মাদক মামলায় অপরাধীর শাস্তি বৃক্ষরোপণ!
jugantor
মাদক মামলায় অপরাধীর শাস্তি বৃক্ষরোপণ!

  মাগুরা প্রতিনিধি  

১৬ সেপ্টেম্বর ২০২০, ২০:৫৬:৫০  |  অনলাইন সংস্করণ

মাগুরা জেলা জজ আদালতে মাদকের মামলায় আরও একটি চাঞ্চল্যকর রায় ঘোষিত হয়েছে। মাদক ব্যবসায় জড়িত থাকার অভিযোগ প্রমাণিত হলেও মাসুদ মোল্যা (২০) নামে এক তরুণকে প্রচলিত শাস্তির পরিবর্তে পাঁচটি বনজ ও পাঁচটি ফলজ বৃক্ষরোপণ করতে হবে।

বুধবার দুপুরে মাগুরার চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মো. জিয়াউর রহমান চাঞ্চল্যকর এ রায়টি ঘোষণা করেছেন।

আদালত সূত্রে জানা গেছে, ২০১৮ সালের ২৯ এপ্রিল মাগুরার শালিখা উপজেলার আড়পাড়ার জামাল মোল্যার ছেলে মাসুদকে মাদক ব্যবসায়ে জড়িত থাকার অভিযোগে আটক করা হয়। পরবর্তীতে শালিখা থানা পুলিশের তদন্ত শেষে সাক্ষ্য-প্রমাণাদি উপস্থাপনের পর বুধবার রায় ঘোষণা করা হয়।

মামলায় সরকার পক্ষের আইনজীবী আমির আলি মানিক জানান, যাবতীয় সাক্ষ্য-প্রমাণাদি উপস্থাপনের পর আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগ সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণিত হয় কিন্তু প্রচলিত বিধান অনুযায়ী কারাগারে শাস্তি ভোগের পরিবর্তে আসামিকে ১ বছরের জন্য সমাজসেবা কার্যালয়ের প্রবেশন কর্মকর্তার হেফাজতে দেয়া হয়েছে। এ সময় সে বাড়িতে পরিবারের অন্য সদস্যদের সঙ্গেই থাকবে। কিন্তু অবশ্যই তাকে পরিবেশ রক্ষায় ১০টি বৃক্ষরোপণ করতে হবে।

মামলার আসামিপক্ষের আইনজীবী অনিক হোসেন বলেন, আসামির বয়স কম। অল্পবয়সে সে মাদক ব্যবসায় জড়িয়ে পড়ে। সে অপরাধী হলেও তাকে শাস্তি হিসেবে কারাগারে পাঠালে সম্ভাবনাময় একটি তরুণের স্বপ্ন ও জীবন ধ্বংস হয়ে যেত। বিধায় বিজ্ঞ বিচারকের এ রায়ে আসামি ভালো পথে ফিরে আসার সুযোগ পেয়েছে।

মাগুরা জেলা সমাজসেবা কার্যালয়ের প্রবেশন কর্মকর্তা মেহতাজ আরা সালমা জানান, প্রবেশনকালীন তাকে শুধু গাছ লাগালেই হবে না। এ সময়ে তাকে শান্তি বজায় রাখতে হবে এবং সবার সঙ্গে ভালো ব্যবহার করতে হবে। নতুন করে কোনো প্রকার মাদক সেবন করতে পারবে না। ত্যাগ করতে হবে খারাপ সঙ্গ।
 
এই এক বছরের মধ্যে যদি সে শর্তসমূহ ভঙ্গ করে তবে তাকে ৬ মাসের কারাদণ্ড ভোগের পাশাপাশি ১ হাজার টাকা জরিমানা প্রদান করতে হবে বলে তিনি জানান।

উল্লেখ্য, মাগুরা চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট জিয়াউর রহমান মাদকের মামলায় গত এক বছরে অনুরূপ আরও দুটি রায় প্রদান করেছেন।

মাদক মামলায় অপরাধীর শাস্তি বৃক্ষরোপণ!

 মাগুরা প্রতিনিধি 
১৬ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৮:৫৬ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

মাগুরা জেলা জজ আদালতে মাদকের মামলায় আরও একটি চাঞ্চল্যকর রায় ঘোষিত হয়েছে। মাদক ব্যবসায় জড়িত থাকার অভিযোগ প্রমাণিত হলেও মাসুদ মোল্যা (২০) নামে এক তরুণকে প্রচলিত শাস্তির পরিবর্তে পাঁচটি বনজ ও পাঁচটি ফলজ বৃক্ষরোপণ করতে হবে।

বুধবার দুপুরে মাগুরার চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মো. জিয়াউর রহমান চাঞ্চল্যকর এ রায়টি ঘোষণা করেছেন।

আদালত সূত্রে জানা গেছে, ২০১৮ সালের ২৯ এপ্রিল মাগুরার শালিখা উপজেলার আড়পাড়ার জামাল মোল্যার ছেলে মাসুদকে মাদক ব্যবসায়ে জড়িত থাকার অভিযোগে আটক করা হয়। পরবর্তীতে শালিখা থানা পুলিশের তদন্ত শেষে সাক্ষ্য-প্রমাণাদি উপস্থাপনের পর বুধবার রায় ঘোষণা করা হয়।

মামলায় সরকার পক্ষের আইনজীবী আমির আলি মানিক জানান, যাবতীয় সাক্ষ্য-প্রমাণাদি উপস্থাপনের পর আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগ সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণিত হয় কিন্তু প্রচলিত বিধান অনুযায়ী কারাগারে শাস্তি ভোগের পরিবর্তে আসামিকে ১ বছরের জন্য সমাজসেবা কার্যালয়ের প্রবেশন কর্মকর্তার হেফাজতে দেয়া হয়েছে। এ সময় সে বাড়িতে পরিবারের অন্য সদস্যদের সঙ্গেই থাকবে। কিন্তু অবশ্যই তাকে পরিবেশ রক্ষায় ১০টি বৃক্ষরোপণ করতে হবে।

মামলার আসামিপক্ষের আইনজীবী অনিক হোসেন বলেন, আসামির বয়স কম। অল্পবয়সে সে মাদক ব্যবসায় জড়িয়ে পড়ে। সে অপরাধী হলেও তাকে শাস্তি হিসেবে কারাগারে পাঠালে সম্ভাবনাময় একটি তরুণের স্বপ্ন ও জীবন ধ্বংস হয়ে যেত। বিধায় বিজ্ঞ বিচারকের এ রায়ে আসামি ভালো পথে ফিরে আসার সুযোগ পেয়েছে।

মাগুরা জেলা সমাজসেবা কার্যালয়ের প্রবেশন কর্মকর্তা মেহতাজ আরা সালমা জানান, প্রবেশনকালীন তাকে শুধু গাছ লাগালেই হবে না। এ সময়ে তাকে শান্তি বজায় রাখতে হবে এবং সবার সঙ্গে ভালো ব্যবহার করতে হবে। নতুন করে কোনো প্রকার মাদক সেবন করতে পারবে না। ত্যাগ করতে হবে খারাপ সঙ্গ।

এই এক বছরের মধ্যে যদি সে শর্তসমূহ ভঙ্গ করে তবে তাকে ৬ মাসের কারাদণ্ড ভোগের পাশাপাশি ১ হাজার টাকা জরিমানা প্রদান করতে হবে বলে তিনি জানান।

উল্লেখ্য, মাগুরা চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট জিয়াউর রহমান মাদকের মামলায় গত এক বছরে অনুরূপ আরও দুটি রায় প্রদান করেছেন।

 
আরও খবর
 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন