এনআইডি জালিয়াতি: উপসচিবসহ ৫ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে মামলা (ভিডিও)
jugantor
এনআইডি জালিয়াতি: উপসচিবসহ ৫ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে মামলা (ভিডিও)

  কুষ্টিয়া প্রতিনিধি  

০৭ মার্চ ২০২১, ২৩:০০:১১  |  অনলাইন সংস্করণ

কুষ্টিয়ায় জাতীয় পরিচয়পত্র (এনআইডি) জালিয়াতি করে শতকোটি টাকার সম্পত্তি আত্মসাৎ চেষ্টার অভিযোগ এনে এক উপসচিবসহ ৫ জন নির্বাচনী কর্মকর্তার বিরুদ্ধে পৃথক দুটি মামলা করা হয়েছে।

গত ৪ মার্চ কুষ্টিয়া মডেল থানা ও কুমারখালী থানায় এ মামলা করেন জেলার সিনিয়র নির্বাচন কর্মকর্তা আনিসুর রহমান। বিষয়টি রোববার জানাজানি হয়েছে।

আসামিদের মধ্যে আছেন- বর্তমানে ঢাকার নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ের উপসচিব নওয়াবুল ইসলাম, ফরিদপুরের অতিরিক্ত আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা জিয়াউর রহমান, মাগুরা সদরের উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা অমিত কুমার দাস, কুষ্টিয়া সদর উপজেলা নির্বাচন অফিসার ছামিউল আলম ও ওই অফিসের অফিস সহকারী জিএম সাদিক।

জেলা নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা গেছে, কুষ্টিয়া শহরের ১১০ এনএস রোডের বাসিন্দা এমএমএ ওয়াদুদ ও তার পরিবারের আরও ৫ সদস্যের নাম ও তথ্য ব্যবহার করে ৬ ব্যক্তি জালিয়াতির মাধ্যমে জাতীয় পরিচয়পত্র তৈরি করে শতকোটি টাকার সম্পত্তি হাতিয়ে নেয়ার চেষ্টা করেন। সংবাদমাধ্যমে গত বছরের শেষের দিকে এ সংবাদ প্রকাশ হলে দেশজুড়ে তোলপাড় সৃষ্টি হয়ে। পরে ঘটনা তদন্তে নামে নির্বাচন কমিশন।

তদন্তে কুষ্টিয়া জেলা নির্বাচন অফিসের তৎকালীন কর্মরত ৫ কর্মকর্তা-কর্মচারীর সম্পৃক্ততার সুস্পষ্ট প্রমাণ মেলে। এ ঘটনায় নির্বাচন কমিশন ওই ৫ জনের বিরুদ্ধে মামলা করার নির্দেশ দেয়।

গত ৪ মার্চ কুষ্টিয়ার সিনিয়র জেলা নির্বাচন অফিসার আনিছুর রহমান কুষ্টিয়া মডেল থানায় বর্তমানে ঢাকার নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ে কর্মরত উপসচিব নওয়াবুল ইসলাম, ফরিদপুরের অতিরিক্ত আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা জিয়াউর রহমান, মাগুরা সদরের উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা অমিত কুমার দাস ও কুষ্টিয়া সদর উপজেলা নির্বাচন অফিসের অফিস সহকারী জিএম সাদিকের বিরুদ্ধে একটি মামলা করেন।

একই ঘটনায় বাদী কুমারখালী থানায় কুষ্টিয়া সদর উপজেলা নির্বাচন অফিসার ছামিউল আলমের বিরুদ্ধে আরও একটি মামলা করেছেন। মামলায় আসামিদের বিরুদ্ধে ভোটার তালিকা আইন ও ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে অভিযোগ আনা হয়েছে।

কুষ্টিয়ার সিনিয়র জেলা নির্বাচন অফিসার আনিছুর রহমান জানান, তিনি নির্বাচন কমিশনের নির্দেশ মোতাবেক প্রথমে আদালতে মামলা করেন। পরে আদালত তাকে থানায় মামলা করার নির্দেশ দেন। সেই অনুযায়ী তিনি মামলা দুটি দায়ের করেছেন।

এনআইডি জালিয়াতি: উপসচিবসহ ৫ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে মামলা (ভিডিও)

 কুষ্টিয়া প্রতিনিধি 
০৭ মার্চ ২০২১, ১১:০০ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

কুষ্টিয়ায় জাতীয় পরিচয়পত্র (এনআইডি) জালিয়াতি করে শতকোটি টাকার সম্পত্তি আত্মসাৎ চেষ্টার অভিযোগ এনে এক উপসচিবসহ ৫ জন নির্বাচনী কর্মকর্তার বিরুদ্ধে পৃথক দুটি মামলা করা হয়েছে।

গত ৪ মার্চ কুষ্টিয়া মডেল থানা ও কুমারখালী থানায় এ মামলা করেন জেলার সিনিয়র নির্বাচন কর্মকর্তা আনিসুর রহমান। বিষয়টি রোববার জানাজানি হয়েছে।

আসামিদের মধ্যে আছেন- বর্তমানে ঢাকার নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ের উপসচিব নওয়াবুল ইসলাম, ফরিদপুরের অতিরিক্ত আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা জিয়াউর রহমান, মাগুরা সদরের উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা অমিত কুমার দাস, কুষ্টিয়া সদর উপজেলা নির্বাচন অফিসার ছামিউল আলম ও ওই অফিসের অফিস সহকারী জিএম সাদিক।

জেলা নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা গেছে, কুষ্টিয়া শহরের ১১০ এনএস রোডের বাসিন্দা এমএমএ ওয়াদুদ ও তার পরিবারের আরও ৫ সদস্যের নাম ও তথ্য ব্যবহার করে ৬ ব্যক্তি জালিয়াতির মাধ্যমে জাতীয় পরিচয়পত্র তৈরি করে শতকোটি টাকার সম্পত্তি হাতিয়ে নেয়ার চেষ্টা করেন। সংবাদমাধ্যমে গত বছরের শেষের দিকে এ সংবাদ প্রকাশ হলে দেশজুড়ে তোলপাড় সৃষ্টি হয়ে। পরে ঘটনা তদন্তে নামে নির্বাচন কমিশন।

তদন্তে কুষ্টিয়া জেলা নির্বাচন অফিসের তৎকালীন কর্মরত ৫ কর্মকর্তা-কর্মচারীর সম্পৃক্ততার সুস্পষ্ট প্রমাণ মেলে। এ ঘটনায় নির্বাচন কমিশন ওই ৫ জনের বিরুদ্ধে মামলা করার নির্দেশ দেয়।

গত ৪ মার্চ কুষ্টিয়ার সিনিয়র জেলা নির্বাচন অফিসার আনিছুর রহমান কুষ্টিয়া মডেল থানায় বর্তমানে ঢাকার নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ে কর্মরত উপসচিব নওয়াবুল ইসলাম, ফরিদপুরের অতিরিক্ত আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা জিয়াউর রহমান, মাগুরা সদরের উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা অমিত কুমার দাস ও কুষ্টিয়া সদর উপজেলা নির্বাচন অফিসের অফিস সহকারী জিএম সাদিকের বিরুদ্ধে একটি মামলা করেন।

একই ঘটনায় বাদী কুমারখালী থানায় কুষ্টিয়া সদর উপজেলা নির্বাচন অফিসার ছামিউল আলমের বিরুদ্ধে আরও একটি মামলা করেছেন। মামলায় আসামিদের বিরুদ্ধে ভোটার তালিকা আইন ও ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে অভিযোগ আনা হয়েছে।

কুষ্টিয়ার সিনিয়র জেলা নির্বাচন অফিসার আনিছুর রহমান জানান, তিনি নির্বাচন কমিশনের নির্দেশ মোতাবেক প্রথমে আদালতে মামলা করেন। পরে আদালত তাকে থানায় মামলা করার নির্দেশ দেন। সেই অনুযায়ী তিনি মামলা দুটি দায়ের করেছেন।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন