পাঁচদিন পর ঢাবির সেই ছাত্রকে ছেড়ে দিল পুলিশ

  মহেশখালী (কক্সবাজার) প্রতিনিধি ২৮ জুলাই ২০২০, ২৩:০১:১০ | অনলাইন সংস্করণ

রেদওয়ান ফরহাদ। ফাইল ছবি

কক্সবাজার জেলার মহেশখালীর গ্রামের বাড়ি থেকে গোয়েন্দা পুলিশ পরিচয় দিয়ে তুলে নেয়ার পাঁচদিন পর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র রেদওয়ান ফরহাদ ও তার বড় ভাই রাশেদ খান মেননকে ছেড়ে দেয়া হয়েছে। মঙ্গলবার দুপুরে তাদেরকে ছেড়ে দেয়া হয়।

মহেশখালী থানার ওসি দিদারুল ফেরদৌস এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি যুগান্তরকে জানিয়েছেন, ‘আপাতত জঙ্গি সংশ্লিষ্টতার কোনো অভিযোগ না পাওয়ায় তাদের ছেড়ে দেয়া হয়েছে।’

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আরবি বিভাগের মাস্টার্সের ছাত্র রেদওয়ান ফরহাদকে শুক্রবার বিকালে মহেশখালীর কালারমার ছড়া ইউনিয়নের ইউনুচখালী গ্রাম থেকে এবং আগের দিন বিকালে তার বড় ভাই রাশেদ খান মেননকে স্থানীয় বাজার থেকে কয়েকজন ব্যক্তি ডিবি পরিচয়ে তুলে নিয়ে যায় বলে অভিযোগ করেন স্বজনরা।

মহেশখালীর এ ঘটনার পর তিনদিন পার হলেও দুই ভাইয়ের সন্ধান পায়নি পরিবার। পরে সোমবার দুপুরে কক্সবাজার জেলা পুলিশের নির্ভরযোগ্য একটি সূত্র দুই ভাইয়ের আটকের বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

সূত্রটি জানায়, জঙ্গি সংশ্লিষ্টতার অভিযোগে রেদওয়ান ও তার ভাইকে আটক করা হয়েছে। আটকের পর প্রথমে মহেশখালী থানায় নেয়া হয়। সেখান থেকে কক্সবাজার ও পরে ঢাকায় পুলিশ সদর দফতরে পাঠানো হয়। টানা দুদিন জিজ্ঞাসাবাদ শেষে তাদেরকে কক্সবাজার জেলা পুলিশের কাছে ফেরত পাঠানো হয়। দুপুরে রেদওয়ানের পরিবারের দুই সদস্য জেলা পুলিশ কার্যালয়ে গিয়ে তাদের নিয়ে আসেন।

রেদওয়ান ফরহাদের ভাই মাইনুদ্দিন যুগান্তরকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

এদিকে বিষয়টি নিয়ে পরিবারের পক্ষে খোঁজখবর রাখছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র এমএইচ সোহাগ। যুগান্তরকে তিনি জানান, জেলা পুলিশ কার্যালয় থেকে পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে বের হয়ে মহেশখালীর বাড়ির দিকে রওয়ানা হয়েছেন।

রেদওয়ান ফরহাদের বরাত দিয়ে তার ঘনিষ্ঠ অপর একটি সূত্র জানিয়েছে, রেদওয়ান ফরহাদকে কোনো মারধর করা হয়নি, শুধু জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে।

জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত