রেলের অব্যবস্থাপনা দেখার যেন কেউ নেই: জিএম কাদের
jugantor
রেলের অব্যবস্থাপনা দেখার যেন কেউ নেই: জিএম কাদের

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

৩০ জুলাই ২০২২, ১৬:০৩:৪৯  |  অনলাইন সংস্করণ

জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান জিএম কাদের বলেছেন, রেল বিভাগের অবহেলা ও অব্যবস্থাপনা দেখার যেন কেউ নেই। প্রতিটি দুর্ঘটনায় তদন্ত কমিটি গঠন করা হলেও, তদন্ত প্রতিবেদন জানতে পারে না দেশের মানুষ। দুর্ঘটনা রোধে সরকার কী ব্যবস্থা নিচ্ছে তাও জানতে পারে না কেউ।

চট্টগ্রামের মিরসরাইয়ে লেভেল ক্রসিংয়ে ট্রেনের ধাক্কায় ১১ জনের মৃত্যুর পর শনিবার এক বিবৃতিতে এই অভিযোগ করেন তিনি।

জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান বলেন, দেশের রেলক্রসিং যেন মরণ ফাঁদ। সারাবিশ্বে রেলপথে যাতায়াত নিরাপদ হিসেবে বিবেচিত হলেও বাংলাদেশে যেন আতঙ্কের বিষয় হয়ে দাঁড়াচ্ছে। পঞ্চাশ বছরে দেশের রেলপথ নিরাপদ হয়নি।

তিনি বলেন, গণমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদনে জানা গেছে, দেশের প্রায় ৮২ ভাগ রেল ক্রসিং অরক্ষিত। এসব অরক্ষিত রেল ক্রসিংয়ে নেই পাহারাদার ও কোনো প্রতিবন্ধক। আবার ১৮ ভাগ রেল ক্রসিংয়ে পাহারাদার ও প্রতিবন্ধক থাকলেও সেখানেও অবহেলার অন্ত নেই। তাই প্রতিদিনই ঘটছে দুর্ঘটনা, প্রতিবছর প্রাণ যাচ্ছে অসংখ্য মানুষের।

রেলপথ নিরাপদ করতে জরুরি উদ্যোগ প্রত্যাশা করে তিনি বলেন, রেলপথে মৃত্যুর মিছিল মেনে নেওয়া যায় না। আধুনিক যুগে রেলপথের দুর্ঘটনাগুলো প্রমাণ করে আমরা কতটা পিছিয়ে আছি। দেশের রেলপথ নিরাপদ করতে এখনই প্রয়োজনীয় উদ্যোগ নেয়া দরকার।

রেলের অব্যবস্থাপনা দেখার যেন কেউ নেই: জিএম কাদের

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
৩০ জুলাই ২০২২, ০৪:০৩ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান জিএম কাদের বলেছেন, রেল বিভাগের অবহেলা ও অব্যবস্থাপনা দেখার যেন কেউ নেই। প্রতিটি দুর্ঘটনায় তদন্ত কমিটি গঠন করা হলেও, তদন্ত প্রতিবেদন জানতে পারে না দেশের মানুষ। দুর্ঘটনা রোধে সরকার কী ব্যবস্থা নিচ্ছে তাও জানতে পারে না কেউ।

চট্টগ্রামের মিরসরাইয়ে লেভেল ক্রসিংয়ে ট্রেনের ধাক্কায় ১১ জনের মৃত্যুর পর শনিবার এক বিবৃতিতে এই অভিযোগ করেন তিনি।

জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান বলেন, দেশের রেলক্রসিং যেন মরণ ফাঁদ। সারাবিশ্বে রেলপথে যাতায়াত নিরাপদ হিসেবে বিবেচিত হলেও বাংলাদেশে যেন আতঙ্কের বিষয় হয়ে দাঁড়াচ্ছে। পঞ্চাশ বছরে দেশের রেলপথ নিরাপদ হয়নি।

তিনি বলেন, গণমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদনে জানা গেছে, দেশের প্রায় ৮২ ভাগ রেল ক্রসিং অরক্ষিত। এসব অরক্ষিত রেল ক্রসিংয়ে নেই পাহারাদার ও কোনো প্রতিবন্ধক। আবার ১৮ ভাগ রেল ক্রসিংয়ে পাহারাদার ও প্রতিবন্ধক থাকলেও সেখানেও অবহেলার অন্ত নেই। তাই প্রতিদিনই ঘটছে দুর্ঘটনা, প্রতিবছর প্রাণ যাচ্ছে অসংখ্য মানুষের।

রেলপথ নিরাপদ করতে জরুরি উদ্যোগ প্রত্যাশা করে তিনি বলেন, রেলপথে মৃত্যুর মিছিল মেনে নেওয়া যায় না। আধুনিক যুগে রেলপথের দুর্ঘটনাগুলো প্রমাণ করে আমরা কতটা পিছিয়ে আছি। দেশের রেলপথ নিরাপদ করতে এখনই প্রয়োজনীয় উদ্যোগ নেয়া দরকার।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন