কালীগঞ্জে ভাতার টাকা আত্মসাতের অভিযোগ
jugantor
কালীগঞ্জে ভাতার টাকা আত্মসাতের অভিযোগ

  কালীগঞ্জ (গাজীপুর) প্রতিনিধি  

০৫ সেপ্টেম্বর ২০২০, ২১:৪৭:৪৩  |  অনলাইন সংস্করণ

গাজীপুর

গাজীপুরের কালীগঞ্জে প্রতিবন্ধী, বিধবা ও বয়স্কদের সরকারি ভাতার টাকা আত্মসাতের অভিযোগ উঠেছে জাংগালিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী মহিলা লীগের সহ-সভাপতির বিরুদ্ধে। তবে অভিযোগ অস্বীকার করেছেন ইউনিয়ন আওয়ামী মহিলা লীগের সহ-সভাপতি শেফালী খানম।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার শিবলী সাদিক বলেন, অভিযুক্তদের রোববার অফিসে ডাকা হয়েছে। এছাড়া বিষয়টি তদন্ত করা হচ্ছে। অভিযোগ প্রমাণিত হলে তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যাবস্থা গ্রহণ করা হবে।

উপজেলা সমাজসেবা অফিসার শাহাদাত হোসেন বলেন, মাঠপর্যায়ে তদন্ত করে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

ভুক্তভোগী বুদ্ধিপ্রতিবন্ধী মিনহাজের মা পেয়ারা বেগম বলেন, মহিলা আওয়ামলী লীগ নেত্রী শেফালী খানম তাদের বাড়িতে এসে তার ছেলেকে প্রতিবন্ধী কার্ড করে দেয়ার আশ্বাস দেন। পরে তার কাছ থেকে সংশ্লিষ্ট সকল কাজপত্রসহ খরচ বাবদ ১ হাজার টাকা চেয়ে নেয়। পরবর্তীতে সরকারি প্রতিবন্ধী ভাতার কার্ডটি এনে দেয়। ওই কার্ডের ভিত্তিতে সরকারিভাবে নয় হাজার টাকার একটি চেক দেয় কালীগঞ্জ উপজেলা সমাজ সেবা অধিদপ্তর। চেক ভাঙ্গাতে গেলে শেফলী খানম সাথে যায় এবং টাকা উত্তোলনের পর ৫শটাকা দিয়ে বাকি ৮হাজার ৫শ টাকা সে নিয়ে নেয়।

আরো এক ভুক্তভোগী প্রতিবন্ধী জিয়াসমিনের মা হাসনেয়ারা জানান, তার কাছ থেকেও কার্ড করে দেয়ার কথা বলে প্রথমে কিছু টাকা নেয়। পরে ওই কার্ডের ভিত্তিতে চেক দেয় উপজেলা সমাজ সেবা অধিপ্তর। কিন্তু ব্যাংক থেকে টাকা তুলে ৫শটাকা দিয়ে বাকি সব টাকা নিয়ে নেয় নেত্রী শেফালী বেগম।
জিজ্ঞেস করলে সে জানায় অফিসের খরচ লাগবে।

এ ব্যাপারে অভিযুক্ত শেফালী খানম জানান, আমি কারো কাছ থেকে কোনো টাকা-পয়সা নেই নাই। আমি চেয়ারম্যান-মেম্বার নই, দুস্থ মানুষের সাহায্যের জন্য কাজ করি। আমি কেবল মানুষের উপকার করার চেষ্টা করেছি।

এ বিষয়ে ইউপি চেয়ারম্যান গাজী সারওয়ার হোসেন বলেন, আমার কাছে কেউ অভিযোগ করেনি। বিভিন্ন মাধ্যমে অভিযোগটি শুনেছি তবে বিষয়টি ক্ষতিয়ে দেখা হচ্ছে।

কালীগঞ্জে ভাতার টাকা আত্মসাতের অভিযোগ

 কালীগঞ্জ (গাজীপুর) প্রতিনিধি 
০৫ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৯:৪৭ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
গাজীপুর
গাজীপুর

গাজীপুরের কালীগঞ্জে প্রতিবন্ধী, বিধবা ও বয়স্কদের সরকারি ভাতার টাকা আত্মসাতের অভিযোগ উঠেছে জাংগালিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী মহিলা লীগের সহ-সভাপতির বিরুদ্ধে। তবে অভিযোগ অস্বীকার করেছেন ইউনিয়ন আওয়ামী মহিলা লীগের সহ-সভাপতি শেফালী খানম।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার শিবলী সাদিক বলেন, অভিযুক্তদের রোববার অফিসে ডাকা হয়েছে। এছাড়া বিষয়টি তদন্ত করা হচ্ছে। অভিযোগ প্রমাণিত হলে তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যাবস্থা গ্রহণ করা হবে।

উপজেলা সমাজসেবা অফিসার শাহাদাত হোসেন বলেন, মাঠপর্যায়ে তদন্ত করে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

ভুক্তভোগী বুদ্ধিপ্রতিবন্ধী মিনহাজের মা পেয়ারা বেগম বলেন, মহিলা আওয়ামলী লীগ নেত্রী শেফালী খানম তাদের বাড়িতে এসে তার ছেলেকে প্রতিবন্ধী কার্ড করে দেয়ার আশ্বাস দেন। পরে তার কাছ থেকে সংশ্লিষ্ট সকল কাজপত্রসহ খরচ বাবদ ১ হাজার টাকা চেয়ে নেয়। পরবর্তীতে সরকারি প্রতিবন্ধী ভাতার কার্ডটি এনে দেয়। ওই কার্ডের ভিত্তিতে সরকারিভাবে নয় হাজার টাকার একটি চেক দেয় কালীগঞ্জ উপজেলা সমাজ সেবা অধিদপ্তর। চেক ভাঙ্গাতে গেলে শেফলী খানম সাথে যায় এবং টাকা উত্তোলনের পর ৫শটাকা দিয়ে বাকি ৮হাজার ৫শ টাকা সে নিয়ে নেয়।

আরো এক ভুক্তভোগী প্রতিবন্ধী জিয়াসমিনের মা হাসনেয়ারা জানান, তার কাছ থেকেও কার্ড করে দেয়ার কথা বলে প্রথমে কিছু টাকা নেয়। পরে ওই কার্ডের ভিত্তিতে চেক দেয় উপজেলা সমাজ সেবা অধিপ্তর। কিন্তু ব্যাংক থেকে টাকা তুলে ৫শটাকা দিয়ে বাকি সব টাকা নিয়ে নেয় নেত্রী শেফালী বেগম। 
জিজ্ঞেস করলে সে জানায় অফিসের খরচ লাগবে।

এ ব্যাপারে অভিযুক্ত শেফালী খানম জানান, আমি কারো কাছ থেকে কোনো টাকা-পয়সা নেই নাই। আমি চেয়ারম্যান-মেম্বার নই, দুস্থ মানুষের সাহায্যের জন্য কাজ করি। আমি কেবল মানুষের উপকার করার চেষ্টা করেছি। 

এ বিষয়ে ইউপি চেয়ারম্যান গাজী সারওয়ার হোসেন বলেন, আমার কাছে কেউ অভিযোগ করেনি। বিভিন্ন মাধ্যমে অভিযোগটি শুনেছি তবে বিষয়টি ক্ষতিয়ে দেখা হচ্ছে।

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন