সুরের জগতে দ্বীনের আলো ছড়ায় কলরব
jugantor
সুরের জগতে দ্বীনের আলো ছড়ায় কলরব

  হাসান সাইদুল  

২৮ অক্টোবর ২০২২, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

একটা সময় শুক্রবারের জুমা কিংবা বাৎসরিক মাহফিলে হামদ, নাত কিংবা গজল গাওয়া হতো। শবেবরাত, শবেকদরসহ স্কুলের বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতায়ও শিক্ষার্থীরা গজল গাইতেন।

প্রযুক্তির কল্যাণে গজল, হামদ, নাত সামগ্রিক অর্থে ইসলামিক সংগীত অনেক দূর এগিয়েছে। দেশের যে কটি প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান ও সংগঠন ইসলামিক সংগীত চর্চার পাশাপাশি সংগীত নির্মাণে কাজ করছে তার মধ্যে কলরব অন্যতম।গান যে শুধু চিত্তবিনোদন কিংবা বিরহ বিচ্ছেদের কথা বলবে তা নয়।

দ্বীনের আলো ছড়িয়ে দিতেও ইসলামিক গান যে বিশেষ ভূমিকা রাখতে পারে -সে কথার প্রমাণই দিয়ে যাচ্ছে কলরব। সহজ ও সুন্দর কথায় ইসলামিক গান তৈরি করে কলরব ইতোমধ্যে বাংলা ভাষাভাষী বিশ্বের কোটি কোটি দর্শকদের কাছে পৌঁছে গেছে। গানের অন্যান্য ধারা কিংবা নানামুখী গানের মধ্যে ইসলামিক সাংস্কৃতিক সংগঠন কলরব, সমসাময়িক প্রসঙ্গসহ ইতিহাস ঐতিহ্যের কথায়ও গান পরিবেশন করে।

গান পরিবেশনের সঙ্গে সঙ্গে ইসলামি গানের চর্চাও করে যাচ্ছে অনেক বছর ধরে। তৈরি হচ্ছেন ইসলামি শিল্পী। সুরের জগতে কলরব যেমন সমৃদ্ধ হচ্ছে তেমনই প্রায় সব শ্রেণির মানুষের হৃদয়েও গেঁথে যাচ্ছে তাদের সৃষ্টি।

এ সফলতার মূল রহস্য কি জানতে চাইলে কলরবের নির্বাহী পরিচালক মুহাম্মদ বদরুজ্জামান বলেন, ‘ইসলামের আওয়াজ সর্বত্র ছড়িয়ে দেওয়ার স্বপ্ন লালন করে আমরা কাজ করছি। সুরের মাধ্যমে মানুষকে সুস্থ বিনোদন দিতে চাই আমরা। এ ধারার সংগীত বরাবরই শ্রোতাদের পছন্দ ছিল, আছে এবং থাকবে।

বদরুজ্জামান আরও বলেন, আমি জীবনে বড় কিছু হতে চেয়েছিলাম। আমার বাবা ছিলেন একজন সেনাবাহিনী সদস্য। আমার তার চেয়ে আরও বড় কিছু হওয়ার স্বপ্ন ছিল। কিন্তু পড়ালেখার পাশাপাশি ইসলামিক সংগীতের সঙ্গে মিশে যাই। বলা চলে আমার নিশ্বাস ও রক্তের সঙ্গে মিশে গেছে ইসলামিক সংগীত। তাই এ সংগীতের মাধ্যমে দ্বীনের খেদমত করতে করতে নিজের অন্য স্বপ্নকে মাটি দিয়েছি। আমরা চাই ‘সাংগঠনিকভাবে, দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনার আলোকে ইসলামি সংগীতকে প্রতিষ্ঠিত ধারায় নিয়ে যেতে। বিরাট এ স্বপ্ন নিয়ে মরহুম আইনুদ্দীন আল আজাদ কলরব প্রতিষ্ঠা করেছিলেন।

তিনি ২০১০ সালে এক সড়ক দুর্ঘটনায় ইন্তেকাল করেন। তার একজন শিষ্য হিসাবে সব সময় আমার চেষ্টা ছিল, তার স্বপ্ন বাস্তবায়ন করা। সে ধারাবাহিকতায় যুগের চাহিদার ভিত্তিতে ২০১৬ সালে কলরবের সহযোগী হয়ে হলি টিউন চ্যানেলের যাত্রা শুরু। আলহামদুলিল্লাহ! রাত দিনের দীর্ঘ পরিশ্রমে আজ হলি টিউন অনেক দূর এগিয়েছে। সব শ্রেণির শ্রোতার আন্তরিক ভালোবাসা কলরবের পথচলাকে সুগম করেছে।

কলরব পারিবারিক আর্থসামাজিক ও রাষ্ট্রীয় পর্যায় যখন কোনো অসংগতি কিংবা সংকট তৈরি হয় বা যখন সফলতা আসে সে বিষয় নিয়ে ইসলামিক গান পরিবেশন করে। কলরবের সব গানই দর্শক ও শ্রোতাদের কাছে বেশ জনপ্রিয়।

লেখক : সংবাদকর্মী

সুরের জগতে দ্বীনের আলো ছড়ায় কলরব

 হাসান সাইদুল 
২৮ অক্টোবর ২০২২, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

একটা সময় শুক্রবারের জুমা কিংবা বাৎসরিক মাহফিলে হামদ, নাত কিংবা গজল গাওয়া হতো। শবেবরাত, শবেকদরসহ স্কুলের বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতায়ও শিক্ষার্থীরা গজল গাইতেন।

প্রযুক্তির কল্যাণে গজল, হামদ, নাত সামগ্রিক অর্থে ইসলামিক সংগীত অনেক দূর এগিয়েছে। দেশের যে কটি প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান ও সংগঠন ইসলামিক সংগীত চর্চার পাশাপাশি সংগীত নির্মাণে কাজ করছে তার মধ্যে কলরব অন্যতম।গান যে শুধু চিত্তবিনোদন কিংবা বিরহ বিচ্ছেদের কথা বলবে তা নয়।

দ্বীনের আলো ছড়িয়ে দিতেও ইসলামিক গান যে বিশেষ ভূমিকা রাখতে পারে -সে কথার প্রমাণই দিয়ে যাচ্ছে কলরব। সহজ ও সুন্দর কথায় ইসলামিক গান তৈরি করে কলরব ইতোমধ্যে বাংলা ভাষাভাষী বিশ্বের কোটি কোটি দর্শকদের কাছে পৌঁছে গেছে। গানের অন্যান্য ধারা কিংবা নানামুখী গানের মধ্যে ইসলামিক সাংস্কৃতিক সংগঠন কলরব, সমসাময়িক প্রসঙ্গসহ ইতিহাস ঐতিহ্যের কথায়ও গান পরিবেশন করে।

গান পরিবেশনের সঙ্গে সঙ্গে ইসলামি গানের চর্চাও করে যাচ্ছে অনেক বছর ধরে। তৈরি হচ্ছেন ইসলামি শিল্পী। সুরের জগতে কলরব যেমন সমৃদ্ধ হচ্ছে তেমনই প্রায় সব শ্রেণির মানুষের হৃদয়েও গেঁথে যাচ্ছে তাদের সৃষ্টি।

এ সফলতার মূল রহস্য কি জানতে চাইলে কলরবের নির্বাহী পরিচালক মুহাম্মদ বদরুজ্জামান বলেন, ‘ইসলামের আওয়াজ সর্বত্র ছড়িয়ে দেওয়ার স্বপ্ন লালন করে আমরা কাজ করছি। সুরের মাধ্যমে মানুষকে সুস্থ বিনোদন দিতে চাই আমরা। এ ধারার সংগীত বরাবরই শ্রোতাদের পছন্দ ছিল, আছে এবং থাকবে।

বদরুজ্জামান আরও বলেন, আমি জীবনে বড় কিছু হতে চেয়েছিলাম। আমার বাবা ছিলেন একজন সেনাবাহিনী সদস্য। আমার তার চেয়ে আরও বড় কিছু হওয়ার স্বপ্ন ছিল। কিন্তু পড়ালেখার পাশাপাশি ইসলামিক সংগীতের সঙ্গে মিশে যাই। বলা চলে আমার নিশ্বাস ও রক্তের সঙ্গে মিশে গেছে ইসলামিক সংগীত। তাই এ সংগীতের মাধ্যমে দ্বীনের খেদমত করতে করতে নিজের অন্য স্বপ্নকে মাটি দিয়েছি। আমরা চাই ‘সাংগঠনিকভাবে, দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনার আলোকে ইসলামি সংগীতকে প্রতিষ্ঠিত ধারায় নিয়ে যেতে। বিরাট এ স্বপ্ন নিয়ে মরহুম আইনুদ্দীন আল আজাদ কলরব প্রতিষ্ঠা করেছিলেন।

তিনি ২০১০ সালে এক সড়ক দুর্ঘটনায় ইন্তেকাল করেন। তার একজন শিষ্য হিসাবে সব সময় আমার চেষ্টা ছিল, তার স্বপ্ন বাস্তবায়ন করা। সে ধারাবাহিকতায় যুগের চাহিদার ভিত্তিতে ২০১৬ সালে কলরবের সহযোগী হয়ে হলি টিউন চ্যানেলের যাত্রা শুরু। আলহামদুলিল্লাহ! রাত দিনের দীর্ঘ পরিশ্রমে আজ হলি টিউন অনেক দূর এগিয়েছে। সব শ্রেণির শ্রোতার আন্তরিক ভালোবাসা কলরবের পথচলাকে সুগম করেছে।

কলরব পারিবারিক আর্থসামাজিক ও রাষ্ট্রীয় পর্যায় যখন কোনো অসংগতি কিংবা সংকট তৈরি হয় বা যখন সফলতা আসে সে বিষয় নিয়ে ইসলামিক গান পরিবেশন করে। কলরবের সব গানই দর্শক ও শ্রোতাদের কাছে বেশ জনপ্রিয়।

লেখক : সংবাদকর্মী

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন