কুরবানির সঙ্গে আকিকা করলে কি আদায় হবে?
jugantor
কুরবানির সঙ্গে আকিকা করলে কি আদায় হবে?

  মুফতি রেজাউল করীম আবরার  

০৯ জুলাই ২০২২, ২০:৩৩:১০  |  অনলাইন সংস্করণ

কুরবানির সঙ্গে আকিকা করা যাবে কি না? ব্যাপারটি নিয়ে কুরবানি আসলেই আমাদের দেশে তুমুল আলোচনা হয়।শরিয়তের ব্যাখ্যামতে, আমরা আলাদাভাবে করা উত্তম মনে করি।কিন্তু একসঙ্গে করলে জায়েজ মনে করি।

প্রথমত, কুরবানির সঙ্গে আকিকা করা যাবে এটা আমাদের দেশের আলেমদের কথা নয়।এটা হানাফি মাজহাবের স্বীকৃত ফতোয়া।

দ্বিতীয়ত, ‘আহসানুল ফতোয়া’তে স্পষ্টভাবে ফতোয়া শামির রেফারেন্সে লেখা হয়েছে যে, কুরবানির সঙ্গে আকিকা করা জায়েজ!

এ বিষয়ে প্রথমে আমরা হানাফি মাজহাবের ইমামদের বক্তব্য দেখব।

ইমাম আবু বকর জাসসাস (রহ.) লিখেন, কুরবানিতে যখন প্রত্যেকের উদ্দেশ্য হবে তখন আল্লাহর নৈকট্য অর্জন করা। কিন্তু কারণ ভিন্ন ভিন্ন হতে পারে। একজনের উদ্দেশ্য হাদি, অপরজনের হজে কেরানের দম, অপরজনের উদ্দেশ্য কুরবানি বা অন্য কিছু। একসঙ্গে সবারটা আদায় হবে।(শরহু মুখতাসারিত তাহাবী,৭/৩৫২.দারুল বাশায়িরিল ইসলামিয়া)।

ইমাম সারাখসি (রহ.) বলেন, যদি সবার উদ্দেশ্য হয় কুরবানি অথবা কারো উদ্দেশ্য হয় অন্য কোনো ইবাদত, তাহলে সবারটা একসঙ্গে আদায় হয়ে যাবে।(আল-মাবসুত,১১/১৫.মাকতাবারশিদিয়্যাহ)।

ইমাম মালিকুল উলামা কাসানী (রহ.) বলেন, যদি কেউ কুরবানির সঙ্গে আকিকার নিয়ত করে, তাহলে আদায় হয়ে যাবে। কেননা আকিকার দ্বারা উদ্দেশ্য হলো আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জন। সন্তান দানের মাধ্যমে আল্লাহ তার ওপর যে অনুগ্রহ করেছেন, সেটার শুকরিয়া আদায়ের জন্য আকিকা করা হয়- এমনটা বলেছেন ইমাম মুহাম্মদ (রহ.)।(বাদায়িউস সানায়ি’,৬/২৯১.দারুল হাদীস ক্বাহেরা।)

‘ফতোয়া আলমগীরিতে’ আছে, যদি কেউ কুরবানির সঙ্গে আকীকার ইচ্ছা করে, তাহলে তা আদায় হয়ে যাবে।(ফতোয়া আলমগীরি,৫/৩৫১.মাকতাবাতুল ইত্তেহাদ)

ইবনে আবেদীন শামি (রহ.) লিখেন, এমনিভাবে যদি কেউ কুরবানির সঙ্গে আকিকার ইচ্ছে করে, তাহলে আদায় হয়ে যাবে। কারণ আকিকাও আল্লাহর নৈকট্য লাভের একটি ইবাদত।(হাশিয়াতু আবনে আবেদীন,৬/৩৩৬.এইচ,এম সাইদ)।

এ আলোচনা থেকে আশা করি স্পষ্ট হয়ে গেছে যে, কুরবানির সঙ্গে আকিকা করা যাবে।আল্লাহ সবাইকে সঠিক পথে পরিচালিত করুন।

কুরবানির সঙ্গে আকিকা করলে কি আদায় হবে?

 মুফতি রেজাউল করীম আবরার 
০৯ জুলাই ২০২২, ০৮:৩৩ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

কুরবানির সঙ্গে আকিকা করা যাবে কি না? ব্যাপারটি নিয়ে কুরবানি আসলেই আমাদের দেশে তুমুল আলোচনা হয়।শরিয়তের ব্যাখ্যামতে, আমরা আলাদাভাবে করা উত্তম মনে করি।কিন্তু একসঙ্গে করলে জায়েজ মনে করি।

প্রথমত, কুরবানির সঙ্গে আকিকা করা যাবে এটা আমাদের দেশের আলেমদের কথা নয়।এটা হানাফি মাজহাবের স্বীকৃত ফতোয়া। 

দ্বিতীয়ত, ‘আহসানুল ফতোয়া’তে স্পষ্টভাবে ফতোয়া শামির রেফারেন্সে লেখা হয়েছে যে, কুরবানির সঙ্গে আকিকা করা জায়েজ!

এ বিষয়ে প্রথমে আমরা হানাফি মাজহাবের ইমামদের বক্তব্য দেখব।

ইমাম আবু বকর জাসসাস (রহ.) লিখেন, কুরবানিতে যখন প্রত্যেকের উদ্দেশ্য হবে তখন আল্লাহর নৈকট্য অর্জন করা। কিন্তু কারণ ভিন্ন ভিন্ন হতে পারে। একজনের উদ্দেশ্য হাদি, অপরজনের হজে কেরানের দম, অপরজনের উদ্দেশ্য কুরবানি বা অন্য কিছু। একসঙ্গে সবারটা আদায় হবে।(শরহু মুখতাসারিত তাহাবী,৭/৩৫২.দারুল বাশায়িরিল ইসলামিয়া)।

ইমাম সারাখসি (রহ.) বলেন, যদি সবার উদ্দেশ্য হয় কুরবানি অথবা কারো উদ্দেশ্য হয় অন্য কোনো ইবাদত, তাহলে সবারটা একসঙ্গে আদায় হয়ে যাবে।(আল-মাবসুত,১১/১৫.মাকতাবারশিদিয়্যাহ)।

ইমাম মালিকুল উলামা কাসানী (রহ.) বলেন, যদি কেউ কুরবানির সঙ্গে আকিকার নিয়ত করে, তাহলে আদায় হয়ে যাবে। কেননা আকিকার দ্বারা উদ্দেশ্য হলো আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জন। সন্তান দানের মাধ্যমে আল্লাহ তার ওপর যে অনুগ্রহ করেছেন, সেটার শুকরিয়া আদায়ের জন্য আকিকা করা হয়- এমনটা বলেছেন ইমাম মুহাম্মদ (রহ.)।(বাদায়িউস সানায়ি’,৬/২৯১.দারুল হাদীস ক্বাহেরা।)

‘ফতোয়া আলমগীরিতে’ আছে, যদি কেউ কুরবানির সঙ্গে আকীকার ইচ্ছা করে, তাহলে তা আদায় হয়ে যাবে।(ফতোয়া আলমগীরি,৫/৩৫১.মাকতাবাতুল ইত্তেহাদ)

ইবনে আবেদীন শামি (রহ.) লিখেন, এমনিভাবে যদি কেউ কুরবানির সঙ্গে আকিকার ইচ্ছে করে, তাহলে আদায় হয়ে যাবে। কারণ আকিকাও আল্লাহর নৈকট্য লাভের একটি ইবাদত।(হাশিয়াতু আবনে আবেদীন,৬/৩৩৬.এইচ,এম সাইদ)।

এ আলোচনা থেকে আশা করি স্পষ্ট হয়ে গেছে যে, কুরবানির সঙ্গে আকিকা করা যাবে।আল্লাহ সবাইকে সঠিক পথে পরিচালিত করুন।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন