স্বাস্থ্যঝুঁকিতে ঠাকুরগাঁওয়ের ৪ গ্রামের মানুষ
jugantor
স্বাস্থ্যঝুঁকিতে ঠাকুরগাঁওয়ের ৪ গ্রামের মানুষ

  ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি  

১২ আগস্ট ২০২০, ১৮:২৫:০০  |  অনলাইন সংস্করণ

মাছি ও পচা দুর্গন্ধে স্বাস্থ্যঝুঁকিতে রয়েছেন ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার জগন্নাথপুর ইউনিয়নের চার গ্রামের মানুষ। পেটের পীড়া, শ্বাসকষ্টসহ বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হচ্ছেন এসব এলাকার নানা বয়সের মানুষ।

ভুক্তভোগীদের অভিযোগ, এলাকার দৌলতপুর গ্রামে নর্থ এগস লিমিটেড নামে একটি পোল্ট্রি খামার স্থাপন হওয়ার পর এ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে।

ইউপি সদস্য আনিসুর রহমান বলেন, নিজেদের খাবার পাতে ভাগ বসাচ্ছে মাছির দল। শুধু মাছি নয়, প্রায় ১০ বছর ধরে দুর্গন্ধ এড়াতে নাক ঢেকে চলাফেরা করছেন জগন্নাথপুর ইউনিয়নের দৌলতপুর, কুমিল্লাহাড়ি ও বিলপাড়াসহ ৪ গ্রামের মানুষ।

দৌলতপুর গ্রামের আবদুর রহমান অভিযোগ করেন, নলকূপের পানিতেও পচা গন্ধ। এতে বিশুদ্ধ পানির অভাবে ভুগছেন স্থানীয়রা।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে নর্থ এগস লিমিটেডের দেখাশোনার দায়িত্বে থাকা লাভলু চৌধুরী বলেন, শিগগিরই এখানে জৈবসার উৎপাদন শুরু হবে। জৈবসার উৎপাদন শুরু হলে এ পরিস্থিতি আর থাকবে না।

ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতালের মেডিসিন কনসালটেন্ট ডা. মোজাম্মেল হক যুগান্তরকে বলেন, মশা-মাছি রোগের বাহক। এ কারণে ওই গ্রামগুলোর অধিকাংশ মানুষ অসুস্থ হচ্ছেন এবং হাসপাতালে ভর্তি হয়ে চিকিৎসা নিচ্ছেন।

উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. মামুন অর রশিদ বলেন, খামারের অব্যবস্থাপনার কারণে ভোগান্তির শিকার গ্রামবাসী।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবদুল্লাহ আল মামুন বলেন, এ বিষয়ে তিন সদস্যের তদন্ত টিম গঠন করা হয়েছে।

স্বাস্থ্যঝুঁকিতে ঠাকুরগাঁওয়ের ৪ গ্রামের মানুষ

 ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি 
১২ আগস্ট ২০২০, ০৬:২৫ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

মাছি ও পচা দুর্গন্ধে স্বাস্থ্যঝুঁকিতে রয়েছেন ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার জগন্নাথপুর ইউনিয়নের চার গ্রামের মানুষ। পেটের পীড়া, শ্বাসকষ্টসহ বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হচ্ছেন এসব এলাকার নানা বয়সের মানুষ।

ভুক্তভোগীদের অভিযোগ, এলাকার দৌলতপুর গ্রামে নর্থ এগস লিমিটেড নামে একটি পোল্ট্রি খামার স্থাপন হওয়ার পর এ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে।

ইউপি সদস্য আনিসুর রহমান বলেন, নিজেদের খাবার পাতে ভাগ বসাচ্ছে মাছির দল। শুধু মাছি নয়, প্রায় ১০ বছর ধরে দুর্গন্ধ এড়াতে নাক ঢেকে চলাফেরা করছেন জগন্নাথপুর ইউনিয়নের দৌলতপুর, কুমিল্লাহাড়ি ও বিলপাড়াসহ ৪ গ্রামের মানুষ।

দৌলতপুর গ্রামের আবদুর রহমান অভিযোগ করেন, নলকূপের পানিতেও পচা গন্ধ। এতে বিশুদ্ধ পানির অভাবে ভুগছেন স্থানীয়রা।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে নর্থ এগস লিমিটেডের দেখাশোনার দায়িত্বে থাকা লাভলু চৌধুরী বলেন, শিগগিরই এখানে জৈবসার উৎপাদন শুরু হবে। জৈবসার উৎপাদন শুরু হলে এ পরিস্থিতি আর থাকবে না।

ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতালের মেডিসিন কনসালটেন্ট ডা. মোজাম্মেল হক যুগান্তরকে বলেন, মশা-মাছি রোগের বাহক। এ কারণে ওই গ্রামগুলোর অধিকাংশ মানুষ অসুস্থ হচ্ছেন এবং হাসপাতালে ভর্তি হয়ে চিকিৎসা নিচ্ছেন।

উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. মামুন অর রশিদ বলেন, খামারের অব্যবস্থাপনার কারণে ভোগান্তির শিকার গ্রামবাসী।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবদুল্লাহ আল মামুন বলেন, এ বিষয়ে তিন সদস্যের তদন্ত টিম গঠন করা হয়েছে।