রায়পুরে মুয়াজ্জিনকে কুপিয়ে জখম

  রায়পুর (লক্ষ্মীপুর) প্রতিনিধি ২৮ মে ২০১৯, ১৪:৫৯:২১ | অনলাইন সংস্করণ

ছবি: যুগান্তর

লক্ষ্মীপুরের রায়পুর উপজেলায় জমি নিয়ে বিরোধে আবদুল হান্নান (৪৫) নামে এক মসজিদের মুয়াজ্জিনকে কুপিয়ে জখম করার অভিযোগ পাওয়া গেছে এলাকার মোস্তফা কামাল ও তার ছেলে রাব্বির বিরুদ্ধে।

সোমবার রাতে উপজেলার চরপাতা ইউনিয়নের গাজীনগর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

এদিকে এ ঘটনায় আহত আবদুল হান্নানের স্ত্রী মাহ্ফুজা বেগম মঙ্গলবার লক্ষ্মীপুর চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজেস্ট্রেট আদালতে পাঁচজনকে আসামি করে একটি মামলা করেছেন।

হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আবদুল হান্নান জানান, গত এক বছর ধরে একই এলাকার প্রভাবশালী মোস্তফা কামাল খোকনের পরিবারের সঙ্গে দেড় শতাংশ জমি নিয়ে বিরোধ চলছে।

গত বছরের জানুয়ারি মাসে আম পাড়া কেন্দ্র করে আমার ওপর শারীরিক নির্যাতন করে মোস্তফা কামালের পরিবার। তখন থানায় মামলা হয় এবং মীমাংসাও হয়।

সোমবার রাতে অসুস্থ বোন-জামাতাকে দেখতে গিয়ে পথে মোস্তফা কামালের ছেলে রাব্বিকে জমি অদলবদল নিয়ে বাড়াবাড়ি না করার জন্য অনুরোধ জানাই। এতেই মোস্তফা কামাল ক্ষুব্ধ হয়ে তার ছেলে রাব্বি, ফয়সাল, স্ত্রী শাহীনুর ও মেয়ে সালমাকে নিয়ে আমাকে একা পেয়ে হামলা চালায়। এ সময় লাঠি, রড, দা দিয়ে মাথা ও পাসহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে কুপিয়ে মারাত্মক জখম করে হত্যাচেষ্টা চালায়।

এ সময় আমাকে মৃত ভেবে তারা ফেলে রেখে যায়। পরে স্থানীয় লোকজন আমাকে উদ্ধার করে সরকারি হাসপাতালে ভর্তি করায়।

অভিযুক্ত মোস্তফা কামাল ও তার ছেলে রাব্বি জানান, জমি নিয়ে আবদুল হান্নানের ভগ্নিপতির সঙ্গে বিরোধ আছে। সোমবার রাতে আবদুল হান্নান আমাদের সঙ্গে চরম দুর্ব্যবহার করে। এতে আমাদের হাতাহাতি ছাড়া অন্য কিছু হয়নি।

রায়পুর থানার ওসি (তদন্ত) মো. সোলাইমান হোসেন বলেন, আহত আবদুল হান্নান আমাদের কাছে এসেছেন। তাকে হাসপাতালে গিয়ে চিকিৎসা নিতে বলা হয়েছে। মামলা হলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত