গুগল প্লে-স্টোরের টপ ফ্রি এন্টারটেইনমেন্ট বিভাগের শীর্ষে ‘টফি’
jugantor
গুগল প্লে-স্টোরের টপ ফ্রি এন্টারটেইনমেন্ট বিভাগের শীর্ষে ‘টফি’

  আইটি ডেস্ক  

১৬ জানুয়ারি ২০২১, ১১:২২:০০  |  অনলাইন সংস্করণ

বাংলাদেশে গুগল প্লে-স্টোরের টপ ফ্রি এন্টারটেইনমেন্ট বিভাগে শীর্ষ অবস্থানে রয়েছে বাংলালিংকে স্ট্রিমিং অ্যাপ টফি। বর্তমানে অ্যাপটির প্লে-স্টোর রেটিং ৪.৩। চালু হওয়ার এক বছর পর মাসিক বৃদ্ধির হার অনুসারে টফির ব্যবহারকারীর সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়েছে ২০ গুণ।

টফির যাত্রা শুরু হয় ২০১৯ সালের ৫ নভেম্বর। সকল শ্রেণীর মানুষের চাহিদার কথা ভেবে সাজানো হয়েছে এর কনটেন্ট। ব্যবহারকারীরা বিনামূল্যে অ্যাপটিতে ৯০টিরও অধিক দেশি-বিদেশি টিভি চ্যানেলের পাশাপাশি উপভোগ করতে পারছেন নতুন-পুরানো বিভিন্ন জনপ্রিয় ধারাবাহিক নাটক ও টেলিফিল্ম।

এছাড়াও স্ট্রিমিং অ্যাপটিতে রয়েছে দর্শকনন্দিত ধারাবাহিক এফএনএফ, তিতাস একটি নদীর নাম, শ্যামল ছায়া ও জয়যাত্রা-এর মতো বিখ্যাত সিনেমা। বিভিন্ন ধর্মীয় অনুষ্ঠান, মিউজিক ভিডিও আর সরাসরি সম্প্রচারিত বিভিন্ন ম্যাচ দেখারও সুবিধা রয়েছে এতে। আর এই সবকিছুই টফিতে দেখা যাবে সম্পূর্ণ বিনামূল্যে।

বর্তমানে দেশে দর্শকপ্রিয়তা পাচ্ছে বিভিন্ন তুর্কি সিরিজ। বিষয়টি বিবেচনা করে সম্প্রতি টফিতে আনা হয়েছে বাংলায় ডাবকৃত জনপ্রিয় তুর্কি সিরিজ “কুরুলুস ওসমান”। শুধু টফি অ্যাপেই দেখা যাচ্ছে বাংলায় ডাবকৃত সিরিজটি। সিরিজটির বিভিন্ন পর্বের উপর ভিত্তি করে কুইজের আয়োজনও করা হয়েছে দর্শকদের জন্য। সঠিক উত্তরদাতাদের জন্য রয়েছে আকর্ষণীয় পুরষ্কার।

বাংলালিংকের ডিজিটাল সার্ভিসেস ডিরেক্টর আব্দুল মুকিত আহমেদ বলেন, “দেশে এখন স্ট্রিমিং প্ল্যাটফর্মের জনপ্রিয়তা দ্রুত বৃদ্ধি পাচ্ছে।তাই আমরাও প্রতিনিয়ত টফিতে আরও বেশি মানসম্মত কনটেন্ট আনার চেষ্টা করছি। গত বছর টফির গ্রাহক সংখ্যার উল্লেখযোগ্য বৃদ্ধি প্রমাণ করে যে আমাদের প্রচেষ্টা অনেকাংশে সফল হয়েছে। গ্রাহকদের চাহিদা পূরণে আগামীতেও আমাদের এই প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকবে।”

গুগল প্লে-স্টোর থেকে ডাউনলোড করার পর যেকোনো মোবাইল নম্বর দিয়ে নিবন্ধন করে মোবাইল ডেটা বা ওয়াইফাই দিয়ে খুব সহজেই টফি ব্যবহার করা যায়।

গুগল প্লে-স্টোরের টপ ফ্রি এন্টারটেইনমেন্ট বিভাগের শীর্ষে ‘টফি’

 আইটি ডেস্ক 
১৬ জানুয়ারি ২০২১, ১১:২২ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

বাংলাদেশে গুগল প্লে-স্টোরের টপ ফ্রি এন্টারটেইনমেন্ট বিভাগে শীর্ষ অবস্থানে রয়েছে বাংলালিংকে স্ট্রিমিং অ্যাপ টফি। বর্তমানে অ্যাপটির প্লে-স্টোর রেটিং ৪.৩। চালু হওয়ার এক বছর পর মাসিক বৃদ্ধির হার অনুসারে টফির ব্যবহারকারীর সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়েছে ২০ গুণ।  

টফির যাত্রা শুরু হয় ২০১৯ সালের ৫ নভেম্বর। সকল শ্রেণীর মানুষের চাহিদার কথা ভেবে সাজানো হয়েছে এর কনটেন্ট। ব্যবহারকারীরা বিনামূল্যে অ্যাপটিতে ৯০টিরও অধিক দেশি-বিদেশি টিভি চ্যানেলের পাশাপাশি উপভোগ করতে পারছেন নতুন-পুরানো বিভিন্ন জনপ্রিয় ধারাবাহিক নাটক ও টেলিফিল্ম। 

এছাড়াও স্ট্রিমিং অ্যাপটিতে রয়েছে দর্শকনন্দিত ধারাবাহিক এফএনএফ, তিতাস একটি নদীর নাম, শ্যামল ছায়া ও জয়যাত্রা-এর মতো বিখ্যাত সিনেমা। বিভিন্ন ধর্মীয় অনুষ্ঠান, মিউজিক ভিডিও আর সরাসরি সম্প্রচারিত বিভিন্ন ম্যাচ দেখারও সুবিধা রয়েছে এতে। আর এই সবকিছুই টফিতে দেখা যাবে সম্পূর্ণ বিনামূল্যে। 

বর্তমানে দেশে দর্শকপ্রিয়তা পাচ্ছে বিভিন্ন তুর্কি সিরিজ। বিষয়টি বিবেচনা করে সম্প্রতি টফিতে আনা হয়েছে বাংলায় ডাবকৃত জনপ্রিয় তুর্কি সিরিজ “কুরুলুস ওসমান”। শুধু টফি অ্যাপেই দেখা যাচ্ছে বাংলায় ডাবকৃত সিরিজটি। সিরিজটির বিভিন্ন পর্বের উপর ভিত্তি করে কুইজের আয়োজনও করা হয়েছে দর্শকদের জন্য। সঠিক উত্তরদাতাদের জন্য রয়েছে আকর্ষণীয় পুরষ্কার।  

বাংলালিংকের ডিজিটাল সার্ভিসেস ডিরেক্টর আব্দুল মুকিত আহমেদ বলেন, “দেশে এখন স্ট্রিমিং প্ল্যাটফর্মের জনপ্রিয়তা দ্রুত বৃদ্ধি পাচ্ছে।তাই আমরাও প্রতিনিয়ত টফিতে আরও বেশি মানসম্মত কনটেন্ট আনার চেষ্টা করছি। গত বছর টফির গ্রাহক সংখ্যার উল্লেখযোগ্য বৃদ্ধি প্রমাণ করে যে আমাদের প্রচেষ্টা অনেকাংশে সফল হয়েছে। গ্রাহকদের চাহিদা পূরণে আগামীতেও আমাদের এই প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকবে।”

গুগল প্লে-স্টোর থেকে ডাউনলোড করার পর যেকোনো মোবাইল নম্বর দিয়ে নিবন্ধন করে মোবাইল ডেটা বা ওয়াইফাই দিয়ে খুব সহজেই টফি ব্যবহার করা যায়।