রংপুরে সরকারি ওষুধ উদ্ধার, সিভিল সার্জনের পিয়নসহ গ্রেফতার ৭
jugantor
রংপুরে সরকারি ওষুধ উদ্ধার, সিভিল সার্জনের পিয়নসহ গ্রেফতার ৭

  রংপুর ব্যুরো  

২১ জুলাই ২০২০, ২২:৪২:১১  |  অনলাইন সংস্করণ

রংপুরে বিনামূল্যের সরকারি ওষুধ পাচার ও চোরাকারবারি চক্রের দুই সক্রিয় সদস্যসহ ৭ জনকে গ্রেফতার করেছে মেট্রোপলিটন পুলিশ। তাদের কাছ থেকে প্রায় দুই লাখ টাকার বিপুল পরিমাণ জীবন রক্ষাকারী সরকারি ওষুধ উদ্ধার হয়েছে।

গ্রেফতারকৃতদের একজন রংপুর সিভিল সার্জন কার্যালয়ে অফিস সহকারী, বাকিরা চোরাকারবারি চক্রের সদস্য ও ওষুধ দোকানের মালিক। 

পুলিশ সূত্র জানায়, ওই চক্রটি দীর্ঘদিন ধরে বিভিন্ন সরকারি হাসপাতাল, কমিউনিটি ক্লিনিক ও প্রতিষ্ঠান থেকে সরকারীভাবে বিনামূল্যে বিতরণের জন্য দেয়া এ সব ওষুধ পাচার করে বিক্রি করত। এই কাজে তাদের সহযোগিতা করতেন সরকারি স্বাস্থ্য বিভাগের দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা। তারা অসাধু কিছু ওষুধের দোকানের মালিকের কাছে সরকারি মূল্যবান ওষুধ অর্থের বিনিময়ে সরবরাহ করত।

মঙ্গলবার দুপুরে মাহিগঞ্জ থানায় অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান আরপিএমপির উপ-পুলিশ কমিশনার (অপরাধ)  কাজী মুত্তাকী ইবনু মিনান।

তিনি জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে গত সোমবার দেওয়ানটুলি থেকে আবদুর রহমানকে বিপুল পরিমাণ সরকারি ওষুধসহ গ্রেফতার করা হয়। পরে তার দেয়া তথ্যে মাহিগঞ্জ থেকে ফার্মেসি মালিক হাশেম রেজা ও কমল চন্দ্র রায় এবং আজিজুল্লাহ রঘুবাজার থেকে ধীরেন চন্দ্র বর্মন ও দীপাল চন্দ্র বর্মনকে গ্রেফতার করা হয়। এ সময় তাদের কাছ থেকে বিপুল পরিমাণ বিনামূল্যের সরকারি ওষুধ উদ্ধার করা হয়।

এছাড়াও একই দিনে নিউ জুম্মাপাড়া থেকে রংপুর সিভিল সার্জন কার্যালয়ের পিয়ন এবং চোরাচালান চক্রের অন্যতম হোতা সাহের জামানকে গ্রেফতার করে পুলিশ। পরে তার দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে মঙ্গলবার সকালে পীরগাছার পাঠক শিকড় গ্রাম থেকে চক্রের আরেক হোতা খন্দকার আবদুস সালামকে আটক করা হয়।

গ্রেফতারকৃতদের কাছ থেকে ২৮ প্রকারের প্রায় দুই লাখ টাকার বিনামূল্যের সরকারি ওষুধ উদ্ধার করা হয়েছে। এই চক্রের অন্যান্য সদস্যদের সন্ধান করা হচ্ছে। একই সঙ্গে গ্রেফতারদের বিরুদ্ধে বিশেষ ক্ষমতা আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন সহকারী পুলিশ কমিশনার (মাহিগঞ্জ জোন) মো. ফারুক আহমেদ, মাহিগঞ্জ থানা পুলিশের ওসি আখতারুজ্জামান প্রধান, পুলিশ পরিদর্শক শাহ আলম সরদার প্রমুখ।

রংপুরে সরকারি ওষুধ উদ্ধার, সিভিল সার্জনের পিয়নসহ গ্রেফতার ৭

 রংপুর ব্যুরো 
২১ জুলাই ২০২০, ১০:৪২ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

রংপুরে বিনামূল্যের সরকারি ওষুধ পাচার ও চোরাকারবারি চক্রের দুই সক্রিয় সদস্যসহ ৭ জনকে গ্রেফতার করেছে মেট্রোপলিটন পুলিশ। তাদের কাছ থেকে প্রায় দুই লাখ টাকার বিপুল পরিমাণ জীবন রক্ষাকারী সরকারি ওষুধ উদ্ধার হয়েছে।

গ্রেফতারকৃতদের একজন রংপুর সিভিল সার্জন কার্যালয়ে অফিস সহকারী, বাকিরা চোরাকারবারি চক্রের সদস্য ও ওষুধ দোকানের মালিক।

পুলিশ সূত্র জানায়, ওই চক্রটি দীর্ঘদিন ধরে বিভিন্ন সরকারি হাসপাতাল, কমিউনিটি ক্লিনিক ও প্রতিষ্ঠান থেকে সরকারীভাবে বিনামূল্যে বিতরণের জন্য দেয়া এ সব ওষুধ পাচার করে বিক্রি করত। এই কাজে তাদের সহযোগিতা করতেন সরকারি স্বাস্থ্য বিভাগের দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা। তারা অসাধু কিছু ওষুধের দোকানের মালিকের কাছে সরকারি মূল্যবান ওষুধ অর্থের বিনিময়ে সরবরাহ করত।

মঙ্গলবার দুপুরে মাহিগঞ্জ থানায় অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান আরপিএমপির উপ-পুলিশ কমিশনার (অপরাধ) কাজী মুত্তাকী ইবনু মিনান।

তিনি জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে গত সোমবার দেওয়ানটুলি থেকে আবদুর রহমানকে বিপুল পরিমাণ সরকারি ওষুধসহ গ্রেফতার করা হয়। পরে তার দেয়া তথ্যে মাহিগঞ্জ থেকে ফার্মেসি মালিক হাশেম রেজা ও কমল চন্দ্র রায় এবং আজিজুল্লাহ রঘুবাজার থেকে ধীরেন চন্দ্র বর্মন ও দীপাল চন্দ্র বর্মনকে গ্রেফতার করা হয়। এ সময় তাদের কাছ থেকে বিপুল পরিমাণ বিনামূল্যের সরকারি ওষুধ উদ্ধার করা হয়।

এছাড়াও একই দিনে নিউ জুম্মাপাড়া থেকে রংপুর সিভিল সার্জন কার্যালয়ের পিয়ন এবং চোরাচালান চক্রের অন্যতম হোতা সাহের জামানকে গ্রেফতার করে পুলিশ। পরে তার দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে মঙ্গলবার সকালে পীরগাছার পাঠক শিকড় গ্রাম থেকে চক্রের আরেক হোতা খন্দকার আবদুস সালামকে আটক করা হয়।

গ্রেফতারকৃতদের কাছ থেকে ২৮ প্রকারের প্রায় দুই লাখ টাকার বিনামূল্যের সরকারি ওষুধ উদ্ধার করা হয়েছে। এই চক্রের অন্যান্য সদস্যদের সন্ধান করা হচ্ছে। একই সঙ্গে গ্রেফতারদের বিরুদ্ধে বিশেষ ক্ষমতা আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন সহকারী পুলিশ কমিশনার (মাহিগঞ্জ জোন) মো. ফারুক আহমেদ, মাহিগঞ্জ থানা পুলিশের ওসি আখতারুজ্জামান প্রধান, পুলিশ পরিদর্শক শাহ আলম সরদার প্রমুখ।

 
আরও খবর
 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন