টাকা দিয়ে সদকাতুল ফিতর আদায় করা যাবে?
jugantor
টাকা দিয়ে সদকাতুল ফিতর আদায় করা যাবে?

  মুফতি রেজাউল কারীম আবরার  

২৩ এপ্রিল ২০২২, ১৪:৩০:১০  |  অনলাইন সংস্করণ

ঈদুল ফিতরের অন্যতম আমল হলো সদকাতুল ফিতর৷ নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিস বাদ দিয়ে ঈদের দিন যারাই নেসাব পরিমাণ সম্পদের মালিক হবে, তাদের উপর সদকাতুল ফিতর ওয়াজিব হয়ে যাবে৷

সদকাতুল ফিতর সংক্রান্ত হাদিস পর্যালোচনা করলে দেখা যায় যে, পাঁচ ধরণের খাদ্যদ্রব্য দিয়ে সদকাতুল ফিতর আদায় করা হতো৷ খেজুর, কিসমিস, পনির, জব এবং গম দিয়ে৷

খেজুর, পনির, জব এবং কিসমিস দিয়ে প্রদান করলে এক সা তথা তিন কেজি ৩০০ গ্রাম প্রদান করতে হবে৷ আর গম দিয়ে প্রদান করলে আধা সা তথা দেড় কেজি ১৫০ গ্রাম প্রদান করতে হবে৷

আবু সাঈদ খুদরী রা. বলেন, আমরা সদকাতুল ফিতর আদায় করতাম এক ‘সা’ খাদ্য দ্বারা অথবা এক ‘সা’ যব অথবা এক ‘সা’ খেজুর, কিংবা এক ‘সা’ পনির বা এক ‘সা’ কিসমিস দ্বারা। আর এক ‘সা’-এর ওজন ছিল নবী করীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-এর ‘সা’ অনুযায়ী। (মুয়াত্তা মালেক পৃ.১২৪; আল ইসতিযকার, হাদিস ৫৮৯, ৯/৩৪৮)

রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এবং সাহাবায়ে কেরামের যুগে কোন বস্তু দ্বারা প্রদান করা হতো, সেটার একটা তালিকা আমরা এ হাদিস থেকে জানতে পারলাম৷

এখন প্রশ্ন হলো, যদি আমরা খাদ্য না দিয়ে মূল্য প্রদান করি, তাহলে সদকাতুল ফিতর আদায় হবে কিনা? অবশ্যই হবে৷ কারণ, সাহাবায়ে কেরাম যেমন খাদ্যদ্রব্য দিয়ে সদকাতুল ফিতর আদায় করেছেন, তেমনভাবে মূল্য দিয়েও আদায় করেছেন৷

ইমাম বুখারি রহ. হজরত মুয়ায (রা.) এর বক্তব্য উল্লেখ করেছেন বুখারি শরিফে। তিনি ইয়ামানবাসীকে বলেন-
তোমরা তোমাদের সদকার মধ্যে কাপড় নিয়ে এসো খাদ্য দ্রব্যাদির স্থলে। সেটা তোমাদের জন্য অধিকতর সহজ এবং মদিনার সাহাবিদের জন্য অধিক উপযোগী।(বুখারি, হাদিস নং, ১১৪৭.শায়খ যুহাইর বিন নাসের তাহকিককৃত)

এ হাদিস একটু ভালভাবে খেয়াল করুন৷ সদকার ক্ষেত্রে ইয়ামানবাসীকে খাদ্যদ্রব্যের জায়গায় কাপড় আনার নির্দেশ দিয়েছেন মুয়াজ বিন জাবাল (রা.)৷ কারণ, তখন সাহাবায়ে কেরামের খাদ্যের চেয়ে কাপড়ের প্রয়োজন ছিল বেশি৷

ইমাম আবু হানিফা (রহ.) এটাই বলেছেন। ইয়ামানবাসীর জন্য কাপড় ছিলো অধিকতর সহজ এবং উপযোগী, এজন্য তিনি সেটার নির্দেশ দিয়েছেন। আর বর্তমান যুগে টাকা অধিকতর সহজ এবং উপযোগী, এজন্য ফিকহে হানাফি অনুসারে টাকা দ্বারা সদকায়ে ফিতর প্রদান করা উত্তম।

আতা (রহ.) উমর (রা.) থেকে বর্ণনা করেন, উমর (রা.০ সদকার ক্ষেত্রে টাকা ইত্যাদি গ্রহণ করতেন।(মুসান্নাফে ইবনে আবি শায়বা, হাদিস নং, ১০৫৩৯. শায়খ মুহাম্মাদ আওয়ামা দা.বা. তাহকিককৃত)

যুহাইর বলেন, আমি আবু ইসহাককে বলতে শুনেছি, তিনি বলেন, আমি সাহাবায়ে কেরামকে পেয়েছি, তারা রমজানের সদকাতে খাদ্যের মূল্য পরিমাণ দিরহাম আদায় করেছেন।(মুসান্নাফে ইবনে আবি শায়বা, হাদিস নং, ১০৪৭২. শায়খ মুহাম্মাদ আওয়ামা দা.বা. তাকিককৃত)

এ হাদিসের বর্ণনাকারী আবু ইসহাক সাবিয়ি (রা.) হলেন প্রসিদ্ধ তাবেয়ী৷ তিনি স্পষ্ট বর্ণনা করছেন যে, সাহাবায়ে কেরাম টাকা দ্বারা সদকাতুল ফিতর আদায় করেছেন৷

প্রসিদ্ধ তাবেয়ি হাসান বসরি (রহ.) এর ফতোয়া দেখুন, তিনি বলেন, সদকায়ে ফিতর দিরহাম দ্বারা প্রদান করতে কোন সমস্যা নেই। ।(মুসান্নাফে ইবনে আবি শায়বা, ১০৪৭১)

কুররা (রহ.) বলেন, আমাদের নিকট উমর বিন আব্দুল আজীজ (রহ.০ এর চিঠি এসেছে যে, সদকাতুল ফিতরের ক্ষেত্রে প্রত্যেক মানুষ থেকে নিসফে সা’ খাবার অথবা অর্ধেক দিরহামের মূল্য গ্রহণ করা হবে।( মুসান্নাফে ইবনে আবি শায়বা, ১০৪৭০)

ইমাম বুখারি (রহ.) এর অন্যতম শিক্ষক হলেন ইমাম আবু বকর ইবনে আবি শায়বা৷ তিনি তার জগদ্বিখ্যাত হাদিসের বই "মুসান্নাফে ইবনে আবি শায়বাহ" এর জাকাত অধ্যায়ে সদকাতুল ফিতর টাকা দ্বারা আদায় করা সংক্রান্ত একটি পরিচ্ছেদ প্রতিষ্ঠা করেছেন এবং পাঁচটি হাদিস এনে প্রমাণ করেছেন যে,সাহাবায়ে কেরাম টাকা দ্বারা সদকাতুল ফিতর আদায় করেছেন৷

বর্তমান যুগে মানুষের সবচেয়ে বেশি চাহিদা হলো টাকা৷ এজন্য টাকা দিয়ে সদকাতুল ফিতর আদায় করলে মানুষ তার যে কোন প্রয়োজন পূর্ণ করতে পারবে৷ আসুন, টাকা দ্বারা সদকাতুল ফিতর আদায় করি৷

লেখক: মুহাদ্দিস ও গবেষক আলেম


টাকা দিয়ে সদকাতুল ফিতর আদায় করা যাবে?

 মুফতি রেজাউল কারীম আবরার 
২৩ এপ্রিল ২০২২, ০২:৩০ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

ঈদুল ফিতরের অন্যতম আমল হলো সদকাতুল ফিতর৷ নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিস বাদ দিয়ে ঈদের দিন যারাই নেসাব পরিমাণ সম্পদের মালিক হবে, তাদের উপর সদকাতুল ফিতর ওয়াজিব হয়ে যাবে৷

সদকাতুল ফিতর সংক্রান্ত হাদিস পর্যালোচনা করলে দেখা যায় যে, পাঁচ ধরণের খাদ্যদ্রব্য দিয়ে সদকাতুল ফিতর আদায় করা হতো৷ খেজুর, কিসমিস, পনির, জব এবং গম দিয়ে৷ 

খেজুর, পনির, জব এবং কিসমিস দিয়ে প্রদান করলে এক সা তথা তিন কেজি ৩০০ গ্রাম প্রদান করতে হবে৷ আর গম দিয়ে প্রদান করলে আধা সা তথা দেড় কেজি ১৫০ গ্রাম প্রদান করতে হবে৷ 

আবু সাঈদ খুদরী রা. বলেন, আমরা সদকাতুল ফিতর আদায় করতাম এক ‘সা’ খাদ্য দ্বারা অথবা এক ‘সা’ যব অথবা এক ‘সা’ খেজুর, কিংবা এক ‘সা’ পনির বা এক ‘সা’ কিসমিস দ্বারা। আর এক ‘সা’-এর ওজন ছিল নবী করীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-এর ‘সা’ অনুযায়ী।  (মুয়াত্তা মালেক পৃ.১২৪; আল ইসতিযকার, হাদিস ৫৮৯, ৯/৩৪৮)

রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এবং সাহাবায়ে কেরামের যুগে কোন বস্তু দ্বারা প্রদান করা হতো, সেটার একটা তালিকা আমরা এ হাদিস থেকে জানতে পারলাম৷ 

এখন প্রশ্ন হলো, যদি আমরা খাদ্য না দিয়ে মূল্য প্রদান করি, তাহলে সদকাতুল ফিতর আদায় হবে কিনা? অবশ্যই হবে৷ কারণ, সাহাবায়ে কেরাম যেমন খাদ্যদ্রব্য দিয়ে সদকাতুল ফিতর আদায় করেছেন, তেমনভাবে মূল্য দিয়েও আদায় করেছেন৷ 

ইমাম বুখারি রহ. হজরত মুয়ায (রা.) এর বক্তব্য উল্লেখ করেছেন বুখারি শরিফে। তিনি ইয়ামানবাসীকে বলেন-
তোমরা তোমাদের সদকার মধ্যে কাপড় নিয়ে এসো খাদ্য দ্রব্যাদির স্থলে। সেটা তোমাদের জন্য অধিকতর সহজ এবং মদিনার সাহাবিদের জন্য অধিক উপযোগী।(বুখারি, হাদিস নং, ১১৪৭.শায়খ যুহাইর বিন নাসের তাহকিককৃত)

এ হাদিস একটু ভালভাবে খেয়াল করুন৷ সদকার ক্ষেত্রে ইয়ামানবাসীকে খাদ্যদ্রব্যের জায়গায় কাপড় আনার নির্দেশ দিয়েছেন মুয়াজ বিন জাবাল (রা.)৷ কারণ, তখন সাহাবায়ে কেরামের খাদ্যের চেয়ে কাপড়ের প্রয়োজন ছিল বেশি৷ 

ইমাম আবু হানিফা (রহ.) এটাই বলেছেন। ইয়ামানবাসীর জন্য কাপড় ছিলো অধিকতর সহজ এবং উপযোগী, এজন্য তিনি সেটার নির্দেশ দিয়েছেন। আর বর্তমান যুগে টাকা অধিকতর সহজ এবং উপযোগী, এজন্য ফিকহে হানাফি অনুসারে টাকা দ্বারা সদকায়ে ফিতর প্রদান করা উত্তম। 

আতা (রহ.) উমর (রা.) থেকে বর্ণনা করেন, উমর (রা.০ সদকার ক্ষেত্রে টাকা ইত্যাদি গ্রহণ করতেন।(মুসান্নাফে ইবনে আবি শায়বা, হাদিস নং, ১০৫৩৯. শায়খ মুহাম্মাদ আওয়ামা দা.বা. তাহকিককৃত)

যুহাইর বলেন, আমি আবু ইসহাককে বলতে শুনেছি, তিনি বলেন, আমি সাহাবায়ে কেরামকে পেয়েছি, তারা রমজানের সদকাতে খাদ্যের মূল্য পরিমাণ দিরহাম আদায় করেছেন।(মুসান্নাফে ইবনে আবি শায়বা, হাদিস নং, ১০৪৭২. শায়খ মুহাম্মাদ আওয়ামা দা.বা. তাকিককৃত)

এ হাদিসের বর্ণনাকারী আবু ইসহাক সাবিয়ি (রা.) হলেন প্রসিদ্ধ তাবেয়ী৷ তিনি স্পষ্ট বর্ণনা করছেন যে, সাহাবায়ে কেরাম টাকা দ্বারা সদকাতুল ফিতর আদায় করেছেন৷

প্রসিদ্ধ তাবেয়ি হাসান বসরি (রহ.) এর ফতোয়া দেখুন, তিনি বলেন, সদকায়ে ফিতর দিরহাম দ্বারা প্রদান করতে কোন সমস্যা নেই। ।(মুসান্নাফে ইবনে আবি শায়বা, ১০৪৭১)

কুররা (রহ.) বলেন, আমাদের নিকট উমর বিন আব্দুল আজীজ (রহ.০ এর চিঠি এসেছে যে, সদকাতুল ফিতরের ক্ষেত্রে প্রত্যেক মানুষ থেকে নিসফে সা’ খাবার অথবা অর্ধেক দিরহামের মূল্য গ্রহণ করা হবে।( মুসান্নাফে ইবনে আবি শায়বা, ১০৪৭০)

ইমাম বুখারি (রহ.) এর অন্যতম শিক্ষক হলেন ইমাম আবু বকর ইবনে আবি শায়বা৷ তিনি তার জগদ্বিখ্যাত হাদিসের বই "মুসান্নাফে ইবনে আবি শায়বাহ" এর জাকাত অধ্যায়ে সদকাতুল ফিতর টাকা দ্বারা আদায় করা সংক্রান্ত একটি পরিচ্ছেদ প্রতিষ্ঠা করেছেন এবং পাঁচটি হাদিস এনে প্রমাণ করেছেন যে,সাহাবায়ে কেরাম  টাকা দ্বারা সদকাতুল ফিতর আদায় করেছেন৷ 

বর্তমান যুগে মানুষের সবচেয়ে বেশি চাহিদা হলো টাকা৷ এজন্য টাকা দিয়ে সদকাতুল ফিতর আদায় করলে মানুষ তার যে কোন প্রয়োজন পূর্ণ করতে পারবে৷ আসুন, টাকা দ্বারা সদকাতুল ফিতর আদায় করি৷

লেখক: মুহাদ্দিস ও গবেষক আলেম


 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন