বিয়ে করলে বাড়বে বেতন!
jugantor
বিয়ে করলে বাড়বে বেতন!

  আন্তর্জাতিক ডেস্ক  

০৮ মে ২০২২, ১৩:২৮:০৪  |  অনলাইন সংস্করণ

এবারে বিয়ে করলে কর্মীদের বেতন বাড়বে এমন এক বিশেষ সুবিধা চালু করল সে দেশের একটি আইটি সংস্থা।

শীর্ষস্থানীয় ভারতীয় আইটি সংস্থাগুলো একটি আরেকটি থেকে ভালো করার জন্য প্রতিনিয়ত প্রতিযোগিতা করে যাচ্ছে। আর এসব কোম্পানির প্রতিভাবান কর্মীদের ধরে রাখতে একের পর এক বিশেষ সুবিধা দিয়ে চলেছে। এবারে বিয়ে করলে কর্মীদের বেতন বাড়বে এমন এক বিশেষ সুবিধা চালু করল সে দেশের একটি আইটি সংস্থা।

মাদুরাইভিত্তিক শ্রী মুকাম্বিকা ইনফোসলিউশনস (এসএমআই) নামে আইটি কোম্পানিটি দিচ্ছে এমন সুবিধা। আর এর পাশাপাশি তারা কর্মীদের সঙ্গী খুঁজতেও দিচ্ছে বিশেষ পরিষেবা।

টাইমস অব ইন্ডিয়ার খবরে বলা হয়েছে, কোম্পানিটি বেশ কয়েক বছর ধরে কর্মীদের এমন সুবিধা দিয়ে চলেছে। আর এ কারণে প্রতিষ্ঠানটির কর্মীদের মধ্যে চাকরি ছাড়ার হার মাত্র ১০ শতাংশ। যেখানে ইনফোসিস বা উইপ্রোর মতো নামিদামি প্রতিষ্ঠানেও চাকরি ছাড়ার হার দেখা যায় ২০ শতাংশের বেশি।

বর্তমানে এসএমআই কোম্পানিটি ৭৫০ জনেরও বেশি কর্মী নিয়োগ করে। আর তাদের মধ্যে ৪০ শতাংশ কর্মী অন্তত ৫ বছর এই কোম্পানিতে থাকেন।

এসএমআইয়ের যাত্রা শুরু হয় ২০০৬ সালে দেশটির তামিলনাড়ুর সিভাকাসিতে। এর পর প্রতিষ্ঠানটির পরিসর বাড়তে থাকলে কর্মী পাওয়া অনেকটা কঠিন হয়ে পড়ে। এ কারণে ২০১০ সালে তারা বাধ্য হয়ে ওই রাজ্যেরই মাদুরাইয়ে চলে যায়।

প্রতিষ্ঠানটির যাত্রার শুরু থেকেই কর্মীদের বিয়ের বিষয়ে প্রস্তাব দিয়ে আসছিল। সঙ্গী খুঁজে দেওয়া ও বিয়ে করলে বেতন বৃদ্ধির সুবিধা ছাড়াও তারা আরও একটি নীতি গ্রহণ করে। আর সেটি হচ্ছে— বছরে দুবার কর্মীদের বেতন বৃদ্ধি হবে ৬-৮ শতাংশ। গত বছরে করোনা সংক্রমণের কারণে যেখানে ভারতের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান যখন কর্মী সংকোচন নীতিগ্রহণ করেছিল, তখনও এই প্রতিষ্ঠানটি বছরে দুবার বেতন বৃদ্ধি অব্যাহত রেখেছিল। এ ছাড়া প্রতিষ্ঠানের সেরা কর্মীদের জন্য বিশেষ সুবিধা তো থাকেই।

এসএমআইয়ের প্রতিষ্ঠাতা এমপি সেলভা গণেশ তার প্রতিষ্ঠান নিয়ে বলেন, এখানে বেশ কিছু দীর্ঘমেয়াদি কর্মচারী রয়েছে। তারা অন্য কোথাও যাবে এ ভাবনা তাদের মাথায় আসার সুযোগ দিই না। এ ধরনের কোনো চিন্তা তাদের মাথায় আসার আগেই আমরা তাদের প্রাপ্য প্রদান করি। কর্মচারীরা যখন কোনো চ্যালেঞ্জের সম্মুখীন হয়, তখন তারা সরাসরি আমার সঙ্গে যোগাযোগ করেন।

তথ্যসূত্র: এনডিটিভি, টাইমস অব ইন্ডিয়া

বিয়ে করলে বাড়বে বেতন!

 আন্তর্জাতিক ডেস্ক 
০৮ মে ২০২২, ০১:২৮ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
এবারে বিয়ে করলে কর্মীদের বেতন বাড়বে এমন এক বিশেষ সুবিধা চালু করল সে দেশের একটি আইটি সংস্থা।
প্রতীকী ছবি

শীর্ষস্থানীয় ভারতীয় আইটি সংস্থাগুলো একটি আরেকটি থেকে ভালো করার জন্য প্রতিনিয়ত প্রতিযোগিতা করে যাচ্ছে। আর এসব কোম্পানির প্রতিভাবান কর্মীদের ধরে রাখতে একের পর এক বিশেষ সুবিধা দিয়ে চলেছে। এবারে বিয়ে করলে কর্মীদের বেতন বাড়বে এমন এক বিশেষ সুবিধা চালু করল সে দেশের একটি আইটি সংস্থা।

মাদুরাইভিত্তিক শ্রী মুকাম্বিকা ইনফোসলিউশনস (এসএমআই) নামে আইটি কোম্পানিটি দিচ্ছে এমন সুবিধা। আর এর পাশাপাশি তারা কর্মীদের সঙ্গী খুঁজতেও দিচ্ছে বিশেষ পরিষেবা।

টাইমস অব ইন্ডিয়ার খবরে বলা হয়েছে, কোম্পানিটি বেশ কয়েক বছর ধরে কর্মীদের এমন সুবিধা দিয়ে চলেছে। আর এ কারণে প্রতিষ্ঠানটির কর্মীদের মধ্যে চাকরি ছাড়ার হার মাত্র ১০ শতাংশ। যেখানে ইনফোসিস বা উইপ্রোর মতো নামিদামি প্রতিষ্ঠানেও চাকরি ছাড়ার হার দেখা যায় ২০ শতাংশের বেশি।

বর্তমানে এসএমআই কোম্পানিটি ৭৫০ জনেরও বেশি কর্মী নিয়োগ করে। আর তাদের মধ্যে ৪০ শতাংশ কর্মী অন্তত ৫ বছর এই কোম্পানিতে থাকেন।

এসএমআইয়ের যাত্রা শুরু হয় ২০০৬ সালে দেশটির তামিলনাড়ুর সিভাকাসিতে। এর পর প্রতিষ্ঠানটির পরিসর বাড়তে থাকলে কর্মী পাওয়া অনেকটা কঠিন হয়ে পড়ে। এ কারণে ২০১০ সালে তারা বাধ্য হয়ে ওই রাজ্যেরই মাদুরাইয়ে চলে যায়।

প্রতিষ্ঠানটির যাত্রার শুরু থেকেই কর্মীদের বিয়ের বিষয়ে প্রস্তাব দিয়ে আসছিল। সঙ্গী খুঁজে দেওয়া ও বিয়ে করলে বেতন বৃদ্ধির সুবিধা ছাড়াও তারা আরও একটি নীতি গ্রহণ করে। আর সেটি হচ্ছে— বছরে দুবার কর্মীদের বেতন বৃদ্ধি হবে ৬-৮ শতাংশ। গত বছরে করোনা সংক্রমণের কারণে যেখানে ভারতের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান যখন কর্মী সংকোচন নীতিগ্রহণ করেছিল, তখনও এই প্রতিষ্ঠানটি বছরে দুবার বেতন বৃদ্ধি অব্যাহত রেখেছিল। এ ছাড়া প্রতিষ্ঠানের সেরা কর্মীদের জন্য বিশেষ সুবিধা তো থাকেই।

এসএমআইয়ের প্রতিষ্ঠাতা এমপি সেলভা গণেশ তার প্রতিষ্ঠান নিয়ে বলেন, এখানে বেশ কিছু দীর্ঘমেয়াদি কর্মচারী রয়েছে। তারা অন্য কোথাও যাবে এ ভাবনা তাদের মাথায় আসার সুযোগ দিই না। এ ধরনের কোনো চিন্তা তাদের মাথায় আসার আগেই আমরা তাদের প্রাপ্য প্রদান করি। কর্মচারীরা যখন কোনো চ্যালেঞ্জের সম্মুখীন হয়, তখন তারা সরাসরি আমার সঙ্গে যোগাযোগ করেন।

 

তথ্যসূত্র: এনডিটিভি, টাইমস অব ইন্ডিয়া

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন