দুরন্ত বাবরকে ঈর্ষা শেহজাদের
jugantor
দুরন্ত বাবরকে ঈর্ষা শেহজাদের

  স্পোর্টস ডেস্ক  

০৭ জানুয়ারি ২০২০, ১৪:৩৮:১৪  |  অনলাইন সংস্করণ

সীমিত ওভার ও টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে নিজের প্রতিভার বিকাশ আগেই ঘটিয়েছেন সময়ের অন্যতম সেরা ব্যাটসম্যান বাবর আজম। সম্প্রতি টেস্টেও নিজের জাত চিনিয়েছেন এই পাকিস্তানি মিডলঅর্ডার। ৫ দিনের ক্রিকেটে এরইমধ্যে বেশ কিছু রেকর্ড নিজের করে নিয়েছেন বাবর। এজন্য তাকে নিয়ে ইর্শান্বিত সহ-খেলোয়ার আহমেদ শেহজাদ। দারুণ ফর্মে থাকা এই ব্যাটসম্যানকে নিয়ে শেহজাদ গর্বিতও বটে।

সম্প্রতি অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে স্বাগতিকদের বিপক্ষে ২ ম্যাচ টেস্ট সিরিজে ৫২.৫০ গড়ে ২১০ রান করেছেন বাবর। ঝুলিতে রয়েছে একটি করে সেঞ্চুরি ও হাফসেঞ্চুরি। প্রথম টেস্টে ব্রিজবেনে অনন্য ১০৪ রানের ইনিংস খেলেন তিনি। পরে দ্বিতীয় টেস্টে অ্যাডিলেডে তার উইলো থেকে আসে ৯৭ রানের ঝলমলে ইনিংস।

সেই পদাঙ্ক অনুসরণ করে ঘরের মাঠে শ্রীলংকার বিরুদ্ধে ২ ম্যাচ টেস্ট সিরিজে ২৬২ রান করেন ডানহাতি এই ব্যাটসম্যান। প্রথম টেস্টে রাওয়ালপিন্ডিতে অপরাজিত ১০২ রান করেন তিনি। পরের টেস্টে করাচিতে কাঁটায় কাঁটায় ১০০ রানের হার না মানা ইনিংস খেলেন সমসাময়িক বিশ্ব ক্রিকেটের তারকা এই ব্যাটসম্যান।

দুরন্ত গতিতে এগিয়ে যাওয়া ব্যাটসম্যানকে নিয়েপাকপ্যাশনকে পাকিস্তান দলের আরেক নির্ভরযোগ্য ব্যাটসম্যান শেহজাদ বলেন, পাকিস্তানের হয়ে বাবর যা অর্জন করেছে, তা নিয়ে আমি খুশি ও গর্বিত। একইসঙ্গে আমি ঈর্ষাণ্বিতও। সে আমার ছোট ভাইয়ের মতো। ও আগুনে ফর্মে আছে। তার জন্য আমার দলে জায়গা পাওয়া কঠিন হয়ে যাচ্ছে।

শেহজাদ বলেন, বাবরকে ঘষেমেজে তৈরি করেছেন মিকি আর্থার। সে যে জায়গায় ব্যাট করতে পছন্দ করে, সেখানে তাকে স্থান করে দিয়েছেন তিনি। পাকিস্তানে নিজের কোচিংয়ে তার জন্য সবকিছু করেছেন এ প্রোটিয়া কোচ। তবে এটা খারাপ কিছু নয়। এরকমটি প্রতিটি ক্রিকেটারের ক্ষেত্রেই হওয়া উচিত। তা হলে আমরা দেখব, পাক দলে বাবরের মতো আরো ব্যাটসম্যান উঠে আসছে।

শেহজাদ পাকিস্তানের হয়ে সবশেষ ম্যাচ খেলেন গেল বছর অক্টোবরে লাহোরে শ্রীলংকার বিপক্ষে। এরপর জাতীয় দলে ব্রাত্য তিনি। সদ্য সমাপ্ত কায়েদ-ই-আজম ট্রফিতে মধ্য পাঞ্জাবের হয়ে দুর্দান্ত পারফরম করেছেন ২৮ বছর বয়সী এই ক্রিকেটার।

৮ ম্যাচে প্রায় ৩৯ গড়ে করেছেন ৪৬৩ রান। সেই পথে তার উইলো থেকে এসেছে ২টি সেঞ্চুরি ও ৩টি হাফসেঞ্চুরি। দলের শিরোপা জয়ে অগ্রণী ভূমিকা রেখেছেন তিনি। স্বভাবতই জাতীয় দলে ফেরার প্রহর গুনছেন এই ওপেনার।

তথ্যসূত্র: ব্যাটিং উইথ বিমল।

দুরন্ত বাবরকে ঈর্ষা শেহজাদের

 স্পোর্টস ডেস্ক 
০৭ জানুয়ারি ২০২০, ০২:৩৮ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

সীমিত ওভার ও টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে নিজের প্রতিভার বিকাশ আগেই ঘটিয়েছেন সময়ের অন্যতম সেরা ব্যাটসম্যান বাবর আজম। সম্প্রতি টেস্টেও নিজের জাত চিনিয়েছেন এই পাকিস্তানি মিডলঅর্ডার। ৫ দিনের ক্রিকেটে এরইমধ্যে বেশ কিছু রেকর্ড নিজের করে নিয়েছেন বাবর। এজন্য তাকে নিয়ে ইর্শান্বিত সহ-খেলোয়ার আহমেদ শেহজাদ। দারুণ ফর্মে থাকা এই ব্যাটসম্যানকে নিয়ে শেহজাদ গর্বিতও বটে।

সম্প্রতি অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে স্বাগতিকদের বিপক্ষে ২ ম্যাচ টেস্ট সিরিজে ৫২.৫০ গড়ে ২১০ রান করেছেন বাবর। ঝুলিতে রয়েছে একটি করে সেঞ্চুরি ও হাফসেঞ্চুরি। প্রথম টেস্টে ব্রিজবেনে অনন্য ১০৪ রানের ইনিংস খেলেন তিনি। পরে দ্বিতীয় টেস্টে অ্যাডিলেডে তার উইলো থেকে আসে ৯৭ রানের ঝলমলে ইনিংস।

সেই পদাঙ্ক অনুসরণ করে ঘরের মাঠে শ্রীলংকার বিরুদ্ধে ২ ম্যাচ টেস্ট সিরিজে ২৬২ রান করেন ডানহাতি এই ব্যাটসম্যান। প্রথম টেস্টে রাওয়ালপিন্ডিতে অপরাজিত ১০২ রান করেন তিনি। পরের টেস্টে করাচিতে কাঁটায় কাঁটায় ১০০ রানের হার না মানা ইনিংস খেলেন সমসাময়িক বিশ্ব ক্রিকেটের তারকা এই ব্যাটসম্যান।

দুরন্ত গতিতে এগিয়ে যাওয়া ব্যাটসম্যানকে নিয়ে পাকপ্যাশনকে পাকিস্তান দলের আরেক নির্ভরযোগ্য ব্যাটসম্যান শেহজাদ বলেন, পাকিস্তানের হয়ে বাবর যা অর্জন করেছে, তা নিয়ে আমি খুশি ও গর্বিত। একইসঙ্গে আমি ঈর্ষাণ্বিতও। সে আমার ছোট ভাইয়ের মতো। ও আগুনে ফর্মে আছে। তার জন্য আমার দলে জায়গা পাওয়া কঠিন হয়ে যাচ্ছে।

শেহজাদ বলেন, বাবরকে ঘষেমেজে তৈরি করেছেন মিকি আর্থার। সে যে জায়গায় ব্যাট করতে পছন্দ করে, সেখানে তাকে স্থান করে দিয়েছেন তিনি। পাকিস্তানে নিজের কোচিংয়ে তার জন্য সবকিছু করেছেন এ প্রোটিয়া কোচ। তবে এটা খারাপ কিছু নয়। এরকমটি প্রতিটি ক্রিকেটারের ক্ষেত্রেই হওয়া উচিত। তা হলে আমরা দেখব, পাক দলে বাবরের মতো আরো ব্যাটসম্যান উঠে আসছে।

শেহজাদ পাকিস্তানের হয়ে সবশেষ ম্যাচ খেলেন গেল বছর অক্টোবরে লাহোরে শ্রীলংকার বিপক্ষে। এরপর জাতীয় দলে ব্রাত্য তিনি। সদ্য সমাপ্ত কায়েদ-ই-আজম ট্রফিতে মধ্য পাঞ্জাবের হয়ে দুর্দান্ত পারফরম করেছেন ২৮ বছর বয়সী এই ক্রিকেটার।

৮ ম্যাচে প্রায় ৩৯ গড়ে করেছেন ৪৬৩ রান। সেই পথে তার উইলো থেকে এসেছে ২টি সেঞ্চুরি ও ৩টি হাফসেঞ্চুরি। দলের শিরোপা জয়ে অগ্রণী ভূমিকা রেখেছেন তিনি। স্বভাবতই জাতীয় দলে ফেরার প্রহর গুনছেন এই ওপেনার।

তথ্যসূত্র: ব্যাটিং উইথ বিমল।