হবিগঞ্জে ছাত্রীর চোখের আলো কেড়ে নিলেন শিক্ষক!
jugantor
হবিগঞ্জে ছাত্রীর চোখের আলো কেড়ে নিলেন শিক্ষক!

  হবিগঞ্জ প্রতিনিধি  

১১ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১৬:৪৩:৫২  |  অনলাইন সংস্করণ

হাসপাতালে চিকিৎসাধীন সেই ছাত্রী

হবিগঞ্জ সদর উপজেলার যাদবপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের তৃতীয় শ্রেণির ছাত্রী হাবিবা আক্তারের চোখের আলো কেড়ে নিলেন শিক্ষক নিরঞ্জন সরকার। তার বেতের আঘাতে নিভে গেছে তার চোখের আলো।

এ অভিযোগে শিক্ষক নিরঞ্জন সরকারকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। বুধবার দুপুরে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার আবুল কালাম আজাদ সাময়িক বরখাস্তের বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

তিনি বলেন, অভিযুক্ত সেই শিক্ষকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। পাশাপাশি বিষয়টি তদন্তের জন্য একটি বিভাগীয় কমিটি গঠন করা হয়েছে। তদন্ত প্রতিবেদন পাওয়ার পর তার বিরুদ্ধে স্থায়ীভাবে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এদিকে আহত ছাত্রী হাবিবার পরিবার জানায়, হাবিবা বর্তমানে জাতীয় চক্ষু বিজ্ঞান ইন্সটিটিউট ও হাসপাতালে ভর্তি রয়েছে। অপারেশন করে তার চোখটি কেটে ফেলে দিতে হয়েছে।

উল্লেখ্য, এর আগে মঙ্গলবার উপজেলার যাদবপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক নিরঞ্জন সরকার একটি বেত ছুঁড়ে মারলে ছাত্রী হাবিবা আক্তারের চোখে পড়ে। এতে সে গুরুতর আহত হয়।

তাকে প্রথমে আধুনিক সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে ঢাকায় স্থানান্তরের পরামর্শ দিলে তাকে জাতীয় চক্ষু হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

হবিগঞ্জে ছাত্রীর চোখের আলো কেড়ে নিলেন শিক্ষক!

 হবিগঞ্জ প্রতিনিধি 
১১ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৪:৪৩ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
হাসপাতালে চিকিৎসাধীন সেই ছাত্রী
হাসপাতালে চিকিৎসাধীন সেই ছাত্রী। ছবি: যুগান্তর

হবিগঞ্জ সদর উপজেলার যাদবপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের তৃতীয় শ্রেণির ছাত্রী হাবিবা আক্তারের চোখের আলো কেড়ে নিলেন শিক্ষক নিরঞ্জন সরকার। তার বেতের আঘাতে নিভে গেছে তার চোখের আলো। 

এ অভিযোগে শিক্ষক নিরঞ্জন সরকারকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। বুধবার দুপুরে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার আবুল কালাম আজাদ সাময়িক বরখাস্তের বিষয়টি নিশ্চিত করেন। 

তিনি বলেন, অভিযুক্ত সেই শিক্ষকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। পাশাপাশি বিষয়টি তদন্তের জন্য একটি বিভাগীয় কমিটি গঠন করা হয়েছে। তদন্ত প্রতিবেদন পাওয়ার পর তার বিরুদ্ধে স্থায়ীভাবে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এদিকে আহত ছাত্রী হাবিবার পরিবার জানায়, হাবিবা বর্তমানে জাতীয় চক্ষু বিজ্ঞান ইন্সটিটিউট ও হাসপাতালে ভর্তি রয়েছে। অপারেশন করে তার চোখটি কেটে ফেলে দিতে হয়েছে।

উল্লেখ্য, এর আগে মঙ্গলবার উপজেলার যাদবপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক নিরঞ্জন সরকার একটি বেত ছুঁড়ে মারলে ছাত্রী হাবিবা আক্তারের চোখে পড়ে। এতে সে গুরুতর আহত হয়। 

তাকে প্রথমে আধুনিক সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে ঢাকায় স্থানান্তরের পরামর্শ দিলে তাকে জাতীয় চক্ষু হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন