নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটিতে কোভিড-১৯ নিয়ে ভার্চুয়াল কনফারেন্স
jugantor
নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটিতে কোভিড-১৯ নিয়ে ভার্চুয়াল কনফারেন্স

  সংবাদ বিজ্ঞপ্তি  

১২ আগস্ট ২০২০, ২২:০৫:৪৮  |  অনলাইন সংস্করণ

বাংলাদেশে বেসরকারি পর্যায়ে উচ্চ শিক্ষার পথপ্রদর্শক এবং বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে র্যাং কিংয়ে প্রথম স্থান অধিকারী নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটির গ্লোবাল হেলথ ইন্সটিটিউটের উদ্যোগে কোভিড-১৯ নিয়ে ভার্চুয়াল কনফারেন্স অনুষ্ঠিত হয়েছে।

১১ আগস্ট ‘সর্বোত্তম আগামীর জন্য : সর্বশেষ কোভিড-১৯ পরিস্থিতির বিষয়ে বৈজ্ঞানিক বিশ্লেষণ এবং সংলাপ’ শীর্ষক এ অনলাইন সংলাপ শুরু হয় সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায়।

উপাচার্য অধ্যাপক আতিকুল ইসলামের সভাপতিত্বে এ ইন্টারেক্টিভ ওয়েবিনারে প্রধান অতিথি ছিলেন শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী, বিশেষ অতিথি ছিলেন নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটির ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান এবং এফবিসিসিআয়ের প্রাক্তন সভাপতি এমএ কাসেম।

শিক্ষা উপমন্ত্রী বলেন, সরকার দেশের সকল মানুষের নিরাপত্তার লক্ষে কাজ করে যাচ্ছে। এ সময় শিক্ষা প্রতিষ্ঠান কবে খুলবে এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, বিশেষজ্ঞ কমিটি যেভাবে নির্দেশনা দিবে সেই নির্দেশনা অনুযায়ী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলা হবে। আমাদের দেশের বাস্তবতা হল পরিস্থিতি সর্বত্র একরকম নয়। সব জায়গাতে ছাত্র-ছাত্রীর ঘনত্বও এক নয়। সুতারং এই অবস্থায় সকলের জন্য উপযোগী একটা ঝুঁকি নিয়ন্ত্রিত সিধান্ত ও পরিকল্পনা নেওয়ার জন্য আরও একটু সময়ের প্রয়োজন। ইতিমধ্যে বিশেষজ্ঞ কমিটি পর্যালোচনা করছেন, সেটা বিবেচনা করে আমরা আগাবো।

নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটির ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান এমএ কাসেম বলেন, করোনা পরিস্থিতির কারণে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলা রাখা যাচ্ছে না। কিন্তু একজন শিক্ষার্থী যদি এভাবে বেশিদিন পাঠ গ্রহণ থেকে দূরে থাকে তাহলে তা মেধার বিকাশে বাধা হয়ে যাবে। এই জন্য শিক্ষার্থীদের অনলাইন শিক্ষায় উৎসাহিত করতে হবে।

অধ্যাপক আতিকুল ইসলাম বলেন, সরকার অত্যন্ত সফলতার সাথে মানুষের মাঝে করোনাবিষয়ক সচেতনতায় করণীয় বিষয়গুলো অবগত করতে পেরেছে এবং করোনা মোকাবেলায় নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে।

ভার্চুয়াল কনফারেন্সে বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যান্ড ডেন্টাল কাউন্সিলের সভাপতি এবং কোভিড-১৯ জাতীয় টেকনিক্যাল পরামর্শক কমিটির সভাপতি শিশু বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ শহীদুল্লাহ, স্বাস্থ্য অধিদফতরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (পরিকল্পনা ও উন্নয়ন) অধ্যাপক ডা. সানিয়া তাহমিনা ঝরা, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য (শিক্ষা)  অধ্যাপক ড. এএসএম মাকসুদ কামাল, এনএসইউ গ্লোবাল হেলথ ইন্সটিটিউটের পরিচালক অধ্যাপক ড. আহমেদ হোসেন, আইইডিসিআরের উপদেষ্টা এবং আইইডিসিআরের প্রাক্তন বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ও মেডিকেল সামাজিক বিজ্ঞানের বিভাগীয় প্রধান ড. মোহাম্মদ মুশতাক হোসেন, এবিনিউজ২৪-এর প্রধান সম্পাদক সুভাষ সিংহ রায়। 

নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটির স্কুল অব হেলথ অ্যান্ড লাইফ সায়েন্সসের ভারপ্রাপ্ত ডিন প্রফেসর ড. হাসান মাহমুদ অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন।

এছাড়া উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ও গবেষকবৃন্দ, গণমাধ্যমের প্রতিনিধিসহ আরও অনেকে।

নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটিতে কোভিড-১৯ নিয়ে ভার্চুয়াল কনফারেন্স

 সংবাদ বিজ্ঞপ্তি 
১২ আগস্ট ২০২০, ১০:০৫ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

বাংলাদেশে বেসরকারি পর্যায়ে উচ্চ শিক্ষার পথপ্রদর্শক এবং বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে র্যাং কিংয়ে প্রথম স্থান অধিকারী নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটির গ্লোবাল হেলথ ইন্সটিটিউটের উদ্যোগে কোভিড-১৯ নিয়ে ভার্চুয়াল কনফারেন্স অনুষ্ঠিত হয়েছে।

১১ আগস্ট ‘সর্বোত্তম আগামীর জন্য : সর্বশেষ কোভিড-১৯ পরিস্থিতির বিষয়ে বৈজ্ঞানিক বিশ্লেষণ এবং সংলাপ’ শীর্ষক এ অনলাইন সংলাপ শুরু হয় সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায়।

উপাচার্য অধ্যাপক আতিকুল ইসলামের সভাপতিত্বে এ ইন্টারেক্টিভ ওয়েবিনারে প্রধান অতিথি ছিলেন শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী, বিশেষ অতিথি ছিলেন নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটির ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান এবং এফবিসিসিআয়ের প্রাক্তন সভাপতি এমএ কাসেম।

শিক্ষা উপমন্ত্রী বলেন, সরকার দেশের সকল মানুষের নিরাপত্তার লক্ষে কাজ করে যাচ্ছে। এ সময় শিক্ষা প্রতিষ্ঠান কবে খুলবে এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, বিশেষজ্ঞ কমিটি যেভাবে নির্দেশনা দিবে সেই নির্দেশনা অনুযায়ী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলা হবে। আমাদের দেশের বাস্তবতা হল পরিস্থিতি সর্বত্র একরকম নয়। সব জায়গাতে ছাত্র-ছাত্রীর ঘনত্বও এক নয়। সুতারং এই অবস্থায় সকলের জন্য উপযোগী একটা ঝুঁকি নিয়ন্ত্রিত সিধান্ত ও পরিকল্পনা নেওয়ার জন্য আরও একটু সময়ের প্রয়োজন। ইতিমধ্যে বিশেষজ্ঞ কমিটি পর্যালোচনা করছেন, সেটা বিবেচনা করে আমরা আগাবো।

নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটির ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান এমএ কাসেম বলেন, করোনা পরিস্থিতির কারণে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলা রাখা যাচ্ছে না। কিন্তু একজন শিক্ষার্থী যদি এভাবে বেশিদিন পাঠ গ্রহণ থেকে দূরে থাকে তাহলে তা মেধার বিকাশে বাধা হয়ে যাবে। এই জন্য শিক্ষার্থীদের অনলাইন শিক্ষায় উৎসাহিত করতে হবে।

অধ্যাপক আতিকুল ইসলাম বলেন, সরকার অত্যন্ত সফলতার সাথে মানুষের মাঝে করোনাবিষয়ক সচেতনতায় করণীয় বিষয়গুলো অবগত করতে পেরেছে এবং করোনা মোকাবেলায় নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে।

ভার্চুয়াল কনফারেন্সে বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যান্ড ডেন্টাল কাউন্সিলের সভাপতি এবং কোভিড-১৯ জাতীয় টেকনিক্যাল পরামর্শক কমিটির সভাপতি শিশু বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ শহীদুল্লাহ, স্বাস্থ্য অধিদফতরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (পরিকল্পনা ও উন্নয়ন) অধ্যাপক ডা. সানিয়া তাহমিনা ঝরা, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য (শিক্ষা) অধ্যাপক ড. এএসএম মাকসুদ কামাল, এনএসইউ গ্লোবাল হেলথ ইন্সটিটিউটের পরিচালক অধ্যাপক ড. আহমেদ হোসেন, আইইডিসিআরের উপদেষ্টা এবং আইইডিসিআরের প্রাক্তন বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ও মেডিকেল সামাজিক বিজ্ঞানের বিভাগীয় প্রধান ড. মোহাম্মদ মুশতাক হোসেন, এবিনিউজ২৪-এর প্রধান সম্পাদক সুভাষ সিংহ রায়।

নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটির স্কুল অব হেলথ অ্যান্ড লাইফ সায়েন্সসের ভারপ্রাপ্ত ডিন প্রফেসর ড. হাসান মাহমুদ অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন।

এছাড়া উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ও গবেষকবৃন্দ, গণমাধ্যমের প্রতিনিধিসহ আরও অনেকে।