ভাষাসৈনিক রওশন আরা বাচ্চু আর নেই
jugantor
ভাষাসৈনিক রওশন আরা বাচ্চু আর নেই

  যুগান্তর রিপোর্ট  

০৩ ডিসেম্বর ২০১৯, ১৬:০৬:১৭  |  অনলাইন সংস্করণ

ভাষাসৈনিক রওশন আরা বাচ্চু আর নেই

ভাষাসৈনিক রওশন আরা বাচ্চু আর নেই। সোমবার দিবাগত রাত ৩টার দিকে রাজধানীর একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি ইন্তেকাল (ইন্নালিল্লাহি...রাজিউন) করেন।

মায়ের মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করে রওশন আরার মেয়ে তাহমিদা বাচ্চু জানান, সোমবার রাত ৩টার দিকে চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

ভাষাসৈনিক রওশন আরা বাচ্চুর মৃত্যুতে সংস্কৃতি বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ এমপি গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন।

রওশন আরার স্বজনরা জানিয়েছেন, শেষবারের মতো শ্রদ্ধা জানাতে রওশন আরার লাশ আজ বিকাল সাড়ে তিনটার পর বাংলা একাডেমি প্রাঙ্গণে নেয়া হবে। একাডেমি থেকে লাশ রাজধানীর পশ্চিম মণিপুরের বাসায় নেয়া হবে। সেখান থেকে জানাজা শেষে তার মরদেহ নিয়ে যাওয়া হবে গ্রামের বাড়ি কুলাউড়ায়।

১৯৫২ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি রাষ্ট্রভাষা বাংলার দাবিতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আমতলায় মেয়েদের যে মিছিলটি পুলিশের ব্যারিকেডে ভেঙেছিল সেই মিছিলে ছিলেন রওশন আরা। নারী হিসেবে ভাষাসৈনিকের স্বীকৃতি না পাওয়ায় তার ক্ষোভও ছিল।

রওশন আরার জন্ম ১৯৩২ সালের ১৭ই ডিসেম্বর মৌলভীবাজারের কুলাউড়া থানার উছলাপাড়া গ্রামে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে দর্শনে অনার্স ও ইতিহাসে এমএ পাস করেন তিনি। ঢাকার বেশকিছু খ্যাতনামা স্কুলে তিনি শিক্ষকতা করেছেন। এর মধ্যে রয়েছে- আজিমপুর গার্লস স্কুল, নজরুল একাডেমি, কাকলি হাই স্কুল।

ভাষাসৈনিক রওশন আরা বাচ্চু আর নেই

 যুগান্তর রিপোর্ট 
০৩ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৪:০৬ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
ভাষাসৈনিক রওশন আরা বাচ্চু আর নেই
ভাষাসৈনিক রওশন আরা বাচ্চু। ফাইল ছবি

ভাষাসৈনিক রওশন আরা বাচ্চু আর নেই। সোমবার দিবাগত রাত ৩টার দিকে রাজধানীর একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি ইন্তেকাল (ইন্নালিল্লাহি...রাজিউন) করেন। 

মায়ের মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করে রওশন আরার মেয়ে তাহমিদা বাচ্চু জানান, সোমবার  রাত ৩টার দিকে চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

ভাষাসৈনিক রওশন আরা বাচ্চুর মৃত্যুতে সংস্কৃতি বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ এমপি গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন।

রওশন আরার স্বজনরা জানিয়েছেন, শেষবারের মতো শ্রদ্ধা জানাতে রওশন আরার লাশ আজ বিকাল সাড়ে তিনটার পর বাংলা একাডেমি প্রাঙ্গণে নেয়া হবে। একাডেমি থেকে লাশ রাজধানীর পশ্চিম মণিপুরের বাসায় নেয়া হবে।  সেখান থেকে জানাজা শেষে তার মরদেহ নিয়ে যাওয়া হবে গ্রামের বাড়ি কুলাউড়ায়।

১৯৫২ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি রাষ্ট্রভাষা বাংলার দাবিতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আমতলায় মেয়েদের যে মিছিলটি পুলিশের ব্যারিকেডে ভেঙেছিল সেই মিছিলে ছিলেন রওশন আরা। নারী হিসেবে ভাষাসৈনিকের স্বীকৃতি না পাওয়ায় তার ক্ষোভও ছিল।

রওশন আরার জন্ম ১৯৩২ সালের ১৭ই ডিসেম্বর মৌলভীবাজারের  কুলাউড়া থানার উছলাপাড়া গ্রামে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে দর্শনে অনার্স ও ইতিহাসে এমএ পাস করেন তিনি। ঢাকার বেশকিছু খ্যাতনামা স্কুলে তিনি শিক্ষকতা করেছেন। এর মধ্যে রয়েছে- আজিমপুর গার্লস স্কুল, নজরুল একাডেমি, কাকলি হাই স্কুল।