আড়াইশ’ কোটি টাকায় নির্মিত রেলপথে চলছে তিনটি লোকাল ট্রেন!
jugantor
আড়াইশ’ কোটি টাকায় নির্মিত রেলপথে চলছে তিনটি লোকাল ট্রেন!

  জহুরুল ইসলাম ঠাণ্ডু  

১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব থেকে ঢাকা ও উত্তরবঙ্গের সঙ্গে বৃহত্তর ময়মনসিংহ অঞ্চলের মানুষের সরাসরি রেল যোগাযোগ উন্নয়নের জন্য প্রায় ২৫০ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মাণ করা হয়েছে লিংক রেলপথ।

কিন্তু সরিষাবাড়ীর তারাকান্দি রেলস্টেশন থেকে বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব পর্যন্ত নির্মিত এই রেলপথ দিয়ে তিনটি লোকাল ট্রেন ছাড়া চলাচল করছে না কোনো আন্তঃনগর ট্রেন।

উল্লেখ্য, দীর্ঘদিন ধরে ঢাকা ও উত্তরবঙ্গের সঙ্গে বৃহত্তর ময়মনসিংহ অঞ্চলের সরাসরি ট্রেন যোগাযোগ উন্নয়নের দাবি জানিয়ে আসছিলেন এ অঞ্চলের অধিবাসীরা। একপর্যায়ে জামালপুর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মরহুম অ্যাডভোকেট মতিয়র রহমান তালুকদারের নেতৃত্বে সরিষাবাড়ীর তারাকান্দি রেলস্টেশন থেকে ভুয়াপুর হয়ে বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব পর্যন্ত রেললাইন স্থাপনের দাবিতে আন্দোলন গড়ে তোলা হয়।

এ প্রেক্ষিতে ১৯৯৬ সালের শেষদিকে তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জামালপুরের এক জনসভায় তারাকান্দি রেলস্টেশন থেকে বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব পর্যন্ত মিটারগেজ লিংক রেলপথ স্থাপনের ঘোষণা দেন। পরে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর দেয়া প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী ১৯৯৭-৯৮ অর্থবছরে এ সংক্রান্ত একটি প্রকল্প গ্রহণ করা হয় এবং ২০০০ সালে প্রকল্পের কাজ শুরু হয়।

২০০১ সালে রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় পরিবর্তন হলে প্রকল্পের কাজ স্থবির হয়ে পড়ে। পরবর্তীকালে আওয়ামী লীগ পুনরায় সরকার গঠন করলে প্রকল্পের কাজ শুরু হয় এবং ২০১১ সালে ৫২টি ব্রিজ-কালভার্ট ও ৪টি রেলস্টেশনসহ প্রায় ৪২ কিলোমিটার এ রেললাইনের কাজ শেষ হয়।

২০১২ সালের ৩০ জুন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তারাকান্দি-বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব পর্যন্ত মিটারগেজ লিংক রেললাইন উদ্বোধন শেষে আন্তঃনগর ট্রেন চলাচলের ঘোষণা দেন। এরপর থেকে আন্তঃনগর যমুনা এক্সপ্রেসসহ ৩টি লোকাল ট্রেন নবনির্মিত এ লাইনে চলাচল শুরু করে।

২০১৪ সালে হঠাৎ এই লাইনে আন্তঃনগর যমুনা এক্সপ্রেস ট্রেনের চলাচল বন্ধ করে দেয় রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ। এখন এই লাইনে চট্টগ্রাম থেকে ছেড়ে আসা ফাইভ আপ (চট্টগ্রাম মেইল), দুপুর ২টায় ময়মনসিংহ থেকে ছেড়ে আসা ধলেশ্বরী এক্সপ্রেস এবং রাত ৮টায় ময়মনসিংহ থেকে ছেড়ে আসা অন্য একটি লোকাল ট্রেনসহ মোট ৩টি লোকাল ট্রেন চলাচল করছে।

জনবল সংকটের কারণে ইতিমধ্যে ৪টি স্টেশনের মধ্যে বন্ধ হয়ে গেছে দুটি রেলস্টেশন। রেলস্টেশনগুলো বন্ধ থাকায় যাতায়াতে চরম ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে যাত্রীদের। সরিষাবাড়ী স্টেশন মাস্টার আবদুর রাজ্জাক জানালেন- ময়মনসিংহ, জামালপুর, সরিষাবাড়ী ও তারাকান্দি রেলস্টেশন হয়ে বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব পর্যন্ত চলাচলকারী তিনটি লোকাল ট্রেনের সঙ্গে বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব স্টেশন থেকে ছেড়ে যাওয়া ঢাকা-উত্তরবঙ্গগামী ট্রেনগুলোর সময়সূচির মিল না থাকায় যাত্রীরা ঢাকা ও উত্তরবঙ্গগামী ট্রেনগুলোয় ভ্রমণের সুবিধা ভোগ করতে না পারায় তিন লোকাল ট্রেনে যাতায়াতকারী যাত্রীর সংখ্যা আশঙ্কাজনকভাবে হ্রাস পেয়েছে। বলার অপেক্ষা রাখে না এর ফলে রেল খাতে লোকসানের পরিমাণও বাড়ছে।

যুগান্তর প্রতিনিধি, সরিষাবাড়ী, জামালপুর

আড়াইশ’ কোটি টাকায় নির্মিত রেলপথে চলছে তিনটি লোকাল ট্রেন!

 জহুরুল ইসলাম ঠাণ্ডু 
১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব থেকে ঢাকা ও উত্তরবঙ্গের সঙ্গে বৃহত্তর ময়মনসিংহ অঞ্চলের মানুষের সরাসরি রেল যোগাযোগ উন্নয়নের জন্য প্রায় ২৫০ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মাণ করা হয়েছে লিংক রেলপথ।

কিন্তু সরিষাবাড়ীর তারাকান্দি রেলস্টেশন থেকে বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব পর্যন্ত নির্মিত এই রেলপথ দিয়ে তিনটি লোকাল ট্রেন ছাড়া চলাচল করছে না কোনো আন্তঃনগর ট্রেন।

উল্লেখ্য, দীর্ঘদিন ধরে ঢাকা ও উত্তরবঙ্গের সঙ্গে বৃহত্তর ময়মনসিংহ অঞ্চলের সরাসরি ট্রেন যোগাযোগ উন্নয়নের দাবি জানিয়ে আসছিলেন এ অঞ্চলের অধিবাসীরা। একপর্যায়ে জামালপুর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মরহুম অ্যাডভোকেট মতিয়র রহমান তালুকদারের নেতৃত্বে সরিষাবাড়ীর তারাকান্দি রেলস্টেশন থেকে ভুয়াপুর হয়ে বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব পর্যন্ত রেললাইন স্থাপনের দাবিতে আন্দোলন গড়ে তোলা হয়।

এ প্রেক্ষিতে ১৯৯৬ সালের শেষদিকে তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জামালপুরের এক জনসভায় তারাকান্দি রেলস্টেশন থেকে বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব পর্যন্ত মিটারগেজ লিংক রেলপথ স্থাপনের ঘোষণা দেন। পরে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর দেয়া প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী ১৯৯৭-৯৮ অর্থবছরে এ সংক্রান্ত একটি প্রকল্প গ্রহণ করা হয় এবং ২০০০ সালে প্রকল্পের কাজ শুরু হয়।

২০০১ সালে রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় পরিবর্তন হলে প্রকল্পের কাজ স্থবির হয়ে পড়ে। পরবর্তীকালে আওয়ামী লীগ পুনরায় সরকার গঠন করলে প্রকল্পের কাজ শুরু হয় এবং ২০১১ সালে ৫২টি ব্রিজ-কালভার্ট ও ৪টি রেলস্টেশনসহ প্রায় ৪২ কিলোমিটার এ রেললাইনের কাজ শেষ হয়।

২০১২ সালের ৩০ জুন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তারাকান্দি-বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব পর্যন্ত মিটারগেজ লিংক রেললাইন উদ্বোধন শেষে আন্তঃনগর ট্রেন চলাচলের ঘোষণা দেন। এরপর থেকে আন্তঃনগর যমুনা এক্সপ্রেসসহ ৩টি লোকাল ট্রেন নবনির্মিত এ লাইনে চলাচল শুরু করে।

২০১৪ সালে হঠাৎ এই লাইনে আন্তঃনগর যমুনা এক্সপ্রেস ট্রেনের চলাচল বন্ধ করে দেয় রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ। এখন এই লাইনে চট্টগ্রাম থেকে ছেড়ে আসা ফাইভ আপ (চট্টগ্রাম মেইল), দুপুর ২টায় ময়মনসিংহ থেকে ছেড়ে আসা ধলেশ্বরী এক্সপ্রেস এবং রাত ৮টায় ময়মনসিংহ থেকে ছেড়ে আসা অন্য একটি লোকাল ট্রেনসহ মোট ৩টি লোকাল ট্রেন চলাচল করছে।

জনবল সংকটের কারণে ইতিমধ্যে ৪টি স্টেশনের মধ্যে বন্ধ হয়ে গেছে দুটি রেলস্টেশন। রেলস্টেশনগুলো বন্ধ থাকায় যাতায়াতে চরম ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে যাত্রীদের। সরিষাবাড়ী স্টেশন মাস্টার আবদুর রাজ্জাক জানালেন- ময়মনসিংহ, জামালপুর, সরিষাবাড়ী ও তারাকান্দি রেলস্টেশন হয়ে বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব পর্যন্ত চলাচলকারী তিনটি লোকাল ট্রেনের সঙ্গে বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব স্টেশন থেকে ছেড়ে যাওয়া ঢাকা-উত্তরবঙ্গগামী ট্রেনগুলোর সময়সূচির মিল না থাকায় যাত্রীরা ঢাকা ও উত্তরবঙ্গগামী ট্রেনগুলোয় ভ্রমণের সুবিধা ভোগ করতে না পারায় তিন লোকাল ট্রেনে যাতায়াতকারী যাত্রীর সংখ্যা আশঙ্কাজনকভাবে হ্রাস পেয়েছে। বলার অপেক্ষা রাখে না এর ফলে রেল খাতে লোকসানের পরিমাণও বাড়ছে।

যুগান্তর প্রতিনিধি, সরিষাবাড়ী, জামালপুর