প ভেন্যুও। কোনো কারণে আট ভেন্যুর একটিতে সমস্যা হলে খেলা হবে বিকল্প ভেন্যুতে। তবে সবগুলোতে খেলা গড়াতে সমস্যা হলেও নিদেনপক্ষে পাঁচটি ভেন্যুতে খেলা হবে বলে বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন (বাফুফে) সূত্রে জানা গেছে। আগের আসরগুলোতেও ঢাকার বাইরে খেলা হয়েছে। বুধবার শুরু হয়েছে প্রিমিয়ার লিগের দলবদল। ২৩ নভেম্বর মাঠে গড়াবে লিগের খেলা। তার আগে ২ অক্টোবর ফেডারেশন কাপ দিয়ে শুরু হবে ফুটবলের নতুন মৌসুম। দলবদলের প্রথম দিনই তা পেছানোর দাবি জানায় চার ক্লাব। বাকি নয়টি ক্লাবের পক্ষ থেকে এই দাবির সঙ্গে সম্পৃক্ততার খবর পাওয়া যায়নি। প্রিমিয়ার লিগে এর আগে সর্বোচ্চ পাঁচটি ভেন্যুতে খেলা হয়েছিল। এবারই সর্বাধিক আটটি ভেন্যু নির্ধারণ করা হয়েছে। ১৩ ক্লাব ভেন্যুগুলো ভাগ করে নিয়েছে। ময়মনসিংহ স্টেডিয়ামকে আরামবাগ ক্রীড়া সংঘ ও সাইফ স্পোর্টিং ক্লাব এবং বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামকে ঢাকা আবাহনী লিমিটেড, মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাব ও শেখ জামাল ধানমণ্ডি ক্লাব হোম ভেন্যু হিসেবে নিয়েছে। এছাড়া কমলাপুর বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ সিপাহী মোস্তফা কামাল স্টেডিয়াম রহমতগঞ্জ ও ব্রাদার্স ইউনিয়ন, গোপালগঞ্জের শেখ মনি স্টেডিয়াম শেখ রাসেল ও মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, নীলফামারী স্টেডিয়াম বসুন্ধরা কিংস, নোয়াখালী স্টেডিয়াম নোফেল স্পোর্টিং ক্লাব, চট্টগ্রামের এমএ আজিজ স্টেডিয়াম চট্টগ্রাম আবাহনী এবং রাজশাহী স্টেডিয়ামকে বিজেএমসি নিজেদের হোম ভেন্যু দেখিয়েছে। বিকল্প ভেন্যু হিসেবে রাখা হয়েছে সিলেট জেলা স্টেডিয়ামকে। বিকল্প ভেন্যু বাদে আটটি স্টেডিয়ামের মধ্যে অন্তত পাঁচটিতে সবসময় খেলা থাকবে বলে জানা গেছে। ম্যাচের

দিনক্ষণেও পরিবর্তন আনা হয়েছে। আগে সপ্তাহের প্রায় প্রতিদিনই খেলা হতো। আবার অনেক সময় সরকারি ছুটির দিনে খেলা থাকত না মাঠে। এবার নিয়মের হেরফের করা হয়েছে। বাফুফে সূত্রে জানা গেছে, শুক্র, শনি ও রোববার এই তিনদিন খেলা হবে। বাকি চারদিন খেলোয়াড়দের

যাতায়াত ও অনুশীলনের জন্য

থাকবে। সোমবার সভায় বসতে পারেন লিগ কমিটির কর্মকর্তারা। সেখানে বিষয়টি চূড়ান্ত হবে।

এদিকে জাতীয় সংসদ নির্বাচন নিয়ে দুর্ভাবনায় পড়েছেন ক্লাব কর্মকর্তারা। এ বিষয়ে বাফুফের সাধারণ সম্পাদক আবু নাইম সোহাগ বলেন, ‘লিগে নির্বাচনের প্রভাব পড়বে না। ঢাকার বাইরে খেলা হলে স্থানীয় ডিএফএর সহযোগিতা চাওয়া হবে। তাই খুব একটা সমস্যা হবে না বলে আমরা মনে করছি। তাছাড়া চারজন বিদেশির বিষয়েও কথা উঠেছে। এরমধ্যে একজন এশিয়ান কোটা ও বাকিগুলো অন্য দেশের। চারজন বিদেশি রেজিস্ট্রেশন করলেও খেলতে পারবেন তিনজন। তবে যদি ক্লাবগুলো চায় চারজন বিদেশি খেলাতে, সেক্ষেত্রে সবাইকে এক হয়ে দাবি জানাতে হবে। কারণ লিগের সবকিছ–ই নির্ভর করছে ক্লাবগুলোর চাহিদার ওপর।’

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন