২৫ দেশে ধর্মীয় স্বাধীনতা লঙ্ঘন বেড়েছে
jugantor
২৫ দেশে ধর্মীয় স্বাধীনতা লঙ্ঘন বেড়েছে

  যুগান্তর ডেস্ক  

২৩ এপ্রিল ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

বিশ্বে কমপক্ষে ২৫টি দেশে ধর্মীয় স্বাধীনতা লঙ্ঘন বেড়েছে। পাশাপাশি অত্যাচার ও নিপীড়নও বৃদ্ধি পেয়েছে।

এর মধ্যে সবচেয়ে খারাপ অবস্থা হলো চীন এবং মিয়ানমারের। ভ্যাটিকান সমর্থিত দাতব্য সংস্থা এইড টু দ্য চার্চ ইন নিড ইন্টারন্যাশনালের (এসিএন) তৈরি ৮০০ পৃষ্ঠার এক প্রতিবেদনে এসব কথা বলা হয়েছে।

এর নাম দেওয়া হয়েছে ‘দ্য রিলিজিয়াস ফ্রিডম ইন দ্য ওয়ার্ল্ড রিপোর্ট’। এতে ২০১৯ এবং ২০২০ সালে ঘটে যাওয়া ঘটনাগুলোকে তুলে ধরে রিপোর্ট তৈরি করা হয়েছে। এ খবর দিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

এতে বলা হয়, বিশ্বব্যাপী কাজ করে ক্যাথলিক দাতব্য সংস্থা এসিএন। সব ধর্মের স্বাধীনতা লঙ্ঘনের বিষয়ে গবেষণা করে তারা।

তাদের সর্বশেষ রিপোর্টে ২৬টি দেশকে লাল তালিকায় ফেলা হয়েছে। এর অর্থ হলো ওইসব দেশে এখনো সংখ্যালঘু নিপীড়ন অব্যাহত আছে।

দুবছর আগে এই তালিকায় ছিল ২১টি দেশ। এ ছাড়া এই তালিকায় ‘অরেঞ্জ’ ক্যাটাগরিতে নেওয়া হয়েছে ৩৬টি দেশকে। দুবছর আগে এমন দেশের সংখ্যা ছিল ১৭।

রিপোর্টে আরও বলা হয়েছে, ধর্মীয় উদ্দেশ্যপ্রণোদিত নিপীড়ন ও নিষ্পেষণের ভয়াবহতা উল্লেখযোগ্য হারে বেড়েছে। বিশেষ করে তা বেশি ঘটছে চীন এবং মিয়ানমারে।

চীন সবচেয়ে বেশি ধর্মীয় অধিকার লঙ্ঘন করছে সিনজিয়াংয়ে মুসলিম উইঘুরদের ওপর নির্যাতন চালিয়ে। সেখানে কর্তৃপক্ষ এতটাই নৃশংসতা চালাচ্ছে- যাকে অনেক বিশেষজ্ঞ গণহত্যা বলে আখ্যায়িত করেছেন।

২৫ দেশে ধর্মীয় স্বাধীনতা লঙ্ঘন বেড়েছে

 যুগান্তর ডেস্ক 
২৩ এপ্রিল ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

বিশ্বে কমপক্ষে ২৫টি দেশে ধর্মীয় স্বাধীনতা লঙ্ঘন বেড়েছে। পাশাপাশি অত্যাচার ও নিপীড়নও বৃদ্ধি পেয়েছে।

এর মধ্যে সবচেয়ে খারাপ অবস্থা হলো চীন এবং মিয়ানমারের। ভ্যাটিকান সমর্থিত দাতব্য সংস্থা এইড টু দ্য চার্চ ইন নিড ইন্টারন্যাশনালের (এসিএন) তৈরি ৮০০ পৃষ্ঠার এক প্রতিবেদনে এসব কথা বলা হয়েছে।

এর নাম দেওয়া হয়েছে ‘দ্য রিলিজিয়াস ফ্রিডম ইন দ্য ওয়ার্ল্ড রিপোর্ট’। এতে ২০১৯ এবং ২০২০ সালে ঘটে যাওয়া ঘটনাগুলোকে তুলে ধরে রিপোর্ট তৈরি করা হয়েছে। এ খবর দিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

এতে বলা হয়, বিশ্বব্যাপী কাজ করে ক্যাথলিক দাতব্য সংস্থা এসিএন। সব ধর্মের স্বাধীনতা লঙ্ঘনের বিষয়ে গবেষণা করে তারা।

তাদের সর্বশেষ রিপোর্টে ২৬টি দেশকে লাল তালিকায় ফেলা হয়েছে। এর অর্থ হলো ওইসব দেশে এখনো সংখ্যালঘু নিপীড়ন অব্যাহত আছে।

দুবছর আগে এই তালিকায় ছিল ২১টি দেশ। এ ছাড়া এই তালিকায় ‘অরেঞ্জ’ ক্যাটাগরিতে নেওয়া হয়েছে ৩৬টি দেশকে। দুবছর আগে এমন দেশের সংখ্যা ছিল ১৭।

রিপোর্টে আরও বলা হয়েছে, ধর্মীয় উদ্দেশ্যপ্রণোদিত নিপীড়ন ও নিষ্পেষণের ভয়াবহতা উল্লেখযোগ্য হারে বেড়েছে। বিশেষ করে তা বেশি ঘটছে চীন এবং মিয়ানমারে।

চীন সবচেয়ে বেশি ধর্মীয় অধিকার লঙ্ঘন করছে সিনজিয়াংয়ে মুসলিম উইঘুরদের ওপর নির্যাতন চালিয়ে। সেখানে কর্তৃপক্ষ এতটাই নৃশংসতা চালাচ্ছে- যাকে অনেক বিশেষজ্ঞ গণহত্যা বলে আখ্যায়িত করেছেন।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন