শাপলা তুলতে গিয়ে পানিতে ডুবে দুই শিশুর মর্মান্তিক মৃত্যু
jugantor
শাপলা তুলতে গিয়ে পানিতে ডুবে দুই শিশুর মর্মান্তিক মৃত্যু

  চারঘাট (রাজশাহী) প্রতিনিধি  

২৪ আগস্ট ২০২০, ২১:৪৩:৫৫  |  অনলাইন সংস্করণ

শিশু

রাজশাহীর চারঘাটে শাপলা তুলতে গিয়ে পানিতে ডুবে দুই শিশুর মর্মান্তিক মৃত্যু হয়েছে। সোমবার বিকালে উপজেলার রাওথা এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। তারা হল- মাহাবুর রহমানের ছেলে মাহিম (৭) ও শফিকুল হকের ছেলে রাহুল (৫)। তারা দুজনেই উপজেলার রাওথা এলাকার বাসিন্দা। পানিতে ডুবে দুই শিশুর মর্মান্তিক মৃত্যুর খবরে পুরো রাওথায় চলছে শোকের মাতম।

নিহত মাহিমের নানা জিয়াউর রহমান জানান, মাহিমের শাপলা তোলার এক ধরনের নেশা ছিল। প্রতিদিনই বাড়ির লোকজনের চোখ ফাঁকি দিয়ে সে বিভিন্ন পুকুরে শাপলা তুলতো। সোমবার দুপুরের দিকে হঠাৎ করেই মাহিমকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছিল না। পরে খোঁজ নিয়ে জানা যায় মাহিমের সঙ্গে প্রতিবেশী শফিকুলের ছেলে রাহুলও নেই। পরে অনেক খোঁজাখুঁজির পরে জনৈক রেজাউল হক নামের এক ব্যক্তি জানান তাদের দুই শিশুকে জনৈক নবীর উদ্দিনের পুকুরের দিকে যেতে দেখেছেন। পরে বিকাল সাড়ে ৪টার দিকে এলাকাবাসীর সহাতায় শুরু হয় খোঁজাখুঁজি।

এক পর্যায়ে নবীর উদ্দিনের পুকুর থেকে মাহিম ও রাহুলের লাশ উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক দুই শিশুকেই মৃত ঘোষণা করেন।

এদিকে দুই শিশুর মর্মান্তিক মৃত্যুর খবরে এলাকায় চলছে শোকের মাতম। একমাত্র ছেলে রাহুলকে হারিয়ে মা জয়নব বেগম বারবার মূর্ছা যাচ্ছেন। তাকে বোঝানো কোনোভাবেই সম্ভব হচ্ছে না আত্মীয়স্বজনদের।

নিহত মাহিমের নানা জিয়াউর রহমান বলেন, নিহত মাহিমের বাবার বাড়ি পুঠিয়া উপজেলার বানেশ্বর এলাকায়।

ছোট থেকেই মাহিম আমার কাছে রয়েছে। তার পিতা-মাতাকে আমি কী জবাব দেব। এভাবেই বলেই কান্নায় ভেঙে পড়েন নানা জিয়াউর।

ইউপি সদস্য তজলুল হক বলেন, একই সঙ্গে এলাকার দুই শিশুর মর্মান্তিক মৃত্যুর ঘটনায় পুরো এলাকায় চলছে শোকের মাতম।

শাপলা তুলতে গিয়ে পানিতে ডুবে দুই শিশুর মর্মান্তিক মৃত্যু

 চারঘাট (রাজশাহী) প্রতিনিধি 
২৪ আগস্ট ২০২০, ০৯:৪৩ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
শিশু
রাজশাহীর চারঘাটে শাপলা তুলতে গিয়ে পানিতে ডুবে দুই শিশুর মর্মান্তিক মৃত্যু হয়েছে।

রাজশাহীর চারঘাটে শাপলা তুলতে গিয়ে পানিতে ডুবে দুই শিশুর মর্মান্তিক মৃত্যু হয়েছে। সোমবার বিকালে উপজেলার রাওথা এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। তারা হল- মাহাবুর রহমানের ছেলে মাহিম (৭) ও শফিকুল হকের ছেলে রাহুল (৫)। তারা দুজনেই উপজেলার রাওথা এলাকার বাসিন্দা। পানিতে ডুবে দুই শিশুর মর্মান্তিক মৃত্যুর খবরে পুরো রাওথায় চলছে শোকের মাতম।

 

নিহত মাহিমের নানা জিয়াউর রহমান জানান, মাহিমের শাপলা তোলার এক ধরনের নেশা ছিল। প্রতিদিনই বাড়ির লোকজনের চোখ ফাঁকি দিয়ে সে বিভিন্ন পুকুরে শাপলা তুলতো। সোমবার দুপুরের দিকে হঠাৎ করেই মাহিমকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছিল না। পরে খোঁজ নিয়ে জানা যায় মাহিমের সঙ্গে প্রতিবেশী শফিকুলের ছেলে রাহুলও নেই। পরে অনেক খোঁজাখুঁজির পরে জনৈক রেজাউল হক নামের এক ব্যক্তি জানান তাদের দুই শিশুকে জনৈক নবীর উদ্দিনের পুকুরের দিকে যেতে দেখেছেন। পরে বিকাল সাড়ে ৪টার দিকে এলাকাবাসীর সহাতায় শুরু হয় খোঁজাখুঁজি।

 

এক পর্যায়ে নবীর উদ্দিনের পুকুর থেকে মাহিম ও রাহুলের লাশ উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক দুই শিশুকেই মৃত ঘোষণা করেন।

 

এদিকে দুই শিশুর মর্মান্তিক মৃত্যুর খবরে এলাকায় চলছে শোকের মাতম। একমাত্র ছেলে রাহুলকে হারিয়ে মা জয়নব বেগম বারবার মূর্ছা যাচ্ছেন। তাকে বোঝানো কোনোভাবেই সম্ভব হচ্ছে না আত্মীয়স্বজনদের।

 

নিহত মাহিমের নানা জিয়াউর রহমান বলেন, নিহত মাহিমের বাবার বাড়ি পুঠিয়া উপজেলার বানেশ্বর এলাকায়।

 

ছোট থেকেই মাহিম আমার কাছে রয়েছে। তার পিতা-মাতাকে আমি কী জবাব দেব। এভাবেই বলেই কান্নায় ভেঙে পড়েন নানা জিয়াউর।

 

ইউপি সদস্য তজলুল হক বলেন, একই সঙ্গে এলাকার দুই শিশুর মর্মান্তিক মৃত্যুর ঘটনায় পুরো এলাকায় চলছে শোকের মাতম।

 

ঘটনাপ্রবাহ : পানিতে ডুবে মৃত্যু

জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন